বরিশালে জমে উঠেছে সিটি নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ জুলাই ২০১৮ | ৪ শ্রাবণ ১৪২৫

বরিশালে জমে উঠেছে সিটি নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা

এ.এম জসিম উদ্দিন, বরিশাল ২:০৬ অপরাহ্ণ, জুলাই ১১, ২০১৮

print
বরিশালে জমে উঠেছে সিটি নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা

বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রতীক বরাদ্দের পর পরই প্রার্থীরা উৎসবমুখর পরিবেশে প্রচার-প্রচারণা শুরু করে দিয়েছেন। খণ্ড খণ্ড মিছিল, সাধারণ মানুষের মধ্যে মার্কা সম্বলতি লিফলেট বিতরণ এবং রিকশা বা অটোরিকশাযোগে মাইকিং করে ৬ মেয়র ও ১২৯ কাউন্সিলর প্রার্থী, নগরীর বিভিন্ন ওয়ার্ডে তাদের নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন।

তবে প্রার্থীরা দিনভর গণসংযোগ চালাতে পারলেও দুপুর ২টা থেকে রাত ৮টা অবদি মাইক ব্যবহার সময় বেঁধে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এদিকে নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক মেয়র প্রার্থী সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ কোনো ইশতেহার ঘোষণা করেননি। নগরবাসীর সব ধরনের প্রয়োজনীয় বিষয়গুলো তিনি সমাধান করবেন বলে জানান।

অপরদিকে ধানের শীষ প্রতীক বিএনপির মেয়র প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ার তার নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করবেন বলে জানিয়েছেন এবং তার ইশতেহারে নগরীর উন্নয়নের কথাই থাকবে বলে জানান।

হাতপাখা প্রতিক ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের  মেয়র প্রার্থী ওবাইদুর রহমান মাহবুব ১৬ দফার নির্বাচনী ইশতেহারে উন্নয়নের পাশাপাশি দুর্নীতি ও মাদক মুক্ত নগরীর গড়ে তুলবেন বলে জানিয়েছেন।

মই প্রতীক বাসদ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ডা. মনীষা চক্রবর্তী তার ইশতেহার প্রকাশ করেছেন। কাস্তে প্রতীক সিপিবি’র প্রার্থী একে আজাদ নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করেছেন। লাঙল প্রতীক জাতীয় পার্টির ইকবাল হোসেন তাপস এখনও ইশতেহার প্রকাশ করেননি।

এসব প্রার্থীরা সাধারণ মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের পাশাপাশি নগরীকে একটি আধুনিক মডেলে রুপান্তরিত করবেন বলে জানিয়েছেন।

তবে বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মেয়র প্রার্থীরা সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি জানিয়েছেন।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সিটি নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা হেলাল উদ্দিন খান জানান, মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই ও প্রত্যাহার কার্যক্রম শেষে বিসিসি’র নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী ৬জন, সাধারণ কাউন্সিলর ৯৪ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ৩৫ জন প্রার্থী রয়েছেন।

প্রার্থীরা নির্বাচন কমিশনের শর্ত অনুযায়ী প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাবেন আর আগামী ৩০ জুলাই নির্বাচনে ৩০টি ওয়ার্ডের ১২৩ কেন্দ্রে ২ লাখ ৪২ হাজার ১৬৬ জন ভোটার তাদের পছন্দের মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীকে আগামী ৫ বছরের জন্য ভোটের মাধ্যমে বেছে নেবেন।

এদিকে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ১৭ জন সাধারণ এবং দুইজন সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থীসহ ১৯ কাউন্সিলর প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করায় আওয়ামী লীগ মনোনীত সাধারণ এবং একজন বিএনপি সমর্থিত সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলরসহ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৪জন কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন।

এরা হলেন ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের লিয়াকত হোসেন লাবলু, ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে মোশাররফ আলী খান বাদশা এবং ১৯ নম্বর ওয়ার্ডে গাজী নইমুল হোসেন লিটু এবং ১০, ১১ ও ১২ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের আয়েশা তৌহিদা লুনা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

জেইউ/বিএইচ/ 

 
.



আলোচিত সংবাদ