জমিজমার বিরোধ কতটা নৃশংস হতে পারে! (ভিডিও)

ঢাকা, শুক্রবার, ১৭ আগস্ট ২০১৮ | ২ ভাদ্র ১৪২৫

জমিজমার বিরোধ কতটা নৃশংস হতে পারে! (ভিডিও)

আতিক রহমান পূর্ণিয়া ৯:১৬ অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০১৮

print

বুধবার দুপুর আনুমানিক ২টা। জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বরে জটলা। এক নারীর ফাটা মাথায় ১৭ সেলাই ব্যান্ডেজ করা। তার পাশে দুই হাত-পা ভাঙা এবং মুখ, দাঁত-পাসহ সারা শরীর থেতলানো হুইল চেয়ারে বসা এক বৃদ্ধ।

জটলা ঠেলে ভেতরে যেতেই আহত নারী জানালেন তার নাম মণিরা খাতুন। সাথের মানুষটি তার স্বামী আব্দুর রহমান। তাদের বাসা রাজধানীর ১৭ নম্বর নবাবপুরের টেকেরহাট লেন এলাকায়।

মণিরা অভিযোগ করেন, বুধবার সকালে তার স্বামীর বড় বোন, ওই বড় বোনের জামাই, দুই দেবর, দুই ছেলে-মেয়ের মধ্যে সফত আলী, এনাম, সুমনসহ বেশ কয়েকজন দা, রড ও হেমার নিয়ে তাদের বাসায় আসে।

তিনি বলেন, এসেই তারা বলে- এতো বছর ধইরা বাড়িটা খাইতাছো? বাড়ির হিসাব দেও। স্বামী আব্দুর রহমানকে তার দেবর বাসার বাইরে নিয়ে হেমার দিয়া পিটিয়ে সব দাঁত ভেঙে দেয় বলেও অভিযোগ করেন মণিরা।

তিনি বলেন, এতেও তার স্বজনরা শান্ত হয়নি। স্বামী রহমান প্রাণে বাঁচতে দৌড়ে তিন তলার দিকে পালিয়ে গেলেও সেখানে তাকে উলঙ্গ করে পাশের একটি ভবনের ছাদে ছুড়ে ফেলে দেয়। এতে বলতে গেলে সব হাত-পায়ের হাড় ভেঙে যায় রহমানের।

মণিরা বলেন, তার এবং রহমানের দুই সন্তান। এছাড়া মণিরার আগের সংসারেরও দুই সন্তান রয়েছে বলে জানান তিনি।

হামলার পর আহতদের সবার মোবাইল ফোন নিয়ে বাসাটি তালা মেরে চলে যায় তারা।

একই সাথে মণিরা অভিযোগ করেন, মঙ্গলবার হুমকি এবং আক্রান্ত হওয়ার অভিযোগ জানাতে গেলে বংশাল থানা মামলা নেয়নি। উপরন্তু প্রতিপক্ষের দায়ের করা মামলায় আব্দুর রহমানের এক ছেলেকে মঙ্গলবার রাতে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে অভিযুক্তদের বক্তব্য নিতে গিয়ে জানা যায়- হামলাকারীদের ৫ জনকে পুলিশ আটক করেছে এবং বাকিরা পলাতক রয়েছে।

যোগাযোগ করলে বংশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইদুর রহমান পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, বৃদ্ধ আব্দুর রহমান যে বাড়িটিতে থাকেন সেই বাড়িটির হিস্যা তিনি তার ভাই-বোনকে দেননি। এ নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়েছে। ঘটনাটি একতরফা নয় বলেও দাবি করেন ওসি।

সাইদুর রহমান আগের রাতে মামলা না নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, মামলা গতরাতেই হয়েছে। দুই পক্ষের মামলাই গ্রহণ করা হয়েছে।

এআরপি/এএল/

 
.


আলোচিত সংবাদ