ইরান থেকে তেল কেনায় চীন-ভারতকে হুমকি

ঢাকা, শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮ | ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

ইরান থেকে তেল কেনায় চীন-ভারতকে হুমকি

পরিবর্তন ডেস্ক ৯:০৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৫, ২০১৮

ইরান থেকে তেল কেনায় চীন-ভারতকে হুমকি

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও জানিয়েছেন, ইরানের তেল রফতানি শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে তার দেশ বদ্ধ পরিকর।

তবে ইরানের অপরিশোধিত তেলের অন্যতম ক্রেতা ভারত ও চীনের বিষয়ে কী পদক্ষেপ নেয়া হবে, তা স্পষ্ট না করলেও হুমকির সুরে পম্পেও বলেছেন, ‘দেখ, আমরা কী করি?’

ইরানের অর্থনীতির মূল কেন্দ্রগুলোর ওপর নতুন করে অবরোধ আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। সোমবার এই নিষেধাজ্ঞার দ্বিতীয় ও শেষ ধাপ কার্যকর হয়েছে।

গত শুক্রবার পম্পেও জানান, ইরানের তেল আমদানিকারক আটটি দেশকে এই নিষেধাজ্ঞা থেকে আংশিক অব্যাহতি দেয়া হবে, যেন তারা ধিরে ধিরে ইরানের তেল কেনা কমিয়ে আনতে পারে। তবে দেশগুলোর নাম ঘোষণা করা হয়নি।

‘জুরিসডিকশনস’ নামে অভিহিত এই আটটি দেশের মধ্যে ভারত ও চীন রয়েছে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে তা এখনো নিশ্চিত করা হয়নি।

মার্কিন ফক্স নিউজে প্রচারিত এক সাক্ষাৎকারে পম্পেওকে জিজ্ঞেস করা হয়, চীন ও ভারত আগামী ছয় মাসের মধ্যে ইরানের তেল কেনা শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনবে এমন কোনো প্রতিশ্রুতি দিয়েছে কিনা? জবাবে পম্পেও বলেন, ‘দেখ, আমরা কী করি?’

‘লক্ষ্য করুন, আমরা ইতোমধ্যেই বাজার থেকে ইতিহাসের যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি পরিমাণে অপরিশোধিত তেল বাজার থেকে সরিয়ে দিয়েছি,’ ইরানের তেল রফতানি ১০ লাখ ব্যারেল কমে যাওয়ার প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন পম্পেও।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভারত ও চীন কখনোই ইরানের তেল কেনা বন্ধ করবে না, ফক্সের সাংবাদিক এই বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে পম্পে তা নাকচ করে দেন।

‘বহু বিশেষজ্ঞ আছেন... তারা বলেছিলেন ট্রাম্পের কৌশলের কোনো প্রভাব পড়বে না। কারণ, যুক্তরাষ্ট্র অন্যান্য দেশ এতে অংশ নেবে না’, বলেন পম্পেও।

তিনি আরও বলেন, ‘আমি অত্যন্ত আত্মবিশ্বাসী যে, সোমবার থেকে কার্যকর নিষেধাজ্ঞায় ইরানের আচরণের পরিবর্তন ঘটবে।’

রোববারই সিবিএস নিউজে প্রচারিত আরেকটি সাক্ষাৎকারে পম্পেও বলেন, ইরানের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করলে দ্বিতীয় নিষেধাজ্ঞা শুধু বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ওপর আরোপ করা হবে, পুরো দেশের ওপর নয়।

এমআর/আইএম