জেরুজালেমে দূতাবাস সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করছে অস্ট্রেলিয়া

ঢাকা, সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯ | ১১ চৈত্র ১৪২৫

জেরুজালেমে দূতাবাস সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করছে অস্ট্রেলিয়া

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:০৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৬, ২০১৮

জেরুজালেমে দূতাবাস সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করছে অস্ট্রেলিয়া

জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার কথা ভাবছে অস্ট্রেলিয়া। একই সঙ্গে তেলআবিব থেকে তাদের দূতাবাসও জেরুজালেমে সরিয়ে নেয়ার কথা ভাবছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন।

এই পদক্ষেপ কার্যকর হলে যুক্তরাষ্ট্রকে অনুসরণ করা দ্বিতীয় দেশ অস্ট্রেলিয়া। সম্প্রতি বিশ্ব জুড়ে সমালোচনার মধ্যেও তেলআবিব থেকে জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাস সরিয়ে নিয়ে যায় যুক্তরাষ্ট্র।

মরিসন বলেন, অস্ট্রেলিয়া ইসরাইল-ফিলিস্তিন সমস্যার দ্বিপাক্ষিক সমাধানের বিষয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, কিন্তু এখন পর্যন্ত খুব একটা ফলপ্রসূ হয়নি।

রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বীরা মরিসনের বক্তব্যকে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপনির্বাচনে ভোট জেতার ‘কৌশল’ হিসেবে অভিহিত করছেন।

গত বছর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতি পরিবর্তন করে জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ায় আন্তর্জাতিক মহলের সমালোচনার সম্মুখীন হন। এবছর মে মাসে তেলআবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে স্থানান্তর করা হয়।

মরিসন মনে করেন, ইসরাইল-ফিলিস্তিন শঙ্কট সমাধানে ‘দুই-রাষ্ট্র’ প্রতিষ্ঠার চেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জেরুজালেমকেও ইসরাইলের রাজধানী হিসবে স্বীকৃতি দেয়া সম্ভব। কিন্তু মরিসনের এই বক্তব্যের আগ পর্যন্ত তারা এটাকে অসম্ভব বলে মনে করত।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, এই সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে তিনি তার মন্ত্রিসভা ও অন্যান্য দেশের সঙ্গে আলোচনা করবেন।

মঙ্গলবার মরিসন জানান, এবিষয়ে তার চিন্তাভাবনা পরিচালনা করছেন ইসরাইলে নিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ার সাবেক রাষ্ট্রদূত ডেভ শর্মা।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী টার্নবুল প্রধানমন্ত্রীত্ব হারানোর পর, তার আসনে অনুষ্ঠিতব্য উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন শর্মা।

ইহুদি অধ্যুষিত ওয়েন্টওর্থ আসনে শর্মা জয়ী না হলে বর্তমান হাউস অব রিপ্রেজেনটেটিভে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাবে মরিসনের দল।

বিরোধীদলের সিনেট নেতা পেনি ওয়াং বলেন, ‘মরিসন অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রনীতি নিয়ে বিপদজনক খেলা খেলছেন। উনি কয়েকটা ভোট জেতার জন্য যা খুশি তাই বলতে প্রস্তুত। এমনকি তিনি অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় স্বার্থকে বিসর্জন দিতে রাজি।’

এমআর/এএসটি