মিয়ানমারে চীনের বন্দর, উদ্বিগ্ন ভারত

ঢাকা, শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮ | ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

মিয়ানমারে চীনের বন্দর, উদ্বিগ্ন ভারত

পররিবর্তন ডেস্ক ৭:২২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৯, ২০১৮

মিয়ানমারে চীনের বন্দর, উদ্বিগ্ন ভারত

মিয়ানমারের কিয়কপিউ শহরে বঙ্গোপসাগরের ধারে একটি গভীর সমুদ্রবন্দর বানানোর ঘোষণা দিয়েছে চীন। দক্ষিণ এশিয়ায় এটি হবে চীনের তৈরি তৃতীয় সমুদ্রবন্দর।

ভারতের শরীর ঘেষা দেশগুলোতে চীনের এমন উদ্যোগ দেশটির উদ্বেগের কারণ হয়ে দেখা দিয়েছে বলে খবর দিয়েছে ইন্দো-এশিয়ান নিউজ সার্ভিস।

মিয়ানমারের চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড প্রজেক্টের আওতায় বেইজিং ও নেইপিদো বৃহস্পতিবার এই বন্দর স্থাপনের চুক্তি স্বাক্ষর করে।

বর্তমানে পাকিস্তানের গদরে একটি সমুদ্রবন্দর নির্মাণ করছে চীন। অন্যদিকে শ্রীলঙ্কার হাম্বানটোটার বন্দরটি ৯৯ বছরের জন্য চীনকে লিজ দেয়া রয়েছে। এগুলো ছাড়াও বাংলাদেশের চট্টগ্রামে একটি সমুদ্রবন্দরের অর্থায়ন করছে চীন।

চীন প্রতিবেশী দেশগুলোতে এসব বন্দর নির্মাণ করে ভারত মহাসাগরে দেশটিকে ঘিরে ফেলতে চাইছে বলে মনে করছে ভারত।

মিয়ানমার চীনের বিনিয়োগের বিষয়ে শঙ্কিত হয়ে তাদের কয়েকটি প্রকল্পের আকার সীমিত করে দিয়েছে। বৃহস্পতিবারের চুক্তি স্বাক্ষর করার আগে কয়েক বছর ধরে আলোচনা বন্ধ ছিল।

চীনের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম এই বন্দরকে বেল্ট অ্যান্ড রোড প্রকল্পের একটি উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ বলে অভিহিত করেছে।

গ্লোবাল টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, চীন বন্দরটির ৭০ শতাংশের অর্থায়ন করবে। বাকি ৩০ শতাংশ দেবে মিয়ানমার।

এমআর/আইএম