রাখাইনে আরাকান আর্মির হামলায় ২০ বার্মিজ সেনা নিহত

ঢাকা, ১ আগস্ট, ২০১৯ | 2 0 1

রাখাইনে আরাকান আর্মির হামলায় ২০ বার্মিজ সেনা নিহত

পরিবর্তন ডেস্ক ১:৪৭ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১১, ২০১৯

রাখাইনে আরাকান আর্মির হামলায় ২০ বার্মিজ সেনা নিহত

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দুটি সেনাঘাঁটিতে আরাকান আর্মির (এএ) হামলায় দেশটির অন্তত ২০ সেনা সদস্য নিহত হয়েছে। উত্তর রাখাইন রাজ্যের ম্রাউক-ইউ শহরের অদূরে মঙ্গলবার রাতে ওই হামলা চালায় এএ যোদ্ধারা। আরাকান আর্মির উপপ্রধান এ দাবি করেছেন বলে খবর দিয়েছে বার্মিজ (মিয়ানমারের সাবেক নাম) গণমাধ্যম দ্য ইরাওয়াদ্দি।

খবরে বলা হয়েছে, আরাকান আর্মির হামলার পর মিয়ানমারের সেনাবাহিনী (তাতমাদো) এএ’র ঘাঁটি লক্ষ্য করে বিমান হামলা চালিয়েছে। এখনও উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ চলছে।

আরাকান আর্মির উপপ্রধান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নিয়ো তুন অং বলেছেন, এএ যোদ্ধারা ৩১ নম্বর পুলিশ রেজিমেন্ট এবং ম্রাউক-ইউ শহর থেকে ৮ কিলোমিটার দূরে লে হাইং তুয়াংয়ে আরেকটি সেনাঘাঁটিতে হামলা চালিয়েছে।

খবরে বলা হচ্ছে, অন্যান্য এলাকা থেকে সেনা সদস্যদের সরিয়ে উল্লিখিত দুটি এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে। তবে আরাকান আর্মির অতর্কিত হামলা অব্যাহত রয়েছে।

তুন অং বলছেন, মঙ্গলবার রাত ও বুধবার সকালে মিয়ানমার সেনাবাহিনী আরাকান আর্মির ওপর তিনটি যুদ্ধবিমান, দুটি বোমারু বিমান এবং হেলিকপ্টার ব্যবহার করেছে।

অন্যদিকে, আরাকান আর্মির মুখপাত্র ইউ খিন থুখা ইরাওয়াদ্দিকে বলেন, এএ উল্লিখিত দুটি ঘাঁটি থেকে বেশ কিছু যুদ্ধবন্দীকে উদ্ধার করেছে। তবে তিনি বিস্তারিত কিছু জানাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।

এদিকে, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জো মিন তুন পুলিশ রেজিমেন্ট ও অস্থায়ী সেনাঘাঁটিতে হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সেইসঙ্গে তাতমাদোর কিছু সদস্য নিহতের কথাও জানিয়েছেন তিনি। কিন্তু সুনির্দিষ্ট কোনো সংখ্যা জানাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন ওই মুখপাত্র।

ইরাওয়াদ্দি বলছে, মঙ্গলবারের হামলায় মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন হতেত থুরা সোয়ে রয়েছেন।

তার পরিবার ও সামরিকবাহিনীর কিছু সমর্থকের ফেসবুক পোস্ট থেকে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

অন্য ইউনিটের কিছু সেনা অফিসার সোয়েকে হিরো হিসেবে উল্লেখ করে তার প্রশংসা করেছেন।

এর আগে গত সপ্তাহে উত্তর রাখাইনের বুথিডংয়ে আরাকান আর্মির যোদ্ধাদের সঙ্গে সেনাবাহিনীর সংঘর্ষে একজন সামরিক ক্যাপ্টেন ও তার স্কোয়াড্রনের সব সদস্য নিহত হয়।

প্রসঙ্গত, উত্তর রাখাইনে স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে লড়াই করে আসছে আরাকান আর্মি। মাঝে তাদের আন্দোলন কিছুটা ঝিমিয়ে পড়লেও চলতি বছরের শুরুতে কয়েকটি পুলিশ পোস্টে হামলার মাধ্যমে নতুন করে নিজেদের ভয়ংকর রূপের জানান দেয় আরাকান আর্মি।

আরপি

 

এশিয়া: আরও পড়ুন

আরও