‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত যুবক তালহা হত্যার আসামি

ঢাকা, সোমবার, ২৩ জুলাই ২০১৮ | ৭ শ্রাবণ ১৪২৫

‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত যুবক তালহা হত্যার আসামি

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:৩৬ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ০৬, ২০১৮

print
‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত যুবক তালহা হত্যার আসামি

রাজধানীর জয়কালী মন্দির এলাকায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত মো. রাকিব (২২) বেসরকারি ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র খন্দকার আবু তালহা হত্যার প্রধান সন্দেহভাজন আসামি বলে জানিয়েছে পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে ওয়ারী থানার ওসি রফিকুল ইসলাম পরিবর্তন ডটকমকে এ তথ্য জানান। তিনি জানান, বন্দুকযুদ্ধে নিহত রাকিব ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির ছাত্র আবু তালহা হত্যা মামলার মূল সন্দেহভাজন আসামি। এছাড়া ওয়ারি এলাকায় সদ্য ঘটে যাওয়া আরেকটি হত্যা মামলা আসামি ছিলেন তিনি।

ওসির ভাষ্যে, রাকিবের বিরুদ্ধে শুধু হত্যা মামলা নয়, ওয়ারি থানায় একাধিক ছিনতাইয়ের মামলাও রয়েছে। তার বাড়ি ওয়ারি থানার বনগ্রাম এলাকায়।

এর আগে শুক্রবার ভোর সাড়ে চারটার দিকে জয়কালী মন্দিরের বাংলাদেশ হোমিও মেডিকেল কলেজের পেছনের গলিতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে পুলিশের সঙ্গে ডাকাত দলের গুলি বিনিময় হয়।

পরে গুলিবিদ্ধ রাকিবকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে (ঢামেক) নিয়ে যান ওয়ারি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এসআই মিজান জানান, একদল ডাকাত ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে- এমন তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ জয়কালী মন্দির এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি করলে একজন আহত হন। তাকে ঢামেকে নেয়া হলে তার মৃত্যু হয়।

তিনি আরও জানান, বন্দুকযুদ্ধে নিহত যুবকের দুই সহযোগী জাকির ও ধলাকে আটক করা সম্ভব হলেও বাকিরা পালিয়ে গেছেন। আটকদের কাছ থেকে দুটি চাপাতি, দুটি ছোরা ও একটা চাকু উদ্ধার করা হয়েছে।

ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মো. বাচ্চু মিয়া পরিবর্তন ডটকমকে জানান, বন্দুকযুদ্ধে নিহত যুবকের লাশ ঢামেকের জরুরি বিভাগের মর্গে রাখা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিলেন খন্দকার আবু তালহা। গতবছরের ৮ অক্টোবর সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে ওয়ারীর টিকাটুলি কে এম দাস লেনের নিজ বাসা থেকে বের হন তিনি।

এরপর বাসা থেকে একটু দূরে ছিনতাইকারীর কবলে পড়ে আহত হন। তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর সকাল সোয়া আটটার দিকে মারা যান।

তালহার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার বরুড়ার দেওড়া গ্রামে। তালহা হোস্টেলে থেকে ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ঢাকার আশুলিয়া ক্যাম্পাসে পড়াশোনা করতেন। তার বাবার নাম আবু রিয়াজ মো. নূর উদ্দিন খন্দকার।

পিএসএস/আইএম

 
.



আলোচিত সংবাদ