‘তামাক নিয়ে বাজেটে সরকারের দ্বিমুখী বার্তা’

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ জুলাই ২০১৮ | ৫ শ্রাবণ ১৪২৫

‘তামাক নিয়ে বাজেটে সরকারের দ্বিমুখী বার্তা’

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৪:৫৬ অপরাহ্ণ, জুন ০৮, ২০১৮

print
‘তামাক নিয়ে বাজেটে সরকারের দ্বিমুখী বার্তা’

তামাক জাতীয় পণ্য নিয়ে বাজেটে সরকার দ্বিমুখী বার্তা দিয়েছে বলে দাবি করেছেন গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগের (সিপিডি) সম্মানিত ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য।

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর গুলশানে হোটেল লেকশোর লাবিটা হলে আয়োজিত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পর্যালোচনা পেশকালে বেসরকারি গবেষণা সংস্থাটি এ মন্তব্য করে।

এ ব্যাপারে ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, ‘তামাকের ক্ষেত্রে আশ্চার্যের বিষয় হচ্ছে, দেশে তামাকের ব্যবহার কমানোর জন্য সরকার বাজেটে অভ্যন্তরীণ শুল্ক হার বাড়িয়ে দিয়েছে। আবার বিদেশে তামাক রফতানির জন্য রফতানি শুল্কহার তুলে দিয়েছে। তার অর্থ কী দাঁড়াচ্ছে? দেশে ব্যবহার করবেন না বিদেশে পাঠাবেন। সেক্ষেত্রে বিদেশে পাঠাতে হলে দেশের ভিতরে উৎপাদন বাড়বে। আর উৎপাদন যদি বেড়ে যায়, তাহলে দেশে ব্যবহার কিভাবে কমাবেন?’

এসময় তিনি বলেন, ‘তামাকের ব্যাপারে আমার মনে হয়, আমাদের নৈতিক ব্যবস্থার সাথে বাজেটের সমন্বয় থাকা জরুরি।’  

বাজেটে কিছু জিনিসের ওপর ভ্যাট কম রাখাকে ইতিবাচক হিসেবে উল্লেখ করে দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, আমরা দেখেছি ভ্যাটের ক্ষেত্রে অল্প দামের রুটি ও বিস্কুটে সুবিধা দেওয়া হয়েছে। সাধারণ মানুষ বা গরিব মানুষ এই রুটি-বিস্কুটগুলো খেয়ে থাকে। আমরা মনে করি, এটা ভালো দিক। এছাড়া স্থানীয় মোবাইল ফোন, ফার্মাসিউটিক্যাল, দেশের ভিতরে উৎপাদিত মোটরবাইকের উপর ভ্যাট কম ধরা হয়েছে। এটা পজিটিভ।

বাজেটে অন্যতম একটা সমস্যা উল্লেখ করে সিপিডির ফেলো বলেন, বাজেটে আমরা যেখানে সমস্যা মনে করছি। সেটা হলো বাড়ি ক্রয়ের ক্ষেত্রে আগে ১১০০ স্কয়ার ফুটে ভ্যাট ছিল দেড় শতাংশ আর ১১০০ থেকে ১৬০০ স্কয়ার ফুটে ভ্যাট ছিল আড়াই শতাংশ। কিন্তু বাজেটে এখন দুটোকেই দুই শতাংশ ভ্যাট ধরা হয়েছে। অর্থাৎ যে ছোট ফ্ল্যাট ক্রয় করছিল, তার উপর অতিরিক্ত বোঝা বাড়বে। একইভাবে বৃত্তবান তাদেরকে কমিয়ে দেওয়া হলো। এখানে চাপটা নিম্নমধ্যবিত্ত বা মধ্যবিত্তের উপর পড়বে। আমরা মনে করি ভ্যাট বাড়ানো দ্বারা শহরে বিকাশমান মধ্যবিত্তের উপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।’

জেডএস/টিএটি/এএল/

 
.



আলোচিত সংবাদ