চীনে আরবি ও মুসলিম নিদর্শন সরাতে নির্দেশ

ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯ | ২৯ আশ্বিন ১৪২৬

চীনে আরবি ও মুসলিম নিদর্শন সরাতে নির্দেশ

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:২৪ অপরাহ্ণ, আগস্ট ০১, ২০১৯

চীনে আরবি ও মুসলিম নিদর্শন সরাতে নির্দেশ

চীনের রাজধানী বেইজিংয়ের মুসলিম হালাল রেস্টুরেন্ট ও খাবারের দোকানগুলো থেকে আরবি ভাষা এবং মুসলিম নিদর্শন সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দিয়েছে সরকার।

এর মাধ্যমে দেশটি মুসলিম জনগোষ্ঠীকে ‘চিনিসাইজ’ বা চীনা ধারার সমাজতন্ত্রের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ করে তুলতে চাইছে বলে খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স ও আলজাজিরা।

বেইজিংয়ে হালাল পণ্য বিক্রি করে এমন ১১টি রেস্টুরেন্ট ও দোকানের কর্মীরা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, কর্তৃপক্ষ ইসলামের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ যেমন অর্ধচন্দ্র, আরবি হরফে হালাল লেখাগুলো সরিয়ে নিতে বলেছে।

চীন আগেই ঘোষণা করেছে, আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে তারা ইসলামের ‘চীনা ভার্সন’ কার্যকর করবে।

বেইজিংয়ের একটি নুডলস শপের ব্যবস্থাপক জানান, তার দোকানের লোগো থেকে আরবিতে হরফে লেখা ‘হালাল’ শব্দটি ঢেকে ফেলতে বলেছে।

তিনি বলেন, ‘কারণ হিসেবে কর্তৃপক্ষ যুক্তি দেখিয়েছে, এগুলো বিদেশি সংস্কৃতি। চীনের নাগরিক হিসেবে নাকি আমাদের চীনা সংস্কৃতিই বেশি বেশি ব্যবহার করা উচিত।’

নুডলস শপের এই ব্যবস্থাপকের মতো একাধিক দোকানদার নাম প্রকাশ না করার শর্তে একই নির্দেশনা পাওয়ার কথা জানিয়েছেন।

২০১৬ সাল থেকেই চীনে আরবি ভাষা এবং ইসলামী রীতির ছবির প্রতি খড়গহস্ত হয় সরকার। ইতোমধ্যে অনেক মসজিদের গম্বুজকে বদলে চীনা স্টাইলে প্যাগোডার আকার দেয়া হয়েছে।

চীনে প্রায় ২ কোটি মুসলিম বসবাস করেন। দেশটি দাফতরিকভাবে ধর্মীয় স্বাধীনতার কথা বললেও উইঘুর মুসলিমদের ওপর নির্যাতনের জন্য বেশ সমালোচিত। ইতোমধ্যে উইঘুরদের রাজ্যে নামায-রোযা ছাড়াও দাড়ি রাখা হিযাব পরা এবং আরবি শিক্ষার ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। আর এটি বাস্তবায়নে দেশটির সরকার আইনও করেছে।

জাতিসংঘ জানিয়েছে, শি জিং পিংয়ের মতাদর্শে শাসিত চীনে ১০ লাখেরও বেশি উইঘুর মুসলিমকে আটক রেখে তাদের ধর্ম পালনে বাধা দেয়া হচ্ছে। বলপূর্বক তাদের কমিউনিস্ট পার্টির মতাদর্শে বিশ্বাস স্থাপন করানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

যদিও চীনের দাবি, ধর্মীয় উগ্রবাদ রুখতে তারা উইঘুরে ‘প্রশিক্ষণ শিবির’ স্থাপন করেছে।

আইএম

 

এশিয়া: আরও পড়ুন

আরও