পাক-ভারত ম্যাচে দাউদ ইব্রাহিম চমক!

ঢাকা, বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ | ৫ পৌষ ১৪২৫

পাক-ভারত ম্যাচে দাউদ ইব্রাহিম চমক!

পরিবর্তন ডেস্ক ৫:৩২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮

পাক-ভারত ম্যাচে দাউদ ইব্রাহিম চমক!

আর কিছুক্ষণের মধ্যেই শুরু হতে যাচ্ছে এশিয়া কাপের সবচেয়ে আগুন-তপ্ত ম্যাচটি। দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে দুই বৈরী প্রতিবেশী ভারত-পাকিস্তান। ম্যাচটি নিয়ে এমনিতেই ক্রিকেটপ্রেমীদের উত্তেজনা তুঙ্গে। ম্যাচ শুরুর আগে আগে সেই উত্তেজনা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে অন্য একটি খবর। ভারত-পাকিস্তানের আগুন-তপ্ত ম্যাচটি নাকি সরাসরি গ্যালারিতে বসে উপভোগ করতে যাচ্ছেন কুখ্যাত মাফিয়া ডন দাউদ ইব্রাহিম! ভারতীয় গণমাধ্যমগুলোই দিয়েছে এই খবর।

পাক-ভারতের এই ক্রিকেট যুদ্ধ সরাসরি মাঠে বসেই নাকি দেখবেন পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সত্যিই যদি ইমরান খান ম্যাচটি দেখার জন্য স্টেডিয়ামে চলে যান, নিশ্চিতভাবেই সেটা হবে বড় এক চমক। তবে তার চেয়েও বড় চমক হবে ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী চক্রের হোতা কুখ্যাত মাফিয়া ডন দাউদ ইব্রাহিমের গ্যালারিতে উপস্থিতি!

নব্বইয়ের দশকের শুরুর দিকে শারজায় অনুষ্ঠিত প্রতিটা ভারত-পাকিস্তান ম্যাচেই গ্যালারিতে উপস্থিত হতেন দাউদ ইব্রাহিম। সশরীরে গ্যালারিতে হাজির থেকেই নাকি তিনি ক্রিকেট ম্যাচ পাতানোর জঘণ্য কাজটি করতেন। অনেকেরই মতে, ক্রিকেটে ম্যাচ পাতানো কেলেঙ্কারির প্রধান হোতা এই দাউদ ইব্রাহিম। অন্তরালে বসে তিনিই ক্রিকেটারদের লোভে ফেলে ম্যাচ পাতানো বা ফিক্সিং পাপে জড়াতে বাধ্য করতেন। আর এই কাজ করে তিনি গড়েছেন টাকার পাহাড়।

অন্তরালে বসে দাউদ ইব্রাহিমই যে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের বিষ ক্রিকেটে ছড়িয়ে দিচ্ছেন, এটা বিভিন্ন দেশের গোয়েন্দাসংস্থাগুলোই জানত। কিন্তু গোয়েন্দাসংস্থাগুলো কখনোই মাফিয়া ডন দাউদ ইব্রাহিমের টিকিটিও খুঁজে পায়নি। পরবর্তীতে নজরদারি জোরদার করার পর আরও পাকাপাকিভাবে অন্তরাল হয়ে পড়েন দাউদ ইব্রাহিম। এখনো অন্তরালে বসেই নিজের কাজটি চালিয়ে যাচ্ছেন।

গোয়েন্দাসংস্থাগুলোর খবর মতে, সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকেই নিজের গড়া সন্ত্রাসী সংগঠন ‘ডি কোম্পানি’র মাধ্যমে ম্যাচ পাতানো কলঙ্কিত কাজটা করে থাকেন তিনি। কিন্তু কখন কোথায় থাকেন, কোথায় যান, শগ চেষ্টা করেও গোয়েন্দাসংস্থাগুলো আজও তা জানতে পারেনি।

তবে আজকের পাক-ভারত ম্যাচটি তিনি সরাসরি গ্যালারিতে বসেই দেখতে যাচ্ছেন বলে জানতে পেরেছে বিভিন্ন দেশের গোয়েন্দাসংস্থাগুলো। পাক-ভারত ম্যাচকে সামনে রেখে অন্তত ৬টি দেশের গোয়েন্দাসংস্থা দাউদ ইব্রাহিম ও তার সংগঠন ‘ডি কোম্পানি’র উপর বিশেষ নজরদারি রাখে। বাড়তি এই নজরদারির ভিত্তিতেই জানতে পেরেছে দাউদ ইব্রাহিমের সশরীরে গ্যালারিতে উপস্থিত হওয়ার কথা।

গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এটাও জানিয়েছে, এরই মধ্যে মুম্বাই ও করাচি থেকে ‘ডি কোম্পানি’র উচ্চ পর্যায়ের সদস্যরা, মানে দাউদ ইব্রাহিমের অত্যন্ত ঘনিষ্টজনরা দুবাইয়ে গিয়ে পৌঁছেছে। এমনকি দাউদ ইব্রাহিমের ভয়ঙ্কর দুই সন্ত্রাসীও নাকি এখন দুবাইয়ে অবস্থান করছেন।

এই আশঙ্কা থেকেই ওই গোয়েন্দা সংস্থাগুলো বিশেষজ্ঞ দলকে নিয়োজিত করেছে ম্যাচের প্রতি বিশেষ নজর রাখতে। তারপরও প্রশ্নটা উঠছেই, সত্যিই যদি দাউদ ইব্রাহিম গ্যালারিতে উপস্থিত হন, গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর বিশেষজ্ঞ দলকে পারবে তাকে পাকড়াও করতে?

প্রশ্নটা উঠার কারণ, গোয়েন্দা সংস্থাগুলো যদি হাঁটে ডালে ডালে, দাউদ ইব্রাহিম হাঁটেন পাতায় পাতায়। আর এভাবেই তিনি গত তিন-চার দশক ধরে দিব্যি বিভিন্ন দেশের গোয়েন্দা সংস্থাসহ অন্যান্য নিরাপত্তা বাহিনীরি চোখে ধুলো দিয়ে যাচ্ছেন। উপস্থিতি টের পেয়েও ছদ্মবেশী দাউদ ইব্রাহিমকে কখনোই পাকড়াও করতে পারেনি।

কেআর