মমতা থেকে হিলারি, রজনীকান্ত থেকে দীপিকা, ঈশার বিয়ের অ্যালবাম

ঢাকা, ১৮ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

মমতা থেকে হিলারি, রজনীকান্ত থেকে দীপিকা, ঈশার বিয়ের অ্যালবাম

পরিবর্তন ডেস্ক: ৪:২৬ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮

মমতা থেকে হিলারি, রজনীকান্ত থেকে দীপিকা, ঈশার বিয়ের অ্যালবাম

ঈশা আম্বানি ও আনন্দ পিরামল গাঁটছড়া বাঁধলেন। আম্বানির আবাস আনতিলিয়ায় এই বিয়ে প্রকৃত অর্থেই ছিল চাঁদের হাট। রাজনৈতিক জগত থেকে বলিউড তারকা, দুই জগতের ব্যক্তিত্বদের ঢল নেমেছিল এই বিয়েতে। কে কে এলেন ঈশার বিয়েতে, কেমনই বা সাজলেন তারা?

 

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, ঈশা ও আনন্দ পরস্পরের দিক থেকে চোখ ফেরাতেই পারছিলেন না এ দিন। দু’জনেরই পোশাকে ছিল সবুজ ও বেইজ রঙের ছোঁয়া। রোলস রয়েস গাড়িতে বরযাত্রীদের সঙ্গে এসেছিলেন আনন্দ। তারপরই প্রথা মতো মালাবদল করেন তারা। পরস্পরের দিকে তাকিয়ে হেসেও ফেলেন।

মুকেশ ও নীতা অভ্যর্থনায় কোনও রকম ত্রুটি তো রাখেননি। বরং আর পাঁচ জন বাবা-মায়ের মতোই মেয়ের বিয়ের দিন একটানা কাজ করতেও দেখা গিয়েছে দুজনকে।

ঈশার ভাই আকাশ ও যমজ ভাই অনন্ত প্রথা মতো ঘোড়ার পিঠে চড়ে আনন্দকে আনতিলিয়ায় নিয়ে আসেন।

বরযাত্রীদের সঙ্গে ছিলেন পেশাদার নৃত্যশিল্পীরা। ভারতের বিভিন্ন প্রান্তের লোকশিল্পীরাও এতে অংশ নিয়েছেন।

রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের মধ্যে প্রথমেই এসেছিলেন দেশটির সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। ঈশার চাচা অনিল আম্বানি সাদরে অভ্যর্থনা জানান তাকে।

এসেছিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী কংগ্রেস নেতা চিদম্বরমও। সাংবাদিকদের সঙ্গে কথাও বলেন তিনি।

ঈশার বিয়েতে চির চেনা শাড়িতেই দেখা গিয়েছে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে।

আম্বানি কন্যার বিয়েতে শুভেচ্ছা জানাতে এসেছিলেন তেলুগু দেশম প্রধান চন্দ্রবাবু নায়ডু।

ঈশাকে শুভেচ্ছা জানান কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রাজনাথ সিং, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়ণবীস। ফড়ণবীস এসেছিলেন ঈশার প্রি-ওয়েডিং সেরেমনিতেও।

সাবেক মার্কিন ফার্স্ট লেডি হিলারি ক্লিনটন ও মার্কিন রাজনীতিবিদ হুমা আবেদিন সন্ধ্যার দিকেই চলে এসেছিলেন আনতিলিয়ায়। দু’জনের পরনেই ছিল ভারতীয় পোশাক। এসেছিলেন জন কেরিও। বলিউড তারকাদের সঙ্গে নাচতেও দেখা যায় তাদের।

ঈশা আম্বানির বিয়েতে বলিউড জগতের কোন তারকা উপস্থিত ছিলেন না তা বলা মুশকিল। বলিউড বাদশা শাহরুখ খান এসেছিলেন স্ত্রী গৌরীর সঙ্গে। তবে প্রথমেই হাজির হন আমির খান। সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী কিরণ রাও।

সদ্যবিবাহিত দীপিকা পাড়ুকোন ও রণদীপ সিং এসেছিলেন। দীপিকার জারদৌসি শাড়ি মন কেড়েছে প্রত্যেকের।

ঈশা আম্বানির বিয়ে, আর প্রিয় বন্ধু প্রিয়াঙ্কা চোপড়া আসবেন না, তা কী হয়? প্রিয়াঙ্কা এলেন জমকালো লেহেঙ্গাতে। সঙ্গে ছিলেন স্বামী নিক জোনাস।

আলিয়া ভাটের ক্রপ টপ লেহেঙ্গা ও সনাতনী সাজ দেখে ক্যামেরার ঝলক তো থামতেই চাইছিল না। আলিয়ার ডিজাইনার ছিলেন মণীশ মালহোত্রা।

রাত যত বেড়েছে, তারকার ঢল নেমেছে আনতিলিয়ায়। বনি কাপুর এসেছিলেন তার দুই মেয়ে জাহ্নবী ও খুশি কাপুরের সঙ্গে।

সোনম কাপুর এসেছিলেন বাবা অনিল কাপুরের সঙ্গে। শহিদ কাপুর এসেছিলেন স্ত্রী মীরা রাজপুতের সঙ্গে।

বচ্চন পরিবারের প্রত্যেকেই এসেছিলেন। শ্বেতা বচ্চন তার বাবা অমিতাভ, মা জয়া ও মেয়ের সঙ্গে একটি ছবিও পোস্ট করেন ইনস্টাগ্রামে। বচ্চন পরিবারে সবার প্রথমে নজর ছিল যার দিকে তিনি যদিও পরে আসেন।

বচ্চন পরিবারে সবার প্রথমে নজর ছিল যার দিকে। জমকালো লাল সনাতনী শাড়িতে তিনি যে সত্যিই মোহময়ী তা আবারও প্রমাণিত হল। ঐশ্বরিয়া রাই এলেন স্বামী অভিষেক ও মেয়ে আরাধ্যকে সঙ্গে নিয়ে। ঐশ্বরিয়ার শাড়িটির ডিজাইনার সব্যসাচী মুখোপাধ্যায়।

তিনি আসবেন না,এটা হতেই পারে না। দক্ষিণী ছবির সুপারস্টার রজনীকান্ত এসেছিলেন স্ত্রী ললিতার সঙ্গে।

বলিউড তারকাদের মধ্যে আবারও পোশাকে নজর কাড়লেন রেখা। এসেছিলেন জ্যাকি শ্রফ, সুনীল শেঠি, মাধুরী দীক্ষিতরাও।

কারিনা কাপুর, স্বামী সাইফ আলি খান ও বোন কারিশমা কাপুরের সঙ্গে এসেছিলেন ঈশাকে শুভেচ্ছা জানাতে। ছিলেন দিশা পাটানিও।

বিদ্যা বালান এসেছিলেন স্বামীর সঙ্গে। এসেছিলেন সস্ত্রীক বিধুবিনোদ চোপড়া। ছিলেন করণ জোহরও।

শচীন টেণ্ডুলকর তার স্ত্রী অঞ্জলি ও ছেলে অর্জুনকে নিয়ে এসেছিলেন। তিন জনেই সনাতনী পোশাকে পাপারাজ্জিদের জন্য পোজও দেন।

জিজাক/

 

বলিউড ও অন্যান্য: আরও পড়ুন

আরও