হোয়াটসঅ্যাপে বই লিখে সর্বোচ্চ সাহিত্য পুরস্কার এক শরণার্থীর

ঢাকা, ২০ মার্চ, ২০১৯ | 2 0 1

হোয়াটসঅ্যাপে বই লিখে সর্বোচ্চ সাহিত্য পুরস্কার এক শরণার্থীর

পরিবর্তন ডেস্ক ৪:০৩ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ০১, ২০১৯

হোয়াটসঅ্যাপে বই লিখে সর্বোচ্চ সাহিত্য পুরস্কার এক শরণার্থীর

অভিবাসন প্রত্যাশী সাংবাদিক বেহরুজ বুচানিকে বেশ কয়েক বছর আটক করে রেখেছিল অস্ট্রেলীয় কর্তৃপক্ষ। এবার সেই বুচানিই ভূষিত হলেন অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি সাহিত্য পুরস্কারে।

'নো ফ্রেন্ড বাট দ্য মাউন্টেনস: রাইটিং ফ্রম মানুস প্রিজন' বইয়ের জন্য ২০১৯ সালের ভিক্টোরিয়ান প্রাইজ ফর লিটারেচার জিতে নিয়েছেন ইরানি কুর্দ বেহরুজ বুচানি। আর্থিক মূল্যমানের দিক থেকে অস্ট্রেলিয়ার সর্বোচ্চ এই সাহিত্য পুরস্কার জেতায় তিনি পাবেন এক লাখ অস্ট্রেলীয় ডলার।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি জানায়, বুচানি বর্তমানে পাপুয়া নিউগিনির মানুস দ্বীপে বাস করছেন এবং তার অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

প্যাসিফিক অঞ্চলের যে বিতর্কিত বন্দিশালায় তিনি আটক ছিলেন সেটি ২০১৭ সালে বন্ধ করে দেয়া হয়। এরপর বুচানিসহ শত শত বন্দীর জন্য বিভিন্ন জায়গায় থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

নৌকায় করে অস্ট্রেলিয়ায় পৌঁছানো শরণার্থীদের বিষয়ে অস্ট্রেলিয়ায় ব্যাপক কড়াকড়ি রয়েছে। সেখানকার কর্তৃপক্ষ এমন আশ্রয় প্রার্থনাকারীদেরকে কোনোভাবেই অস্ট্রেলিয়ায় থাকতে না দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। নৌকায় করে অস্ট্রেলিয়ায় যাওয়ার বিপদজ্জনক চেষ্টাকে নিরুৎসাহিত করতেই এমন নীতি গ্রহণ করেছেন তারা।

'নো ফ্রেন্ড বাট দ্য মাউন্টেনস'-এর জন্য সাহিত্য পুরস্কার জয় ছাড়াও, নন-ফিকশন ভিক্টোরিয়ান প্রিমিয়ার'স লিটারেরি অ্যাওয়ার্ডসও পেয়েছেন তিনি। এর মূল্যমান হচ্ছে ২৫ হাজার অস্ট্রেলীয় ডলার।

মানুস ডিপ থেকে বুচানি বিবিসিকে জানান, পুরস্কার জয়ে তার মনে মিশ্র অনুভূতি তৈরি হয়েছে।

'আমাদের দুর্দশার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পেরেছি এতে আমি খুব খুশি। কিন্তু অন্যদিকে আমার মনে হচ্ছে, এটা নিয়ে আনন্দ করা আমার সাজে না, কারণ এখানে আমার অনেক বন্ধু দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।'

'আমাদের প্রথম কাজ হবে মুক্ত হয়ে এই দ্বীপ থেকে বের হওয়া এবং নতুন জীবন শুরু করা,' বলেন বুচানি।

বন্দিশালায় আটক থাকার সময় হোয়াটসঅ্যাপের মেসেজে তার বইটি লিখেছিলেন বুচানি। ফার্সিতে লেখা মূল রচনা তিনি তার অনুবাদক ওমিদ তোফিগিয়ানের কাছে পাঠান। 

তিনি বলেন, 'হোয়াটসঅ্যাপ আমার অফিসের মতো। আমি কাগজে লিখিনি কারণ, ওই সময় গার্ডরা প্রতি সপ্তাহে বা মাসে আমাদের কক্ষে হানা দিয়ে আমাদের জিনিসপত্র তল্লাশি করতো। ভয় ছিল হয়তো আমার লেখা কেড়ে নেয়া হবে, এ কারণে এটা লিখে সেন্ড করে দেয়াই ভালো মনে হতো।'

২০১৩ সালে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া থেকে নৌকায় করে পৌঁছানোর পর প্রথম আটক হন বুচানি। অস্ট্রেলিয়ার বিতর্কিত বন্দিশালায় থাকার সময় বিভিন্ন ইস্যুতে সরব হয়ে পরিচিতি পান তিনি।

বুচানি ব্রিটেনের দ্য গার্ডিয়ান পত্রিকায় লেখেন। মানুস দ্বীপে জীবন-যাপনের চিত্র তুলে ধরে প্রচুর পরিমাণে টুইট করেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ার নীতিমালারও তিনি একজন কঠোর সমালোচক। ফোন দিয়েই একটি ডকুমেন্টারি ভিডিও ও সহ-পরিচালনা করেছেন তিনি।

এমআর/আরপি

 

অস্ট্রেলিয়া: আরও পড়ুন

আরও