দ্বৈত নাগরিকত্বের জেরে অস্ট্রেলিয়ার সিনেট প্রধানের পদত্যাগ

ঢাকা, শনিবার, ২১ জুলাই ২০১৮ | ৬ শ্রাবণ ১৪২৫

দ্বৈত নাগরিকত্বের জেরে অস্ট্রেলিয়ার সিনেট প্রধানের পদত্যাগ

পরিবর্তন ডেস্ক ৬:৩২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০১, ২০১৭

print
দ্বৈত নাগরিকত্বের জেরে অস্ট্রেলিয়ার সিনেট প্রধানের পদত্যাগ

দ্বৈত নাগরিকত্বের কারণে অস্ট্রেলিয়ার পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ সিনেটের প্রেসিডেন্ট স্টিফেন পেরি পদত্যাগ করেছেন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি’ বুধবার জানায়, বাবার সূত্রে যুক্তরাজ্যেরও নাগরিক হওয়ায় তিনি পদ ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা দেন। বুধবার এক বিবৃতিতে তিনি জানান, নির্বাচনে দ্বৈত নাগরিকের অংশগ্রহণে বাধার বিষয়ে হাইকোর্ট স্বচ্ছ অবস্থান প্রকাশ করেছে। বিচার বিভাগের প্রতি সম্মান জানিয়েই তিনি পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন।

বিবৃতিতে লিবারেল পার্টির পেরি আরও বলেন, দ্বৈত নাগরিকত্ব থাকায় তার নির্বাচিত হওয়ার বৈধতাও হারিয়েছে। ফলে ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে নাগরিকত্বের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরপরই তিনি পদত্যাগের এই সিদ্ধান্ত নেন।

গেল শুক্রবার অস্ট্রেলিয়ার হাই কোর্ট দ্বৈত নাগরিকত্বের কারণে দেশটির উপপ্রধানমন্ত্রী বার্নাবি জয়েস ও আঞ্চলিক উন্নয়ন মন্ত্রী ফিওনা ন্যাশসহ পাঁচ সাংসদকে অযোগ্য ঘোষণা করেন। দেশটির সংবিধানে দ্বৈত-নাগরিকদের নির্বাচনে অংশগ্রহণের ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আছে।

চলতি বছরের জুলাই থেকেই অস্ট্রেলিয়ার পার্লামেন্টে দ্বৈত নাগরিক থাকার বিষয়টি দেশটির রাজনীতিতে ব্যাপক ঝড় তোলে। পার্লামেন্টের অনেক সংসদ সদস্যই জনসমক্ষে নিজেদের নাগরিকত্বের অবস্থান ব্যাখ্যা করতে বাধ্য হন।

অস্ট্রেলিয়ায় সিনেটে প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নিম্নকক্ষ হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভের স্পিকারের মতোই। স্টিফেন পেরির পদত্যাগের পর পরবর্তী সিনেট প্রধান নির্বাচিত করতে দেশটির উচ্চকক্ষে আবারও ভোটের আয়োজন করতে হবে। তবে অস্ট্রেলিয়ার জোট সরকারে লিবারেল পার্টি সংখ্যাগরিষ্ঠ হওয়ায় পেরির উত্তরসূরিও একই দলের হবেন বলেই মনে করা হচ্ছে।

কেবিএ

 
.



আলোচিত সংবাদ