দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ২৫

ঢাকা, সোমবার, ২০ জানুয়ারি ২০২০ | ৭ মাঘ ১৪২৬

দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ২৫

ভোলা প্রতিনিধি ৪:৩১ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯

দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ২৫

ভোলার চরফ্যাশনের নুরাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান ও আনারস মার্কার প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

দুই ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে পুলিশসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়।এদের মধ্যে গুরুতর আহত ৪ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এছাড়া আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকরা সতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী কার্যালয়‌ ভাঙচুর করে। ওই এলাকায় এখনও থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, শুক্রবার সকাল ১১ টার দিকে নুরাবাদ বাজার এলাকায় সতন্ত্র প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের সমর্থকরা গণসংযোগ করছিল। এ সময় আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমানের সমর্থকরা লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালালে ঘটনার সূত্রপাত ঘটে। খবর পেয়ে দু'পক্ষের সমর্থকরা লাঠিসোটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে বাজারের দুই পাশে অবস্থান নেয়। এসময় প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী দফায় দফায় ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশের ৩ কর্মকর্তাসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়। ঘটনায় পরপর নৌকা মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী সমর্থকরা নুরাবাদ বাজারের সতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী কার্যালয়‌ ভাঙচুর করে।

দুলারহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান পাটওয়ারী জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এসময় পুলিশের তিন কর্মকর্তা আহত হয়। বর্তমানে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে বলেও জানান তিনি।

আগামী ৩০ ডিসেম্বর নুরাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এর আগে ২০১৩ সালে নুরাবাদ ইউনিয়ন ভেঙে নুরাবাদ ও আহমদপুর নামে দুটি ইউনিয়ন করা হয়। এই দুই ইউনিয়নের সীমানা নির্ধারণ করে গেজেট প্রকাশ করা হয়। এর ভিত্তিতে ২০১৬ সালে এই দুই ইউনিয়নে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। কিন্তু জনৈক নজরুল ইসলাম নামের একজন ভোটার সীমানা নির্ধারণের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদন করেন ওই বছরই। হাইকোর্ট ২০১৬ সালের ৯ আগস্ট এক আদেশে নির্বাচনের কার্যক্রম স্থগিত করেন এবং সীমানা পুনঃনির্ধারণের নির্দেশ দেন। ফলে ওই দুই ইউনিয়নে নির্বাচন বন্ধ হয়ে যায়।

এ অবস্থায় ২০১৬ সালের হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে দুই ভোটার মো. বজলুল হক ও ফখরুল ইসলাম আপিল বিভাগে আবেদন করেন। এ আবেদনের ওপর চলতি বছরের ১৭ নভেম্বর শুনানি নিয়ে আদালত হাইকোর্টের আদেশ বাতিল করেন এবং অবিলম্বে নির্বাচন অনুষ্ঠানের নির্দেশ দেন।

এএম/এমএইচ

 

বরিশাল: আরও পড়ুন

আরও