সারতাজ-এর অনন্য সাইন্স ফিক্শন

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

সারতাজ-এর অনন্য সাইন্স ফিক্শন

পরিবর্তন ডেস্ক ১:০৬ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৯

সারতাজ-এর অনন্য সাইন্স ফিক্শন

দেশে শুরু হয়েছে অমর একুশে গ্রন্থমেলা; প্রবাসীরাও দূর থেকে চেষ্টা করছেন গ্রন্থমেলার আমেজ, স্বাদ খুঁজে পেতে। সুদূর আমেরিকার সিয়াটেল থেকে সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে সদ্য কৈশোর পেরোনো তরুণ লেখক সারতাজ-এর প্রথম ডিজিটাল গল্পগ্রন্থ The Hell Code

বইটি দারুণ সব সাইন্স ফিক্শন গল্পে ভরপুর। এক মলাটের ভেতর আছে পাঁচটি ছোট গল্প এবং ছোট উপন্যাস। বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তির অচেনা সব অলিগলি নিয়ে ভবিষ্যৎ অগ্রগতির ভাবনা আর এর সম্ভাব্য বিপদ বুঝতে না পারা আর সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে না পারলে কী হতে পারে—তা নিয়ে গল্পগুলোর ঘটনাপ্রবাহ।

বইটি পড়তে পড়তে এক মায়াবী ভবিষ্যৎ জগৎ ক্রমশ হাতছানি দেয় আর, এগিয়ে যেতে হয় শেষ পর্যন্ত। ভাষার প্রাঞ্জলতা, বর্ণনার সাবলীলতা বেশ চোখে পড়ে। এ বইটি পাঠককে আমন্ত্রণ জানায় কীভাবে আমরা সমাজের জন্য এবং বিশ্বের জন্য সর্বোত্তম ভবিষ্যৎ তৈরি করার জন্য আমাদের সম্ভাব্যতাকে সর্বাধিকভাবে কাজে লাগাতে পারি। কাহিনি আর বর্ণনা সব মিলিয়ে লেখক তার স্বতন্ত্র এটিচুড সৃষ্টি করতে পেরেছেন।

কথায় কথায় লেখক জানালেন, ছোটবেলা থেকেই টের পান বিজ্ঞান, প্রযুক্তি আর ভবিষ্যতের প্রতি দুর্বার ভালবাসা;  যা-কিনা পরবর্তীতে তাকে বই লিখতে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। যা কিছু কল্পনা করেন, ভবিষ্যতে যা কিছু দেখতে চান, তা-ই সাইন্স ফিক্শনের মাধ্যমে তুলে ধরেন।

তার লেখার স্টাইলেই ফুটে উঠে বিশ্বকে তিনি কীভাবে দেখতে চান, বিশ্বের সাথে তার মিথস্ক্রিয়া কী—এসব। বাংলাদেশের তরুণদেরকেও আহ্বান জানালেন, তাদের দৃষ্টিকোণ আর সৃষ্টিশীলতাকে লেখালেখির মাধ্যমে তুলে ধরে সবার সাথে ভাগ করে নিতে। কেননা নিজেকে স্বশিক্ষিত করার এটা একটি মূল্যবান উপায়।

বাংলাভাষী শিশু-কিশোর-তরুণ-তরুণী আর সবাই, যারা ইংরেজি ভাষায় গল্প পড়তে যান, তাদেরকে এই বই পড়ার জন্য সাদর আমন্ত্রণ জানাই। সারা বিশ্বের পাঠকদের জন্য ই-বুকটি পাওয়া যাচ্ছে অ্যামাজনে আর গুগল স্টোরে। বাংলাদেশেও শীঘ্রই পাওয়া যাবে এই বইয়ের হার্ডকপি ভার্সন। লেখক আর বই সম্পর্কে বিস্তারিত জানার ওয়েবসাইট surtazkhan.com। শুভ কামনা এই নবীন লেখককে।

মনিরুজ্জামান শামীম তড়িৎ প্রকৌশলী ভ্যাঙ্কুভার, কানাডা।

 

গ্রন্থ আলোচনা: আরও পড়ুন

আরও