ফিলিস্তিনে অপরাধ ঢাকতে বলিউডকে ব্যবহার করছে ইসরাইল

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ফিলিস্তিনে অপরাধ ঢাকতে বলিউডকে ব্যবহার করছে ইসরাইল

পরিবর্তন ডেস্ক ১:৫৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০১৯

ফিলিস্তিনে অপরাধ ঢাকতে বলিউডকে ব্যবহার করছে ইসরাইল

ভারত-ইসরাইল সম্পর্ককে আরও ঘনিষ্ঠ করতে তিনদিন ব্যাপী টিএলভি ইন্ডিয়া উৎসবের আয়োজন করেছে অবৈধ ইহুদিবাদি রাষ্ট্র ইসরাইল। এ উপলক্ষে দলে দলে ইসরাইল সফরে যাচ্ছেন ভারতীয় অভিনেতারা।

ইসরাইলের রাজধানী তেল আবিবে অনুষ্ঠেয় ওই উৎসবে ৩০ হাজার ভারতীয় উপস্থিত হবেন বলে আশা করছেন আয়োজকরা। খবর মিডল ইস্ট আইয়ের।

কিন্তু জনপ্রিয় এই চলচ্চিত্র তারকারা যাতে ইসরাইল সফরে না যান এবং তেল আবিবকে সাংস্কৃতিকভাবে বর্জনকে সম্মান দেখান, সে জন্য তাদের প্রতি চাপ দিতে সমর্থকদের প্রতি আহ্বান জানান দখলদার রাষ্ট্রটিকে বর্জন-পরিত্যাগ-নিষেধাজ্ঞা (বিডিএস) প্রচারের কর্মীরা।

বিডিএস প্রচারের দক্ষিণ এশিয়ার সমন্বয়ক অপূর্ব পিজি বলেন, ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনে বলিউডের সমর্থন পেতেই তারকাদের নিয়ে এই বিপুল খরুচে উৎসব। এটা ইসরাইলি কৌশলের অংশ। আর বর্তমানে সেটা নতুন উচ্চতা পেয়েছে।

ওই সাংস্কৃতিক কর্মসূচিতে যোগ দেয়া অভিনেত্রীদের একজন সোফি চৌধরী বলেন, অনুষ্ঠানটি বাতিল করা হয়েছে। তবে তার দাবির সত্যতা যাচাই করতে পারেনি মিডল ইস্ট আই। বিডিএসের তথ্যানুসারে, ২০১৮ সালেও এমন একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। কিন্তু চাপের কারণে সেটি অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয়েছে।

এই অনুষ্ঠান কিংবা এটা ছাড়াও বলিউডে ইসরাইলের এমন কিছু বন্ধুত্বপূর্ণ কর্মসূচি রয়েছে, যাতে নিপীড়নের শিকার ফিলিস্তিনিরা ক্ষতির মুখে পড়ছেন। পশ্চিমা বিশ্বে তলানিতে যাওয়া ভাবমর্যাদা সামলাতে বলিউডের খ্যাতিকে কূটনৈতিক শক্তি হিসেবে কাজে লাগিয়ে এই বিনিয়োগ বিভিন্নভাবে মুনাফা হয়ে ফিরে আসবে ইসরাইলের ঘরে।

ইসরাইল নতুন বাজারে ঢোকা ও পর্যটক টানতে চলচ্চিত্রে বিনিয়োগে আহ্বান জানিয়েছে। এক্ষেত্রে কর সুবিধা দেয়ারও কথা রয়েছে দেশটির পক্ষ থেকে। ড্রাইভ সিনেমাটিতে ইসরাইলি পর্যটন মন্ত্রণালয় ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের তহবিলও রয়েছে।

নিউইয়র্কভিত্তিক দক্ষিণ এশীয় সংহতি উদ্যোগের (এসএএসআই) সদস্য রবীন্দ্র দেব বলেন, বলিউড ও ইসরাইলের মধ্যে গড়ে ওঠা সম্পর্ক, ভারতের সঙ্গে ইসরাইলের ক্রমবর্ধমান সম্পর্ক এবং ফিলিস্তিনে দখলদারিত্বে সায় একটা অস্বস্তিকর সংকেত দিচ্ছে। ইসলামবিদ্বেষ ও জাতীয়তাবাদী নতুন বিবরণ তৈরিতে ডুবে আছে ভারতীয় গণমাধ্যম। কাজেই ফিলিস্তিনে দখলদারিত্ব ঢাকতে এসব মিডিয়ায় কিছু অনুগত পাঠক ও দর্শক আগে থেকেই পাচ্ছে ইসরাইলি প্রকল্প।

নিউইয়র্কভিত্তিক সাংবাদিকতা ও গবেষণা কেন্দ্র দ্য পোলিস প্রকল্পের পরিচালক সুচিত্রা বিজয়া বলেন, ইসরাইলের দখলদারিত্ব প্রকল্পে জড়াতে চায় বলিউড। এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। ইসরাইল শিল্পকলাকে উপনিবেশীকরণ করেছে, সংস্কৃতিকে উপনিবেশীকরণ করেছে। এই প্রক্রিয়ার সবচেয়ে নগ্ন দৃষ্টান্ত হচ্ছে বলিউড। উপমহাদেশের সঙ্গে ফিলিস্তিনিদের দীর্ঘ সম্পর্ক রয়েছে। ইসরাইল সেটাকে মুছে দিতে চাচ্ছে।

বিডিএস আন্দোলনকে অকার্যকর করে দিতে বলিউডের সমর্থন আদায়ের চেষ্টা মোটেও গোপন করছেন না ইসরাইলি কর্তৃপক্ষ বলেও জানান অপূর্ব পিজি।

অপূর্ব বলেন, ভারতে ইসরাইলের ভাবমূর্তি বাড়াতে সর্বাত্মক চেষ্টা করা হচ্ছে। ভারতীয় চলচ্চিত্র নির্মাতাদের বড় ধরনের মুনাফার প্রস্তাব দিচ্ছে ইসরাইলি কর্তৃপক্ষ। যাতে তারা দেশটিতে গিয়ে নিজেদের চলচ্চিত্রের শুটিং করেন।

এমএফ/

 

এশিয়া: আরও পড়ুন

আরও