ফলন ভালো, দামেও খুশি সিরাজগঞ্জের চাষিরা (ভিডিও)

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই ২০১৮ | ২ শ্রাবণ ১৪২৫

ফলন ভালো, দামেও খুশি সিরাজগঞ্জের চাষিরা (ভিডিও)

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি ৭:৫৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ০৪, ২০১৮

print

শীত মৌসুমে সিরাজগঞ্জের কৃষকরা সবজি চাষে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন। ভাল ফলন ও বেশী দাম পাওয়ায় সবজি চাষ করে লাভবান হচ্ছেন কৃষকরা। এসব সবজি স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলায়। শস্য ভাণ্ডার হিসেবে খ্যাত চলনবিল অধ্যুষিত সিরাজগঞ্জ। বাজারে সবজির দাম ভাল থাকায় কৃষকেরা সবজি চাষের দিকে ঝুঁকে পড়ছে। এ কারণে জেলার শতশত বিঘা জমিতে শোভা পাচ্ছে শীতকালীন সবজি যেমন ফুলকপি, বাঁধাকপি, টমেটো, মুলা, গাজর, পালন শাক, সিম ও বেগুন। আর কৃষক সবজি পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ছোনগাছা, পাচঠাকুরী, বহুলী, চকচন্ডী, উপল্লাপাড়া, শাহজাদপুর, কাজীপুর, চৌহালীসহ বিভিন্ন জায়গার উৎপাদিত সবজি কৃষক নিজেও বাজারে বিক্রি করছে আবার দুর-দূরান্তের পাইকাররাও ক্ষেত থেকে সরাসরি কিনে নিয়ে যাচ্ছে। দাম ভাল থাকায় সবজি বিক্রি করে লাভবান হচ্ছে কৃষকেরা। অনুকূল আবহাওয়া আর সার বীজ সহজলভ্য হওয়ার কারণে জেলায় এ বছর সবজির বাম্পার ফলন হয়েছে। ইতোমধ্যেই জেলার বিভিন্ন এলাকায় আগাম সবজি উৎপাদন হয়েছে এবং বাজারে ভালো দামে বিক্রি হচ্ছে। সবজি চাষের ফলে একদিকে যেমন কৃষক পরিবারগুলোতে এসেছে সচ্ছলতা অপরদিকে গ্রামীণ অর্থনীতি হচ্ছে মজবুত। কৃষি বিভাগ সহযোগিতা করলে আরো বেশি লাভবান হবে মনে করছেন কৃষকরা।

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বহুলি গ্রামের কৃষক আব্দুল কালাম জানান, সবজি চাষ তার ভাগ্য খুলে দিয়েছে। আগে যখন ধান-পাটের চাষ করতাম তখন ঋণ পরিশোধ হতো না। আর এখন সবজি চাষ শুরু করায় সংসারে বাড়তি আয় হচ্ছে। সারা বছরের খরচ বাদেও কিছু টাকা বাড়তি থাকে।

খোকশাবাড়ি গ্রামের কৃষক সাইফুল ইসলাম জানান, এ বছর তিনি এক বিঘা জমিতে আগাম জাতের ফুলকপি ও বাঁধাকপি চাষ করে প্রায় এক লাখ টাকা বিক্রি করেছেন। আর এতে তার খরচ হয়েছে ৩৫ হাজার টাকার মত।

কথা হয় চকচন্ডী গ্রামের সবজি চাষী ইয়াছিনের সাথে। তিনি বলেন, এবার আমি প্রায় ২০ ডিসিমাল জায়গাতে সবজি চাষ করেছি। গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার ফলনও বেশ ভাল হয়েছে। বাজার দামও ভাল। আগামীতে সবজির চাষ আরো বেশী করে করবো। ধানের চাষের চেয়ে সবজি চাষে লাভ বেশী।

আমাদের এলাকায় এখন সবাই সবজি চাষে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা এমটাই জানালেন কৃষক ইয়াছিন।

শিয়ালকোল ইউনিয়নের কৃষক কোরবান আলী জানান, এক সময় আমি মানুষের বাড়ি দিন মজুরীর কাজ করতাম। সেখান থেকে এসে এক বিঘা জমি লিজ নিয়ে সবজি চাষ করে বেশ লাভবান হই। পরবর্তীতে আরও জমি লিজ নিয়ে চাষ করে লাভবান হয়ে বর্তমানে নিজেই দুই বিঘা জমি কিনে চাষ শুরু করেছি।

সিরাজগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আরশেদ আলী বলেন, বৃষ্টির কারণে জেলায় সবজি চাষ ভাল হওয়ার পাশাপাশি কৃষকেরা দাম ভাল পাওয়ায় আগ্রহ বাড়ছে। কিছুকিছু ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ঘটলেও কৃষকদের সবজি চাষে পরামর্শসহ সবধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে।

এ বছর জেলায় সাড়ে ৮ হাজার হেক্টর জমিতে শীতকালীন সবজি চাষ হয়েছে, যা গত বছরের তুলনায় বেশী বলেও জানান তিনি।

একে/এসএফ

 
.



আলোচিত সংবাদ