শাওয়াল মাসের দুই আমল

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

শাওয়াল মাসের দুই আমল

পরিবর্তন ডেস্ক ৫:০৮ অপরাহ্ণ, জুন ১৫, ২০১৯

শাওয়াল মাসের দুই আমল

আরবি চান্দ্রবৎসরের দশম মাস হলো শাওয়াল। এটি হজের তিন মাস তথা শাওয়াল, জিলকদ, জিলহজ-এর প্রথম মাস; এবং হারাম বা সম্মানিত চার মাসের একটি হলো শাওয়াল। হাদীস শরীফে শাওয়াল মাসের দুটি আমলের বর্ণনা পাওয়া যায়–

১ম আমল : শাওয়ালের ৬ রোযা
আবু আইয়ুব আল আনসারী (রা.) হতে বর্ণিত হাদীসে এসেছে, রাসূল (সা.) বলেছেন—

من صام رمضان، ثم أتبعه ستا من شوال كان كصيام الدهر. رواه مسلم.

“যে ব্যক্তি রমযানের রোযা রাখল, অতঃপর শাওয়ালে ছয়টি রোযা রাখল, সে যেন (পূর্ণ) এক বছর রোযা রাখল।”–সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৮১৫

এ রোযা ঈদুল ফিতর এর দিন ছাড়া পূর্ণ শাওয়াল মাসের অন্য যে কোন দিন একত্রে বা ভেঙ্গে ভেঙ্গে রাখা যায়।

২য় আমল : বিবাহ করা
শাওয়াল মাসে বিবাহ করা মুস্তাহাব। সহীহ মুসলিমের “শাওয়াল মাসে বিবাহ করা এবং বিবাহ করানো এবং বাসর করা মুস্তাহাব” অধ্যায়ে বর্ণিত হাদীসে এসেছে, আয়েশা (রা.) বলেন—

تزوجني رسول الله صلى الله عليه وسلم في شوال وبنى بي في شوال فأي نساء رسول الله صلى الله عليه وسلم كان أحظى عنده مني قال وكانت عائشة تستحب أن تدخل نساءها في شوال

“রাসূলুল্লাহ (সা.) আমাকে বিবাহ করেন শাওয়াল মাসে এবং শাওয়াল মাসেই আমাদের বাসর হয়। রাসুলুল্লাহ (সা.) এর কোন স্ত্রী আমার চেয়ে অধিক সৌভাগ্যবতী ছিল? বর্ণনাকারী বলেন, আয়েশা (রা.) শাওয়ালেই তাঁর (সম্পর্কীয়) মেয়েদের বাসর হওয়া পছন্দ করতেন। –সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৪২৩; সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং ১৯০৩

এমএফ/

আরও পড়ুন...
তাহাজ্জুদের দু’আ!
তাহাজ্জুদের নিয়তে ঘুমালেও সদকা!
দুআ কবুলের প্রতিশ্রুতি যে নামাযে
কেন নামায পড়া আমাদের একান্ত প্রয়োজন?
প্রথম কাতারে নামায : আল্লাহকে ভালবাসার উত্তম প্রতিযোগিতা
নামাযে বিভিন্ন কথা মনে হয়? আপনার জন্য চার পরামর্শ
নামাযে রাকাত নিয়ে সংশয়ে পড়লে যা করবেন
নামাযে অজু নিয়ে সন্দেহ হলে কি করবেন?
প্রস্রাবের পর পোশাকের পবিত্রতা নিয়ে সন্দেহ হলে যা করবেন 

সিজদা কেন এত গুরুত্বপূর্ণ?
এই উত্তম সময়টিতে আল্লাহর সঙ্গে কথা বলুন
চাশতের নামাযের ফযিলত ও আদায়ের নিয়ম
শাওয়াল মাসের ৬ রোযায় যে মহা প্রতিদান
রমযানের পর করণীয় আমলগুলো জেনে নিন

 

আমল / জীবন পাথেয়: আরও পড়ুন

আরও