‘বলবেন না আগে সতর্ক করিনি,’ যুক্তরাষ্ট্রকে চীনের হুঁশিয়ারি

ঢাকা, ১৬ জুন, ২০১৯ | 2 0 1

‘বলবেন না আগে সতর্ক করিনি,’ যুক্তরাষ্ট্রকে চীনের হুঁশিয়ারি

পরিবর্তন ডেস্ক ৪:৫৫ অপরাহ্ণ, মে ২৯, ২০১৯

‘বলবেন না আগে সতর্ক করিনি,’ যুক্তরাষ্ট্রকে চীনের হুঁশিয়ারি

চীনের কম্যুনিস্ট পার্টির সংবাদপত্র বুধবার যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করে দিয়ে জানিয়েছে, তারা বিরল খনিজ পদার্থ ব্যবহার করে চলমান তিক্ত বাণিজ্য যুদ্ধে পাল্টা আঘাত হানতে প্রস্তুত আছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, চীনের সংবাদ মাধ্যমে অত্যন্ত কঠোর ভাষায় লেখা এক বিশ্লেষণী প্রতিবেদনে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশ্যে বলা হয়েছে, ‘বলবেন না আগে সতর্ক করিনি।’

বিরল কিছু খনিজ পদার্থ সরবরাহের ক্ষেত্রে চীনের একচ্ছত্র আধিপত্য রয়েছে। গত সপ্তাহে প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং একটি বিরল খনিজ পদার্থের কারখানা সফরে যাওয়ায় ধারণা করা হচ্ছে, তারা এই শক্তিশালী অবস্থাকে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে বাণিজ্য যুদ্ধে কাজে লাগাবে।

‘রেয়ার আর্থ’ বা বিরল এই খনিজ পদার্থগুলো হচ্ছে ১৭টি রাসায়নিক উপাদানের একটি গ্রুপ। এগুলো অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ইলেকট্রনিক যন্ত্র থেকে শুরু করে সামরিক সরঞ্জামে ব্যবহার করা হয়।

চীন এখন পর্যন্ত খোলাখুলি ভাবে এই বিরল খনিজ পদার্থগুলো রপ্তানি বন্ধ করার বিষয়ে কিছু বলেনি, কিন্তু চীনের গণমাধ্যমের খবর থেকে এটা বেশ পরিষ্কার ভাবে বোঝা যাচ্ছে।

প্রভাবশালী পত্রিকা গ্লোবাল টাইমসের সম্পাদকও টুইটারে এ বিষয়ে মন্তব্য করেছেন।

কম্যুনিস্ট পার্টির পত্রিকা পিপলস ডেইলির একটি বিশ্লেষণী প্রতিবেদনের শিরোনাম হচ্ছে ‘যুক্তরাষ্ট্র, চীনের পাল্টা আঘাতের ক্ষমতাকে খাটো করে দেখ না।’ এতে বিরল খনিজ পদার্থের জন্য চীনের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের ‘অস্বস্তিকর’ নির্ভরতার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়।

‘একদম কোনও কারণ ছাড়াই যুক্তরাষ্ট্র যে চাপ দিচ্ছে তার জবাব দিতে কি চীন বিরল খনিজ পদার্থকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করবে? এর জবাব কোনও গুপ্ত রহস্য নয়,’ বলা হয় সম্পাদকীয়তে।

‘নিঃসন্দেহে যুক্তরাষ্ট্র চায় চীনের রপ্তানি করা বিরল খনিজগুলো দিয়ে তৈরি পণ্য ব্যবহার করে চীনের উন্নয়নকে দমিয়ে রাখতে। চীনের মানুষ এটা কখনো মেনে নিবে না!’ যোগ করা হয় এতে।

‘চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের শিল্পগুলোর মধ্যে অত্যন্ত ঘনিষ্ঠভাবে একে অপরের সঙ্গে জড়িত। এগুলো একেক অন্যের পরিপূরক এবং বাণিজ্য যুদ্ধে কোনও পক্ষ জয়ী হয় না,’ মন্তব্য করা হয় প্রতিবেদনে।

রয়টার্স জানায়, কেবল মাত্র গুরুত্বপূর্ণ কোনও ক্ষেত্রে বিরাট মতানৈক্য ঘটলেই চীনের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম বিরোধী পক্ষকে ‘বলবেন না আগে সতর্ক করিনি’ এই অভিব্যক্তিটা ব্যবহার করে সতর্ক করে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়, ২০১৭ সালে ভারতের সীমান্ত নিয়ে বিরোধের সময় এবং ১৯৭৮ সালে ভিয়েতনাম আক্রমণের আগে তার এই সতর্কবাণী ব্যবহার করেছিল।

এমআর/এএসটি

 

এশিয়া: আরও পড়ুন

আরও