মুলায় খুশি গোমতী চরের কৃষক(ভিডিও)

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারি ২০১৯ | ৪ মাঘ ১৪২৫

মুলায় খুশি গোমতী চরের কৃষক(ভিডিও)

জহির শান্ত, কুমিল্লা ১১:৪৯ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১২, ২০১৯

মুলায় খুশি এবার গোমতী চরের কৃষক। কুমিল্লার গোমতী নদীর চরে এবার শীতকালীন সবজি মুলা চাষ করে ব্যাপক ফলন পেয়েছেন কৃষকরা। আর বাজারে চাহিদা থাকায় পাইকাররা জমি থেকেই কিনে নিয়ে যাচ্ছেন মুলাসহ অন্যান্য শাকসবজি।

মুলা ছাড়াও এবার ফুলকপি, বাঁধাকপি, টমেটো, বেগুন, শালগমসহ বিভিন্ন শীতকালীন সবজির ফলনও হয়েছে ভালো।

কুমিল্লার বুক চিরে বয়ে যাওয়া গোমতী চরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ও কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, উন্নত বীজ, পরিমিত সার ব্যবহার ও অনুকূল আবহাওয়া থাকায় এবার গোমতীর চরে মুলার বাম্পার ফলন হয়েছে।

কুমিল্লা সদর উপজেলার বাবুর বাজার এলাকায় গিয়ে কথা হয় কৃষক দেলু মিয়ার সাথে। দীর্ঘ ৩৫ বছর গোমতী নদীর চরে সবজি চাষ করে আসছেন। বরাবরের মতো এবারও ৫৬ শতক জমিতে মুলা ও ফুলকপির আবাদ করেছেন। ফলন ভালো হওয়ায় পাইকাররা ক্ষেত থেকেই মুলা নিয়ে যাচ্ছেন।

শুধু দেলু মিয়াই নন, শীতকালীন সবজির ফলনে অন্যান্য কৃষকদের মুখেও  ফুটেছে হাসি।

অনুকূল আবহাওয়া থাকায় এখানে মুলা, বাঁধাকপি, ফুলকপি, টমেটোর ফলন ভালো হয়েছে। তবে মুলার বাম্পার ফলনই হাসি ফুটিয়েছে কৃষকদের মুখে। আকারে বড় ও গঠন উন্নত হওয়ার কারণে বাজারে দামও পাওয়া যাচ্ছে তুলনামূলক বেশি।

কৃষকরা জানালেন, প্রতি বিঘা মুলা চাষে ২৮ থেকে ৩০ হাজার টাকা খরচ হয়। আর উৎপাদিত এসব মুলা বাজারে বিক্রি হয় ৬০ থেকে ৬৫ হাজার টাকা। তাই কুমিল্লার চরাঞ্চলের বেশির ভাগ কৃষকই ঝুঁকছেন মুলা চাষে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কুমিল্লা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক দীলিপ কুমার অধিকারী বলেন, গোমতী চরের মাটি শীতকালীন সবজি চাষের জন্য খুবই উপযোগী। প্রতিবছরই চাষিরা এখানে বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি চাষ করে ভালো ফলন পেয়ে থাকেন।

তবে এবার অনুকূল আবহাওয়ার পাশাপাশি কৃষি অধিদপ্তরের পরামর্শে অধিক ফলনশীল বীজ, পরিমিত সার ও কিটনাশক ব্যবহারের ফলে মুলার বাম্পার ফলন হয়েছে। বাজারে চাহিদা থাকায় দামও পাচ্ছেন ভালো।

জেডএস/এমএ