নোয়াখালীতে আমন ধানে পোকার আক্রমণে দিশেহারা কৃষক

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

নোয়াখালীতে আমন ধানে পোকার আক্রমণে দিশেহারা কৃষক

ইকবাল হোসেন সুমন, নোয়াখালী ১১:২১ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ০৭, ২০১৯

নোয়াখালীতে আমন ধানে পোকার আক্রমণে দিশেহারা কৃষক

নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলায় রোপা আমন ক্ষেতে প্রথম বারের মত দেখা দিয়েছে বিপিএইচ বা ব্রাউন প্লেন্ট হোপার পোকার আক্রমণ। এক সপ্তাহের মধ্যে মহামারী আকার ধারণ করেছে এ পোকার আক্রমণ। কৃষকদের সচেতন করতে করা হচ্ছে মাইকিং।

কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শ মত ওষুধ ব্যবহার করেও কোন ফল পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ কৃষকদের।

এদিকে, ইতোমধ্যে ছুটি বাতিল করা হয়েছে উপজেলার সব কৃষি কর্মকর্তা কর্মচারীদের।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এবছর সুবর্ণচর উপজেলায় ৩৮ হাজার হেক্টর জমিতে চাষাবাদ হয়েছে রোপা আমন। উপজেলায় রোপা আমন ক্ষেতে হঠাৎ করে দেখা দিয়েছে বিপিএইচ বা ব্রাউন প্লেন্ট হোপার পোকার আক্রমণ। এই পোকার আক্রমণে নষ্ট হয়েছে শতাধিক হেক্টর জমির ধান। এই পোকা আক্রমণ শুরু করার ১২ থেকে ১৮ ঘণ্টার মধ্যে নষ্ট হয়ে যায় ধান, আর মরে যায় ধান গাছ।

বেশি আক্রমণ দেখা দিয়েছে উপজেলার চর জুবলী ও চর জব্বর ইউনিয়নে। স্থানীয় কৃষক কামাল মাঝি ও খলিল বলেন, আমাদের চরাঞ্চলের কৃষকরা বিভিন্ন এনজিও ও ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে আমন চাষ করে। আমন ধান পাকার পথে। মাস খানেকের মধ্যে ধান কাটত কৃষকরা। এর মধ্যে পোকার আক্রমণে দিশেহারা পড়েছে কৃষকরা।

কৃষকদের দাবি, সময়মত পরামর্শ না দেয়ার ফলে এই পোকার আক্রমণ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে।

নোয়াখালী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আবুল হোসেন জানান, গত কয়েক দিনের মেঘলা আবহাওয়া, স্যাঁতস্যাঁতে পরিস্থিতি এবং রাতে অধিক তাপমাত্রার জন্য এ পোকার আক্রমণ দেখা দেয়। তবে লাইট ট্র্যাপ পদ্ধতিতে ভালোভাবে দেখা হয়নি বলে পূর্ব থেকে কৃষকদের সতর্ক করা যায়নি।

সুবর্ণচর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম বলেন, পোকা দমন না হওয়া পর্যন্ত সকল কৃষি কর্মকর্তারা মাঠে থাকবে। আশা করছি এই পোকার আক্রমণ শিগগিরই বন্ধ হয়ে যাবে।

এসবি

 

কৃষি ও খাদ্য: আরও পড়ুন

আরও