‘আমার অনেক বক্তব্য ভুলভাবে উদ্ধৃত করা হয়েছে’ 

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

‘আমার অনেক বক্তব্য ভুলভাবে উদ্ধৃত করা হয়েছে’ 

পরিবর্তন ডেস্ক ৪:৩৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২০, ২০১৯

‘আমার অনেক বক্তব্য ভুলভাবে উদ্ধৃত করা হয়েছে’ 

মালয়েশিয়ায় ‘বিতর্কিত’ বক্তব্যের জন্য মঙ্গলবার ক্ষমা চেয়েছেন দেশটিতে অবস্থানরত আলোচিত ধর্মপ্রচারক ড. জাকির নায়েক।

তিনি বলেন, আমি আমার অবস্থান পরিষ্কার করা সত্ত্বেও, সবার কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত বলে মনে করছি। ক্ষমা চাইছি তাদের কাছে, যারা আহত হয়েছেন ভুল বোঝাবুঝির জন্য। আমার প্রতি আপনারা কেউ খারাপ অনুভূতি পোষণ করুন এমনটা আমি চাই না। আমাকে সাম্প্রদায়িক হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। তবে আমার অনেক বক্তব্য ভুলভাবে উদ্ধৃত করা হয়েছে। 

এর আগে, গত ৩ আগস্ট কোটাবারুর এক অনুষ্ঠানে জাকির নায়েক ভারতের সংখ্যালঘু মুসলিম থেকে মালয়েশিয়ার সংখ্যালঘু হিন্দুরা ‘১০০ গুণ’ বেশি অধিকার ভোগ করেন বলে মন্তব্য করেন।

এই মন্তব্যের পর সমালোচনার ঝড় উঠলে জাকির নায়েককে মালয়েশিয়া থেকে বহিষ্কারের দাবি ওঠে।

তবে সেটির রেশ না কাটতেই জাকির নায়েক ‘তাকে বহিষ্কারের আগে চীনা মালয়েশীয়দের (মালয়েশিয়া থেকে) বহিষ্কার করা উচিত’ বলে মন্তব্য করে ফের বিতর্ক সৃষ্টি করেন।

এরপর বহিষ্কারের দাবী জোরালো হয়। বিষয়টি মন্ত্রিপরিষদে ওঠে। প্রথমদিকে প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মদ জাকির নায়েকের পক্ষে থাকলেও পরে তিনি বলেছেন, তাকে বহিষ্কার করা হতে পারে। ফলে ক্রমশ একপেশে হয়ে পড়ছেন তিনি। এ অবস্থায় তিনি তার বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চান।

তার এ বক্তব্যের জন্য এরই মধ্যে সাতটি রাজ্যে তাকে বক্তব্য রাখার ক্ষেত্রে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

পুলিশের কর্মকর্তা আসমাওয়াতি আহমেদ বলেছেন, পুলিশের সব কন্টিনজেন্টকে এমন নির্দেশ পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। এটা করা হয়েছে জাতীয় নিরাপত্তা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার জন্য।

ইসলাম ধর্ম, জঙ্গিবাদ, জিহাদ নিয়ে বক্তব্যের জেরে ৫৩ বছর বয়সী জাকির নায়েককে ইতোমধ্যে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডাসহ বিভিন্ন দেশ কালো তালিকাভুক্ত করেছে। একই অভিযোগে ভারত সরকার তার বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নিতে শুরু করলে তিনি মালয়েশিয়ায় আশ্রয় গ্রহণ করেন।

এমএফ/

 

এশিয়া: আরও পড়ুন

আরও