শুটিংয়ে গিয়ে অসুস্থ অমিতাভ, এখন ভালই

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৯ আশ্বিন ১৪২৫

শুটিংয়ে গিয়ে অসুস্থ অমিতাভ, এখন ভালই

পরিবর্তন ডেস্ক ১২:৪৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৪, ২০১৮

শুটিংয়ে গিয়ে অসুস্থ অমিতাভ, এখন ভালই

শুটিংয়ের মাঝপথে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন অমিতাভ বচ্চন। পিঠের ব্যথায় কষ্ট পাচ্ছেন তিনি। মুম্বাই থেকে তার চিকিৎসকদের তাই নিজেই ডেকে পাঠিয়েছেন জোধপুরে। তবে মঙ্গলরাত থেকেই ফের শুটিংয়ে নামছেন তিনি। এ সংক্রান্ত একটি খবর প্রকাশ করেছে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা।

ভারতের জোধপুরে এখন ‘থাগস অব হিন্দুস্তান’ ছবির শুটিং চলছে। এই ছবিতে প্রথম বার আমিরের সঙ্গে অভিনয় করছেন অমিতাভ। সোমবারও সারা রাত শুটিং করে রিসোর্টে ফেরার পরে অমিতাভ ভোর চারটে পঞ্চাশ মিনিটে একটি টুইট করেন। দশ মিনিট পরে লেখেন একটি বড় ব্লগ পোস্ট। সেখানে শরীর খারাপের কথা আর চিকিৎসকদের ডেকে পাঠানোর কথা নিজেই লিখেছেন। মঙ্গলবার সকালে মুম্বাই থেকে ডাক্তার জয়ন্ত বারভে-র নেতৃত্বে চার জনের দল জোধপুর চলেও গেছেন।  পিঠে ব্যথার জন্য বচ্চনের ফিজিওথেরাপি হয়েছে। ভাল আছেন। অ্যাকশন দৃশ্যে অভিনয়ও করবেন। ডাক্তাররা মুম্বাই ফিরে গেছেন।

ক’দিন আগে ইরফান খান সোশ্যাল মিডিয়ার নিজের বিরল রোগের কথা জানানোর পর নানা গুঞ্জন ছড়িয়েছিল। অমিতাভও স্পষ্ট করে বলেননি, ঠিক কী হয়েছে তার। তবে ব্যথা-যন্ত্রণাজনিত সমস্যার ইঙ্গিত রয়েছে তার কথায়। তিনি রসিকতা করে লিখেছেন, ‘ডাক্তাররা এসে আমায় নেড়েচেড়ে দেখবেন, তারপর ঠুকেঠাকে শরীরটাকে আবার দাঁড় করিয়ে দেবেন। ততক্ষণ আমি বিশ্রাম নেব, জানাব কী হল।’

পরে দেশটির সংসদ চত্বরে অমিতাভ বচ্চনের স্ত্রী জয়া বচ্চনই সাংবাদিকদের বলেন, ‘পিঠে কোমরে ঘাড়ে ব্যথা। কস্টিউমটা খুব ভারী ছিল। তার জন্য ব্যথা হয়েছে।’ জয়া আরও যোগ করেন, ‘উনি ভাল আছেন বলেই সংসদে এসেছি। নইলে জোধপুর চলে যেতাম!’

তবে অমিতাভের টুইট এবং ব্লগ পড়ে অনেকেরই মনে হয়েছে, ব্যথা বেশ ভাল রকমই কাবু করেছে তাকে। বস্তুত আশির দশকে ‘কুলি’র সেটে দুর্ঘটনার পর থেকে ব্যথা-যন্ত্রণার সমস্যা অমিতাভের থেকেই গেছে। ‘থাগস’ ছবিতে তার উপরে অ্যাকশন প্রচুর। এ দিন ভোরের টুইট-এ বচ্চন প্রথমে লেখেন, ‘মেহনত ছাড়া কিছুই পাওয়া যায় না। জোধপুর ঘুমাচ্ছে। আমিও ঘুমোতে যাব শুভানুধ্যায়ীদের সঙ্গে আরেকটু কথা বলে নিয়েই।’ এরপরই আসে ব্লগ পোস্ট। সেখানেও পরিশ্রমের কথা বারবার। ৭৫ বছর বয়সী অমিতাভ লিখেছেন, ‘কিছু মানুষকে জীবিকার তাগিদে কাজ করে যেতেই হয়। কঠোর পরিশ্রম করতে হয়..খুব কঠোর..অবশ্য তা ছাড়া কেউ বা কবে সাফল্য পেয়েছে..লড়াই, হতাশা, যন্ত্রণা, ঘাম, কান্না..পেরিয়ে কাজটা ঠিকঠাক হওয়ার আশা..কখনও মেটে, কখনও মেটে না..।’ যেভাবে ছেঁড়া ছেঁড়া বাক্যে কথাগুলো লিখেছেন তিনি, অনেকেরই মনে প্রশ্ন, ব্যথাকাতরতার ছাপটাই কি ফুটে ওঠেনি? অতিরিক্ত পরিশ্রম, টানা রাত জেগে শুটিং কি থাবা বসাচ্ছে তার স্বাস্থ্যে? গত মাসে মুম্বাইয়ে লীলাবতী হাসপাতালে দেখা গিয়েছিল তাকে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলেছিলেন, রুটিন চেকআপ। কিন্তু নতুন করে ফের শরীর খারাপ হওয়ায় ভক্তদের মনে দুশ্চিন্তা থেকেই গেল।

জিজাক/

আরো পড়ুন...
শুটিং স্পটে অসুস্থ অমিতাভ