সঞ্চয়পত্র কিনতে লাগবে ই-টিআইএন

ঢাকা, ২৭ মে, ২০১৯ | 2 0 1

সঞ্চয়পত্র কিনতে লাগবে ই-টিআইএন

পরিবর্তন প্রতিবেদক ২:৩২ অপরাহ্ণ, জুন ১১, ২০১৯

সঞ্চয়পত্র কিনতে লাগবে ই-টিআইএন

২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে সঞ্চয়পত্র কেনাবেচায় বেশ কিছু সংস্কার আসছে। এরমধ্যে সঞ্চয়পত্রের ক্রেতাদের ডাটাবেজ তৈরি, কেনার সময় করদাতা শনাক্তকরণ নম্বর (ই-টিআইএন), জাতীয় পরিচয়পত্র ও ফোন নম্বর দেওয়া বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। তবে বাজেটে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমছে না।

জানা গেছে, ১ জুলাই থেকে সারাদেশে সঞ্চয়পত্রের সব ধরনের লেনদেন অনলাইনে শুরু হচ্ছে। এছাড়া সঞ্চয়পত্র ক্রেতাদের তথ্য সম্বলিত ডাটাবেজ তৈরি করা হচ্ছে। পাশাপাশি সঞ্চয়পত্রের ক্রেতাদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে প্রণয়ন করা হচ্ছে কঠোর নীতিমালা।

এসবের মধ্যে রয়েছে এক লাখ টাকার উপরে সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বিনিয়োগকারীদের করদাতা শনাক্তকরণ নম্বর (ই-টিআইএন) বাধ্যতামূলক, সব লেনদেন ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে হবে। তবে পুরনো বিনিয়োগকারীদের ক্ষেত্রে ই-টিআইএন দেওয়ার বাধ্যবাধকতার বিষয়ে কী হবে সে বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

ইটিআইএন থাকলেই কর দিতে হবে না। এখাত থেকে করযোগ্য আয় হলেই কেবল কর দিতে হবে।

জানা গেছে, সংস্কারের উদ্দেশ্য হচ্ছে- সঞ্চয়পত্র খাতে কালো টাকা বিনিয়োগ রোধ, ধনী ও কর্পোরেট শ্রেণির হাত থেকে সঞ্চয়পত্রকে রক্ষা, ঋণ ব্যবস্থাপনায় শৃঙ্খলা ফেরানো ও অধিক সুদ পরিশোধে বাজেটের ওপর থেকে অতিরিক্ত চাপকে কমাতেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

বর্তমানে পরিবার সঞ্চয়পত্রে একজন ব্যক্তি একক নামে সর্বোচ্চ ৪৫ লাখ টাকা ও তিন মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক সঞ্চয়পত্রে একক নামে সর্বোচ্চ ৩০ লাখ টাকা যৌথ নামে সর্বোচ্চ ৬০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করতে পারেন।

বর্তমানে চার ধরনের সঞ্চয়পত্রের মধ্যে পেনশনার সঞ্চয়পত্রে সবচেয়ে বেশি সুদ দিচ্ছে সরকার। এ হার ১১ দশমিক ৭৬ শতাংশ। পেনশনার সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ করতে পারেন সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও আধাস্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, সশস্ত্র বাহিনী থেকে অবসরপ্রাপ্ত ব্যক্তি এবং অবসরপ্রাপ্ত বিচারকরা।

এতে সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করা যায়।

সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগ রয়েছে ‘পরিবার সঞ্চয়পত্রে’। এতে সুদের হার ১১.৫২ শতাংশ। প্রাপ্তবয়স্ক যেকোনো নারী এই সঞ্চয়পত্র কিনতে পারেন একক নামে সর্বোচ্চ ৪৫ লাখ টাকা পর্যন্ত। পাঁচ বছর মেয়াদী ও তিন মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক সঞ্চয়পত্র দেশের যেকোনো নাগরিক কিনতে পারেন। একক নামে ৩০ লাখ ও যৌথ নামে সর্বোচ্চ ৬০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করার সুযোগ রয়েছে এই দুই সঞ্চয়পত্রে।

এছাড়া, ৫ বছর মেয়াদী সঞ্চয়পত্রে মুনাফার হার ১১ দশমিক ২৮ শতাংশ ও ৩ বছর মেয়াদী ৩ মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার ১১ দশমিক ০৪ শতাংশ।

এফএ/এএসটি

 

ব্যাংক ও বীমা: আরও পড়ুন

আরও