শাবির ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির চেষ্টাকালে আটক ৫

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

শাবির ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির চেষ্টাকালে আটক ৫

শাবি প্রতিনিধি ৬:৪৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৬, ২০১৯

শাবির ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির চেষ্টাকালে আটক ৫

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ সেশনের ১ম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে জালিয়াতির চেষ্টাকালে ৫ শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে। শনিবার বেলা আড়াইটায় 'বি' ইউনিটের পরীক্ষা চলাকালে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন- আহসান আলী, মাহমুদুল হাসান, মোহাম্মদ ইব্রাহীম খলিল জীবন, মোহাইমিনুল ইসলাম খান রিফাত, সাদ মোহাম্মদ শাহেদ। তারা সবাই বগুড়া 'অন্বেশা অ্যাডমিশন অ্যান্ড ইনফরমেশন সেন্টারের শিক্ষার্থী ছিলেন বলে জানা গেছে।

শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বন করায় পাঁচ শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে। 

ভর্তি কমিটি সূত্রে জানা যায়, শাহজালাল জামিয়া ইসলামিয়া কামিল মাদরাসা (কেন্দ্র-১৪) থেকে ২ জন, মঈনুদ্দিন আদর্শ মহিলা কলেজ (কেন্দ্র-২৪) থেকে ১ জন, সিলেট সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজ (কেন্দ্র-৪০) থেকে ১ জন ও সিলেট পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট (কেন্দ্র-৪৩) থেকে ১ জনকে আটক করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। পরে তাদেরকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার জেদান আল মুসা জানান, আটককৃতদের কাছ থেকে সিমকার্ডযুক্ত ক্যালকুলেটর জব্দ করা হয়েছে। ক্যালকুলেটরে সিম ব্যবহার করে উত্তর আদান-প্রদানের চেষ্টা করে তারা।

সিলেট পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট কেন্দ্র পরিদর্শকের দায়িত্বে ছিলেন শাবির ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মোছাদ্দেক আহমেদ চৌধুরী।

তিনি জানান, জালিয়াতিতে আটক সবাই এসপি ট্রাভেলস-এর বাসযোগে বগুড়া থেকে সিলেটে আসেন। পরীক্ষা চলাকালে তাদের কাছে সিমযুক্ত ডিজিটাল ক্যালকুলেটর পাওয়া যায়। যার মাধ্যমে তারা বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর সংগ্রহ করছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমেদ জানান, আটককৃতদের পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শনিবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮টিসহ নগরীর মোট ৩২টি কেন্দ্রে ‘এ’ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরবর্তীতে দুপুর আড়াইটা থেকে ৪টা পর্যন্ত মোট ৪৬টি কেন্দ্রে ‘বি’ ইউনিটের পরীক্ষা সম্পন্ন হয়। এবছর ১ হাজার ৭০৩টি আসনের বিপরীতে আবেদন করেছে ৭১ হাজার ১৮ জন শিক্ষার্থী। সে হিসেবে একটি আসনের জন্য ভর্তিযুদ্ধে লড়েন ৪২ জন শিক্ষার্থী।

এমএ/এইচকে

 

ভর্তি ও পরীক্ষা: আরও পড়ুন

আরও