ইতিকাফের তাৎপর্য ও জরুরী মাসায়েল

ঢাকা, ২৪ আগস্ট, ২০১৯ | 2 0 1

ইতিকাফের তাৎপর্য ও জরুরী মাসায়েল

মুহাম্মাদ ফয়জুল্লাহ ৫:১৮ অপরাহ্ণ, মে ২৪, ২০১৯

ইতিকাফের তাৎপর্য ও জরুরী মাসায়েল

‘ইতিকাফ’ আরবি শব্দ। যার অর্থ হলো অবস্থান করা, আবদ্ধ করা বা আবদ্ধ রাখা। পরিভাষায় ইতিকাফ হলো ইবাদতের উদ্দেশ্যে ইতিকাফের নিয়তে নিজেকে নির্দিষ্ট জায়গায় নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত আবদ্ধ রাখা। রমযানের শেষ দশক তথা ২০ রমযানের দিন সূর্যাস্তের আগে থেকে ঈদের চাঁদ তথা শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা যাওয়া বা ৩০ রমযান পূর্ণ হয়ে ওই দিন সূর্যাস্ত পর্যন্ত (৯ দিন বা ১০ দিন) ইতিকাফ করা সুন্নাতে মুআক্কাদাহ।

ইতিকাফ পবিত্র রমযান মাসের শেষ দশকে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ও তাৎপর্যবহ আমল। এটি রমযান মাসের সামগ্রিক কল্যাণ ও বরকত লাভের জন্য অপূর্ব বলিষ্ঠ সহায়ক শক্তি। রহমত ও মাগফিরাতের দিনগুলোতে কোনো কারণে যদি ইবাদতে মত্ত হওয়ার, চিত্ত-মানস বিশুদ্ধ করার, হৃদয়ে একাগ্রতা জাগরুক করার এবং আল্লাহর দিকে প্রত্যাবর্তন করার ও তাঁর অনুকম্পায় সিক্ত হওয়ার সৌভাগ্য অর্জিত নাও হয়ে থাকে, সে অপূরণীয় ক্ষতি পুষিয়ে দেয়ার জন্য পরম করুণাময়ের পক্ষ থেকে উত্তম উপহার হলো ইতিকাফ।

বান্দা রমযানের শুরু থেকে রোযা পালন, কোরআন তেলাওয়াত, তারাবীহ আদায়, দান-সদকা ইত্যাদি বিভিন্ন পুণ্যময় কাজে নিমগ্ন থাকার পর আল্লাহ তাআলার আরও অনুগ্রহ-অনুকম্পা, ক্ষমা ও করুণার এবং বিশেষ নৈকট্য ও সান্নিধ্য প্রাপ্তির লক্ষ্যে রমযানের শেষ ১০ দিন মনিবের দরবারে ধরনা দেয়। তাকওয়ার চূড়ান্ত মাত্রা অর্জনের মানসে বান্দা জাগতিক সবকিছু ত্যাগ করে আল্লাহর ঘরের অতিথি হয়।

আল্লামা ইবনু কায়্যিম জাওযি রহ. তাঁর প্রশিদ্ধ গ্রন্থ ‘জাদুল মাআদ’-এ লিখেছেন, ‘ইতিকাফের একমাত্র উদ্দেশ্য হচ্ছে- পার্থিব মোহের সমস্ত জাল ছিন্ন করে আল্লাহর সঙ্গে পরিপূর্ণ ও গভীর প্রেমময় সম্পর্ক স্থাপন করা। রমযানের পবিত্র মাসে আল্লাহর ঘরে নির্জনবাস ও ইতিকাফের মাধ্যমে হৃদয় এবং আত্মার এমন অভাবনীয় উৎকর্ষ সাধিত হয় যে, মানুষের হৃদয়ে তখন আল্লাহর স্মরণ ও তাঁর প্রতি গভীর প্রেম-ভালোবাসা ছাড়া দ্বিতীয় অন্যটি আর স্থান পায় না। মহান প্রতিপালকের ধ্যান-চিন্তা ছাড়া অন্য কোনো চিন্তাভাবনায় সে উৎসাহবোধ করে না। তার হৃদয়ের সব অনুভূতি তখন আল্লাহর নৈকট্য ও সান্নিধ্য লাভের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ এবং সহায়ক হয়ে থাকে। মাখলুকের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা ও আন্তরিকতার পরিবর্তে আল্লাহর সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা এবং ঐকান্তিকতা সৃষ্টি হয়। কবরের নিঃসঙ্গ অন্ধকারে যেখানে কোনো বন্ধু ও সাহায্যকারী থাকবে না, সেখানে এ সম্পর্কটি এক মহামূল্যবান পাথেয় রূপে কাজে আসবে। এ হলো ইতিকাফের উদ্দেশ্য এবং রমযানুল মুবারকের শেষ ১০ দিনের সঙ্গে একে সম্পৃক্ত করার গভীর তাৎপর্য ও রহস্য।’ (জাদুল মা’আদ, পৃষ্ঠা : ১৮৭)

ইতিকাফের তাৎপর্য ব্যাখ্যা করতে গিয়ে উপমহাদেশের প্রখ্যাত বুযূর্গ আলেমেদ্বীন ও মহান পূর্বসূরি শাহ্ ওয়ালী উল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভী রহ. লিখেন, ‘মসজিদের ইতিকাফ হচ্ছে আত্মার প্রশান্তি, হৃদয়ের পবিত্রতা-নিষ্কলুষতা। চিন্তার পরিচ্ছন্নতা ও বিশুদ্ধতা, ফেরেশতাদের গুণাবলি অর্জন এবং লাইলাতুল কদরের সৌভাগ্য ও কল্যাণ লাভসহ সব ধরনের ইবাদতের সুযোগ লাভের এক সর্বোত্তম উপায়। এজন্য রাসুল সা. মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ইতিকাফ পালন করেছেন এবং তাঁর পুণ্যবতী স্ত্রীগণসহ সাহাবায়ে কেরামের অনেকেই এ সুন্নতের ওপর মৃত্যু পর্যন্ত আমল করেছেন।’ (হুজ্জাতুল্লাহিল বালিগা : ২/৪২)

ইতিকাফ একটি শরঈ আমল হওয়ার ব্যাপারে পবিত্র কুরআনের ইরশাদ রয়েছে- وَأَنْتُمْ عَاكِفُونَ فِي الْمَسَاجِدِ ‘এ অবস্থায় যে তোমরা মসজিদে ইতিকাফরত’। (সূরা আল বাকারা:১৮৭)

ইতিকাফ সম্পর্কে সহীহ বুখারীতে বর্ণিত এক দীর্ঘ হাদীসের শেষাংশে রয়েছে-

مَنْ كَانَ اعْتَكَفَ مَعِي فَلْيَعْتَكِفْ الْعَشْرَ الْأَوَاخِرَ فَقَدْ أُرِيْتُ هَذِهِ اللَّيْلَةَ ثُمَّ أُنْسِيْتُهَا

‘যে আমার সাথে ইতিকাফ করতে চায় সে যেন শেষ দশকে ইতিকাফ করে, কেননা এই রাত (লাইলাতুল কদর) আমাকে দেখানো হয়েছিল, পরে আমাকে তা ভুলিয়ে দেয়া হয়েছে। (বুখারী)

তাই যার শক্তি সামর্থ্য আছে তার উচিত হবে ইতিকাফে বসে শেষ দশকের রাতগুলো যাপন করা। ইতিকাফকারী নিজকে দুনিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে একনিষ্ঠভাবে আল্লাহর আনুগত্য, দুআ-মুনাজাত, যিকর ইত্যাদির জন্য সে নিজকে মসজিদে আঁটকে ফেলে। দুনিয়াবী সকল দৌড়ঝাঁপ থেকে মুক্ত হয়ে সে মসজিদের পবিত্র আবহে নিজেকে আবদ্ধ করে ফেলে। মন ও শরীর উভয়টাকেই সে নিরঙ্কুশভাবে রাব্বুল আলামীনের দরবারে সঁপে দেয়। যা কিছু আল্লাহকে সন্তষ্ট করে শুধু তাতেই নিজকে সংশ্লিষ্ট করে নেয়। আর এভাবে সে শুধুই আল্লাহর জন্য হয়ে যায়। যা করলে আল্লাহ রাযি হন শুধু তাতেই নিজকে নিয়োজিত করে।

ইতিকাফের তাৎপর্য হলো, সৃষ্টজীব থেকে সম্পর্ক ছিন্ন করে আল্লাহর সাথে সম্পর্ক স্থাপনের জন্য সুনির্দিষ্ট বলয়ের মধ্যে নিজকে আবদ্ধ করে নেয়া। আর আল্লাহ সম্পর্কে বান্দার জ্ঞান যত বাড়বে, আল্লাহর মহব্বত হৃদয়ে যত পোক্ত হবে, আল্লাহর ডাকে সাড়া দিতে যতটুকু অগ্রসর হবে, দুনিয়ার প্রতি প্রেম ভালোবাসা ততই অর্ন্তহিত হবে।

ইতিকাফের ফযীলত
রমযানের শেষ দশকের রাতগুলোর যেকোনো একটিতে শবে কদর রয়েছে। আর শবে কদরের ইবাদত তিরাশি বছর চার মাস ইবাদত করার চেয়েও উত্তম। রাসূলুল্লাহ (সা.) শবে কদর প্রাপ্তির আশা নিয়েই ইতিকাফ করতেন। তিনি প্রথম দশকেও ইতিকাফ করেছেন, মধ্য দশকেও করেছেন, এরপর শেষ দশকে। এ ব্যাপারে তিনি বলেন: ‘আমি প্রথম দশকে ইতিকাফ করেছি, এরপর মধ্য দশকে, এরপর আমাকে দেয়া হয়েছে এবং বলা হয়েছে যে, তা শেষ দশকে। অতএব তোমাদের মধ্যে যার ইতিকাফ করা পছন্দ হয় সে যেন ইতিকাফ করে (মুসলিম)।

রাসূলুল্লাল্লাহ (সা.) ইতিকাফ করা কখনো বাদ দেননি। তিনি প্রতি বছর দশ দিন ইতিকাফ করতেন। আর যে বছর রাসূলুল্লাহ (সা.) ওয়াফাত ফরমান, সে বছর তিনি বিশ দিন ইতিকাফ করেন। উপরন্তু যখন তাঁর স্ত্রীগণ ইতিকাফ করতে প্রতিযোগিতা শুরু করলেন, তিনি ইতিকাফ করা ছেড়ে দিলেন এবং তা শাওয়ালের প্রথম দশকে কাযা করে নিলেন (বুখারী)।

ইতিকাফ অবস্থায় রাসূলুল্লাহ (সা.) এমন বিষয় থেকে নিজকে দূরে রেখেছেন, যা তার জন্য বৈধ ছিল। যেমন স্ত্রীসঙ্গ ও নিদ্রাগমন। রমযানের শেষ দশকে কঠোর মেহনতি হওয়া এবং লুঙ্গি বেঁধে নেয়ার ব্যাপারে আয়েশা রাযি. থেকে যে বর্ণনা পাওয়া যায়, তার অর্থ এটাই।

রাসূলুল্লাহ (সা.) এর সাথে তাঁর পবিত্র স্ত্রীগণও ইতিকাফ করতেন। এমনকি রাসূলুল্লাহ (সা.) এর ওয়াফাতের পরও তাঁরা ইতিকাফ করেছেন। এমনকি আয়েশা রাযি. থেকে এক বর্ণনায় এসেছে যে, জনৈকা ইস্তেহাযাগ্রস্তা স্ত্রী একবার রাসূলুল্লাহ (সা.) এর সাথে এ অবস্থায় ইতিকাফ করলেন যে, তিনি রক্তিম ও হরিদ্রা বর্ণের রক্ত দেখতে পাচ্ছিলেন। তিনি যখন নামায পড়তেন আমরা তখন হয়তো তাঁর নিচে প্লেট রেখে দিতাম।

ইতিকাফের কিছু আহকাম ও জরুরী মাসায়েল
১. রাসূল্ল্লুাহ (সা.) এর আদর্শের অনুসরণ করে ইতিকাফের উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের জন্য চেষ্টা করা।

২. নিয়ত করে ইতিকাফ শুরু করে দেয়ার পর ইতিকাফ পূর্ণ করা জরুরী নয়।

৩. কমপে কত দিন ইতিকাফ করলে ইতিকাফ হিসেবে ধরা হবে, বিষয়টি অনির্দিষ্ট। তবে ইতিকাফকারী যেদিন থেকে ইতিকাফ শুরু করতে ইচ্ছুক, সেদিন সূর্যাস্তের পূর্বেই তাকে নিজ ইতিকাফের জায়গায় পৌঁছে যেতে হবে।

৪. নিজের জন্য একটা জায়গা বেছে নেয়া জরুরী, যেখানে নীরবে আল্লাহর যিকর-আযকার করতে পারবে। প্রয়োজনের সময় আরাম করতে পরবে। কাপড় পরিবর্তন করতে পারবে। পরিবারের কেউ এলে তার সাথে সাক্ষৎ করতে পারবে।

৫. ইতিকাফকারী মসজিদের বিভিন্ন প্রান্তে নফল নামায আদায় করতে পারবে। তবে ইতিকাফকারীর জন্য উত্তম হলো অধিক নড়াচড়া ও নফল নামায না পড়া। এর প্রথম কারণ, রাসূলুল্লাহ (সা.), নিজকে লুকিয়ে রাখা যায়, মসজিদের অভ্যন্তরে এমন একটি জায়গা তৈরি করে নিতেন। আর দ্বিতীয় কারণ যখন কেউ নামায পড়ার জায়গায় বসে থাকে তখন ফেরেশতারা তার প্রতি রহমত বর্ষণের দু‘আ করতে থাকে (বুখারী)।

৬. ইতিকাফ অবস্থায় স্বামী-স্ত্রী মিলিত হওয়া, চুম্বন,স্পর্শ নিষেধ। যেমন আল্লাহ রাব্বুল আলামীন বলেন : وَلَا تُبَاشِرُوهُنَّ وَأَنْتُمْ عَاكِفُونَ فِي الْمَسَاجِد ‘তোমরা মসজিদে ইতিকাফরত অবস্থায় স্ত্রীদের সাথে মিলিত হবে না’ (সূরা আল-বাকারা : ১৮৭)।

ইতিকাফ অবস্থায় মসজিদ থেকে বের হওয়া না হওয়ার ক্ষেত্রে নিম্নবর্ণিত বিষয়গুলোর প্রতি নজর দিতে হবে।

এক. মানবীয় প্রয়োজনে বের হওয়ার অনুমতি আছে। যেমন পায়খানা, প্রস্রাব, পানাহার – যদি তা মসজিদে পৌঁছে দেওয়ার মত কেউ না থাকে। অনুরূপভাবে যে মসজিদে ইতিকাফ করা হচ্ছে তাতে যদি জুমার নামায না হয়, তাহলে জুমা আদায়ের জন্য অন্য মসজিদে যাওয়ার অনুমতি আছে।

দুই. এমন সব নেক-আমল বা ইবাদত-বন্দেগীর জন্য বের হওয়া যাবে না, যা ইতিকাফকারীর জন্য অপরিহার্য নয়। যেমন রোগীর সেবা করা, জানযায় অংশ নেয়া ইত্যাদি। তবে যদি ইতকিাফের শুরুতে এ জাতীয় কোনো শর্ত করে নেয়া হলে ভিন্ন কথা। তবে এ ক্ষেত্রে সুন্নত ইতিকাফ আদায় হবে না।

তিন. এমন সকল কাজের জন্য মসজিদ থেকে বের হওয়া যাবে না যা ইতিকাফ বিরোধী। যেমন ক্রয়-বিক্রয়, চাষাবাদ ইত্যাদি। ইতিকাফ অবস্থায় এ সকল কাজের জন্য মসজিদ থেকে বের হলে ইতিকাফ বাতিল হয়ে যাবে।

মহান রাব্বুল আলামিন আমাদেরকে মাহে রমযানের এই শেষ দশকে শবে কদর লাভে ধন্য করুন এবং তাঁর ইবাদতে পূর্ণ নিমগ্ন হয়ে সৌভাগ্যবানদের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এমএফ/

আরও পড়ুন...
রমযানের শেষ দশক এবং হাজার মাসেরও শ্রেষ্ঠ একটি রাত
রমযানের গুরুত্বপূর্ণ চার শিক্ষা
অনন্য ফযীলতের রমাদান মাস
রমযান যাদের আল্লাহর সাথে মিলিয়ে দেয়
রোযা ও রমযান : ফাযায়েল ও জরুরি মাসায়েল
হাদিস থেকে রমযানুল মোবারকের বিশটি স্পেশাল আমল
ইতিকাফ সৌভাগ্যের সোপান
রমযানের রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের হাদিসটি শুদ্ধ নয়

 

আমল / জীবন পাথেয়: আরও পড়ুন

আরও