একটুর জন্য স্বপ্নের অভিষেক হয় না ওয়েনের!

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৮ | ১৩ বৈশাখ ১৪২৫

বিশ্বকাপ ফুটবল ইতিহাসের সেরা ১০০ ছবি—৩৪

একটুর জন্য স্বপ্নের অভিষেক হয় না ওয়েনের!

খাইরুল আমিন তুহিন ৪:২২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৫, ২০১৮

print
একটুর জন্য স্বপ্নের অভিষেক হয় না ওয়েনের!

বিশ্ব ফুটবলে প্রবল আলো ছড়িয়ে বিশ্বকাপে এসেছিলেন মাইকেল ওয়েন। ১৯ বছর বয়স। ফ্রান্স ১৯৯৮ বিশ্বকাপে অভিষেক। এবং বদলি হিসেবে নেমেই গোল করেছেন। আপসেটের সেই ম্যাচে তার গোলে সমতা এনেও রুমানিয়ার কাছে হেরেছিল ইংল্যান্ড। আগের ম্যাচে তিউনিসিয়া এবং পরের খেলায় কলম্বিয়াকে হারিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করে ইংলিশরা। যদিও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয় রুমানিয়া। ওই দলের কাছে ২-১ গোলে হারার পর ওয়েনের এই হতাশার ছবি। বিশ্বকাপ ইতিহাসের ১০০ সেরা ছবি নিয়ে আয়োজনে আজ সেটি। ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপের ১০০ দিনের কাউন্টডাউনের উৎসব চলছে। নিয়মিত লিখছেন খাইরুল আমিন তুহিন।

প্রথম ম্যাচে তিউনিসিয়াকে হারিয়েছে ২-০ গোলে। ঐতিহাসিক শত্রু দেশ ফ্রান্সের মাটিতে বিশ্বকাপ। ইংলিশদের রক্ত খলবলিয়ে ওঠে বিশেষ কিছু দেখানোর জন্য। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচেই তারা আপসেটের শিকার। গিওর্গে হাজির রুমানিয়ান দল ২-১ গোলে হারিয়ে আঘাত হানে ইংলিশ আভিজাত্যে। বিশ্বকাপ অভিষেকেই ১৯ বছরের মাইকেল ওয়েন ইংলিশ দলের ভার নিয়েছিলেন কাঁধে। কিন্তু শেষ রক্ষা করতে পারেননি। যদিও যে গোলটি হলো না অতিরিক্ত সময়ে সেটির জন্য ছবির ওই হতাশা বুঝিয়ে দেয় কতোটা গোলক্ষুধা কাজ করতো সেই সময়ে ইংল্যান্ডের কনিষ্ঠতম খেলোয়াড় ও গোলদাতার মনে।

ইংলিশরা প্রবল প্রত্যাশা নিয়ে তাকিয়ে এই ম্যাচের দিকে। তারা জানতো, জিতলেই এক ম্যাচ হাতে রেখে তাদের জন্য দ্বিতীয় বা নক আউট রাউন্ড নিশ্চিত। একটি পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নেমেছে ইংল্যান্ড। তারা অবশ্য খুব গোছানো রুমানিয়া দলের বিপক্ষে শুরু থেকেই স্ট্রাগল করতে থাকে। কারণ, আক্রমণগুলো একেবারে শেষ মাথায় পৌঁছতে পারছিল না। তখন রুমানিয়ানরা ভুল না করলে ইংলিশদের সুযোগ দেখা যাচ্ছিল না।

২২ জুনের ম্যাচটি ছিল স্তাদে দে তুলুসে। ১৫ মিনিটে ইংল্যান্ড চমৎকার একটা সুযোগ নষ্ট করে। ২৭ মিনিটে বিপদেই পড়তে যাচ্ছিল ইংল্যান্ড। তাদের ডিফেন্সের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে একটি আক্রমণ গড়ে তোলে রুমানিয়ানরা। ডান পাশ থেকে সেন্ট্রাল স্ট্রাইকার আদ্রিয়ান লি উঠে গেলেন লম্বা বল পেয়ে। ডিফেন্ডার টনি অ্যাডামস অফ সাইড পতাকার জন্য তাকিয়ে দেখেন সেই ইঙ্গিত নেই। তুলে মারেন লি। কিন্তু ক্রসবারে লেগে বল আসে ফিরে। ৩২ মিনিটেই বদলি নামাতে হয় ইংল্যান্ডকে। পল ইনকে ইনজুরিতে পড়েন। যুবা স্টাইলিশ ডেভিড বেকহাম খেলতে নামেন।

ইংলিশদের জন্য দ্বিতীয়ার্ধটা শুরু হয় দুর্ভাগ্যের বারতা নিয়ে। রুমানিয়ার জন্য জেগে ওঠার কারণ যেটি। ডান পাশ থেকে থ্রো। ইংলিশ ডিফেন্স নড়বড়ে। বড় বক্সের ঠিক বাইরে থেকে বলটাতে ছোটো বক্সে তোলেন গিওর্গে হাজি। ভিওরেল মলদোভান বেশ ফাঁকাতেই ছিলেন। সামনে এগোন। গোলকিপার ঝাঁপান। স্লাইডিং প্রবল শটে বলটাকে জালে জড়িয়ে সতীর্থদের নিয়ে উৎসবে মাতেন মলদোভান।

মরিয়া ইংল্যান্ডের সামনে সমতা আনার সুযোগ বলতে আসে ফ্রিকিক। সেটপিস স্পেশালিস্ট বেকহামের শট ক্রসবারে হাওয়া লাগিয়ে চলে যায় উড়ে। রুমানিয়ার গোলের পর আসলে ইংলিশরা একটা গোলের জন্য সবকিছুই করে যাচ্ছিল। তারাই এগিয়ে ছিল আক্রমণে। ৬৪ মিনিটে ফিনিশিংটা হলো না।

এরপর সুযোগ আসে অমিত প্রতিভাবান তরুণ মাইকেল ওয়েনের। বদলি হিসেবে নামেন। এবং তিনি হতাশ করেন না। ইংল্যান্ডের কনিষ্ঠতম স্ট্রাইকার ৮২ মিনিটে গোল করেন। অ্যালান শিয়েরার ও পল স্কলস হয়ে বক্সের মধ্যে সুযোগটা এসে যায়। টিনএজার ওয়েন রুমানিয়ান গোলকিপার বোগদান স্তিলিয়াকে হার মানিয়ে ফেলেন। ইংলিশ ডেরায় ১-১ এর স্বস্তি।

এই স্বস্তিতে ইংলিশরা ভাবে, আর যতোক্ষণ খেলা তাতে হয়তো হারতে হলো না। অন্তত একটি পয়েন্ট তো বাঁচানো গেলো! কিন্তু হায়। ইংলিশদের বক্সে বল ঢোকে। যথারীতি তাদের ডিফেন্স এখানেও ভুল করে। লেফট উইং ব্যাক গ্রায়েম লি সক্স ঠেকাতে পারেন না ড্যান পেত্রেস্কুকে। তিনি যখন লজ্জা-ক্ষোভে মুখ ঢাকছেন জালে বল ঢুকতে দেখে তখন পেত্রেস্কু ও রুমানিয়া দল অবিশ্বাস্য এক জয়ের উৎসব করে নিচ্ছেন মহা আয়োজনে। এর পর তো রুমানিয়ান দলের সবাই মাথা ডাই করে। ব্লন্ড চুলের একটি দল দেখে বিশ্বকাপ। যদিও কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠা হয় না তাদের। দ্বিতীয় রাউন্ড থেকেই বাদ।

মাইকেল ওয়েনের গল্পটা অবশ্য ওই ৯০ মিনিটের গোলে শেষ হয়নি। বাকি ছিল। স্বপ্নের বিশ্বকাপ অভিষেকের খুব কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছিলেন তিনি। ৯২তম মিনিটে মাঝ মাঠ থেকে পাসে বল পেলেন। তারপর একটু এগিয়ে বেশ লম্বা এক শট নিলেন। গোলকিপার ঠেকাতে পারেননি। কিন্তু ভাগ্যটা এদিন পুরোপুরি ছিল না ইংলিশদের পক্ষে। ওয়েনের দারুণ শটে বলটা মাটি কামড়ে উড়ে যায়। তারপর গিয়ে বাঁ পাশের বারে লেগে ফিরে আসে।

একটুর জন্য কতো কিছু হয় না! ১৯ বছর বয়সী মাইকেল ওয়েন এমন দৃশ্য দেখে হতাশায় মাটির ওপরই ঝাঁপিয়ে পড়েন মুখ ঢেকে। আহা গল্পটা তো ভিন্নও হতে পারতো!

ক্যাট

 
.




আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad