চিম্বুক পাহাড়ে নতুন পর্যটন কেন্দ্র ‘নীল দিগন্ত’

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৭ | ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

চিম্বুক পাহাড়ে নতুন পর্যটন কেন্দ্র ‘নীল দিগন্ত’

বান্দরবান প্রতিনিধি ১২:১৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৬, ২০১৭

print
চিম্বুক পাহাড়ে নতুন পর্যটন কেন্দ্র ‘নীল দিগন্ত’

দিগন্ত বিস্তৃত সবুজের সমারোহ। সারি সারি পাহাড় সেই সঙ্গে রোদ বৃষ্টি আর মেঘের অপূর্ব মিতালি। বান্দরবানের চিম্বুক পাহাড়ের মনমাতানো এই দৃশ্য ভোলার নয়। তবে চিম্বুক পাহাড়ে গড়ে উঠা পর্যটনের নতুন নতুন স্থানগুলো সবারই দৃষ্টি কাড়ছে। অনন্য নির্মাণ শৈলীর এসব পর্যটন কেন্দ্রগুলো জেলার বিকাশমান পর্যটন শিল্পে নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

.

চিম্বুক পাহাড়ের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র নীলগিরির কাছেই জীবন নগর এলাকা। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এখানে ‘নীল দিগন্ত’ নামে নতুন একটি মনোরম পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলা হয়েছে।

চন্দ্র পাহাড়ের কোল ঘেষে গড়ে উঠা নতুন এই পর্যটন কেন্দ্র থেকে দেশের সর্বোচ্চ পর্বত কেউক্রাডং ও তাজিংডং রেঞ্জ দেখা যায়। এছাড়া দিগন্ত বিস্তৃত সবুজ পাহাড় শ্রেণি ও বর্ষায় মেঘ-বৃষ্টি আর রোদের মিতালিও চোখে পড়বে এই স্থান থেকে।

জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক শনিবার বিকেলে নতুন এই পর্যটন কেন্দ্রটির উদ্বোধন করেন।

প্রায় সাড়ে ৩ একর জায়গার উপর পর্যটন কেন্দ্রটি গড়ে তোলা হয়েছে। এখানে ভিউ পয়েন্ট, হাঁটার পথ, গোলঘর, টিকিট কাউন্টার, ক্যান্টিন ও অনন্য নির্মাণশৈলীর প্রবেশদ্বার রয়েছে। জায়গাটি দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিল।

জীবন নগর এলাকার এই স্থানটি থেকে প্রকৃতির অপূর্ব মনোরম দৃশ্য উপভোগ করা যায়। বিশেষ করে বর্ষায় এর রুপ হয়ে উঠে অনন্য সুন্দর। পাশের চন্দ্র পাহাড় সবুজ দিগন্তের এই পর্যটন কেন্দ্রটিকে নতুন রুপ দিয়েছে।

নীলগিরি পর্যটন কেন্দ্র থেকে এই স্থানটির দূরত্ব মাত্র ৫ কিলোমিটার। জেলা শহর থেকে জিপ, ট্যাক্সি বা বাসে করে সহজেই এই স্থানটিতে যাওয়া যায়।

জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক জানান, প্রশাসনের উদ্যোগে জেলায় পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে নতুন নতুন পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণ করা হচ্ছে। এছাড়া উপজেলায় নতুন নতুন পর্যটন কেন্দ্রগুলো খুঁজে বের করা হচ্ছে। সেসব পর্যটন কেন্দ্রগুলোকে নতুন রুপ দেওয়া হচ্ছে।

তিনি জানান, বেড়াতে আসা পর্যটকরা শুধু কয়েকটি পর্যটন কেন্দের মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে যাতে সব স্থানেই ঘুরে বেড়াতে পারে সে ব্যবস্থাই করা হচ্ছে। শুধু পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণই নয় সেই সঙ্গে পর্যটকদের সুযোগ সুবিধাগুলোর প্রতিও দৃষ্টি দেওয়া হচ্ছে।

জেলা প্রশাসনের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর হোসাইন মোহাম্মদ আল মুজাহিদ জানান, জেলা শহরের আশপাশের পর্যটন কেন্দ্রগুলো ইতোমধ্যে সবার দৃষ্টি কেড়েছে। তবে জেলা শহরের বাইরে বিশেষ করে উপজেলায় নতুন নতুন পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তুলতে প্রশাসন উদ্যোগ নিয়েছে।

এর অংশ হিসেবেই চিম্বুককে নতুনভাবে সাজানো হয়েছে। সেই সাথে জীবন নগর এলাকায় সবুজ দিগন্ত নামে নতুন একটি পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলা হয়েছে।

থানচি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, থানচি এখন পর্যটনে সবচেয়ে এগিয়ে। এখানকার বড় পাথর, নাফা খুম, তিন্তু রেমাক্রির বিভিন্ন ঝর্ণা দেখতে প্রচুর পর্যটক আসছে।

এমএইচ/বিএইচ/

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad