পাবনায় কন্যাশিশু বিক্রির চেষ্টা, আটক ৪

ঢাকা, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

পাবনায় কন্যাশিশু বিক্রির চেষ্টা, আটক ৪

পাবনা প্রতিনিধি ৭:১৪ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২১, ২০১৯

পাবনায় কন্যাশিশু বিক্রির চেষ্টা, আটক ৪

পাবনা সদর উপজেলায় ২২ দিন বয়সী এক কন্যাশিশুকে বিক্রির চেষ্টাকালে পুলিশ চারজনকে আটক করেছে।

বুধবার বিকেলে উপজেলার হেমায়েতপুর ইউনিয়নের কিসমতপ্রতাপপুর গ্রাম থেকে তাদের আটক করে।

পুলিশ জানায়, আটকেরা হলেন— হেলাল মন্ডল (৩৫) ও তার স্ত্রী আন্নি (৩০), শ্বশুর আব্দুল্লাহ (৬০) এবং শাশুড়ি রুবি (৫২)।

শিশুটি বর্তমানে পুলিশ হেফাজতে আছে।

হেমায়েতপুর পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক হাবিবুর রহমান জানান, গত শনিবার হেলাল মন্ডল তার স্ত্রী আন্নিকে নিয়ে পাবনার কিসমতপ্রতাপপুর গ্রামে শ্বশুর বাড়িতে আসে। এসময় তারা ঢাকা থেকে সঙ্গে করে একটি কন্যা শিশু নিয়ে আসে।

তিনি জানান, বুধবার বিকেলে প্রতিবেশী এক নিঃসন্তান দম্পতির কাছে ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে শিশুটিকে বিক্রির চেষ্টা করছিল তারা। এসময় স্থানীয়রা আটক করে থানায় খবর দেয়। খবর পেয়ে হেমায়েতপুর পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ চারজনকে আটক করে। শিশুটি তাদের হেফজতে নেয়।

হাবিবুর রহমান জানান, পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে হেলাল জানিয়েছে ঢাকার উত্তরার শফিকুল ইসলাম নামের এক দরিদ্র ব্যক্তির সন্তান এই কন্যা শিশু। শহরের বিসিক ১নং গেট এলাকায় তাদের এক নিঃসন্তান দম্পতি আত্মীয়ের জন্য নিয়ে আসে। কিন্তু পাবনায় আনার পর হেলালের সেই আত্মীয় শিশুটিকে গ্রহণে অস্বীকৃতি জানালে তারা শিশুটিকে অন্য কোন নিঃসন্তান দম্পতির কাছে দেওয়ার চেষ্টা করছিল।

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওবায়দুল হক জানান, পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে হেলাল স্বীকার করেছে সে শিশুটিকে নিজের পরিবারে প্রতিপালনের কথা বলে অন্যত্র বিক্রির চেষ্টা করছিল। হেলালের বক্তব্যের সত্যতা জানতে পাবনা থেকে পুলিশের একটি দল শিশুটির বাবা শফিকুলের খোঁজে ঢাকায় রওনা হয়েছে। তদন্ত শেষে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সে পর্যন্ত শিশুটি পুলিশের হেফাজতে থাকবে বলে জানান ওসি।

এসবি

 

বরিশাল: আরও পড়ুন

আরও