ভোলায় পুলিশ-জনতা সংঘর্ষে নিহতদের দাফন সম্পন্ন

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

ভোলায় পুলিশ-জনতা সংঘর্ষে নিহতদের দাফন সম্পন্ন

ভোলা প্রতিনিধি ১০:২১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০১৯

ভোলায় পুলিশ-জনতা সংঘর্ষে নিহতদের দাফন সম্পন্ন

ভোলার বোরহানউদ্দিনে পুলিশ-জনতার সংঘর্ষে নিহত ৪ জনের মরদেহ দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

ময়নাতদন্ত ছাড়াই সোমবার লাশ নিজ নিজ এলাকায় দাফন সম্পন্ন হয়।

নিহত ৪ জন হলেন, উপজেলার মহিউদ্দিন পাটওয়ারীর মাদ্রাসা পড়ুয়া ছেলে মাহবুব (১৪), উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের দেলওয়ার হোসেনের কলেজ পড়ুয়া ছেলে শাহিন (২৩), বোরহানউদ্দিন পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মাহফুজ (৪৫), মনপুরা হাজিরহাট এলাকার বাসিন্দা মিজান।

বোরহানউদ্দিন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনামুল হক জানান, দুপুরে নিহতদের পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।

এদিকে নিহতদের পরিবারকে সহযোগিতা করা হবে বলে জানিয়েছেন ভোলা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুল। তিনি আরো জানান, আহতদের চিকিৎসার ব্যাপারে স্বাস্থ্য বিভাগকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এ রআগে ৬ দফা দাবি আদায়ে সংবাদ সম্মেলন করে সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদ। দাবি আদায়ের লক্ষ্যে তারা ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে।

ভোলার জেলা প্রশাসক মাসুদ আলম ছিদ্দিক বলেন, সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের কোন দাবি নিয়ে আমাদের কাছে আসেনি, আমরা এ বিষয়ে কিছু জানি না। তবে রোববার তাদের ৩টি দাবি আমরা মেনে নিয়েছি।

তবে সর্বদলীয় মুসলিম ঐক্য পরিষদের যুগ্ম সদস্য সচিব মিজানুর রহমান জানান, প্রশাসন এখন পর্যন্ত আমাদের কোন দাবি মেনে নেয়নি, তাই আমাদের কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। দাবি মানা না হলে আরো বৃহত্তর আন্দোলনের ঘোষণা দেয়া হবে।

এদিকে গুলিতে নিহত মাহফুজের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। ছেলেকে হারিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়ছেন মা রিজিয়া বেগম।

নিহতের ভাই মিরাজ পাটোয়ারী বলেন, সমাবেশে গিয়ে গুলিতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় মাহফুজ। কয়েকদিন থেকে চোখের চিকিৎসা চলছিলো। সে হাফেজি পড়া শেষ করেছিলো।

ভোলার জেলা প্রশাসক মাসুদ আলম ছিদ্দিক বলেন, পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে, কোথাও কোনো অপ্রতিকর ঘটনার খবর আমরা পাইনি। তবে আমরা নিহতদের পরিবারের আবেদনের প্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ হস্তান্তর করেছি, এছাড়াও আহতদের চিতিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি।

তিনি বলেন, নিহতদের পারিবারকে স্থানীয় সংসদ সদস্য সহযোগিতা করবেন বলেন আমাদের জানিয়েছেন।

বরিশাল রেঞ্জর ডিআইজি শফিকুল ইসলাম বলেন, তদন্ত কমিটি গঠন হয়েছে, পুলিশ পুরো বিষয়ের তদন্ত করছে।

এদিকে সংঘর্ষের ঘটনা বোরহানউদ্দিনে শান্ত পরিবেশে বিরাজ করছে, বিভিন্ন পয়েন্টে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের অবস্থান করতে দেখা গেছে। ভোলা শহরের বিভিন্ন প্রান্তে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি মোতায়েন রয়েছে।

উল্লেখ্য, ফেসবুক ইসলামবিরোধী পোস্টকে কেন্দ্র করে সমাবেশের ডাক দেয় বোরহানউদ্দিনের তাওহিদি জনতা। ওই সমাবেশে বাধা দেয়াকে কেন্দ্র করে পুলিশের সাথে জনতার সংঘর্ষ হয়। এতে ৪ জন নিহত হন। এ ঘটনায় বোরহানউদ্দিন থানায় পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। এ পর্যন্ত গুলিবিদ্ধ ৩৮ জন বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এইচআর

 

বরিশাল: আরও পড়ুন

আরও