বিছানাকান্দি, গোয়াইনঘাট, সিলেট

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৭ | ৪ কার্তিক ১৪২৪

বিছানাকান্দি, গোয়াইনঘাট, সিলেট

বুরহানুর রহমান ১০:৩৫ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২১, ২০১৭

print
বিছানাকান্দি, গোয়াইনঘাট, সিলেট

সাতটি পাহাড়ের ঢাল এক যায়গা এসে মিশেছে। তাই যায়গার নাম সাত পাহাড়ের মুখ। বিছানাকান্দিতে সবাই এই সাত পাহাড়ের মুখে যায়। দুই দেশের সিমান্তে হওয়াই বর্ডার গার্ডদের তৎপরতা চোখে পরার মতো। দূরে আবছা ভাবে দেখা যায় বেশ উঁচু এক জল প্রপাত।

জল প্রপাতটি প্রতিবেশী রাষ্ট্রের মধ্যে পড়েছে। বিছানাকান্দির ঝর্ণা ধারা সেই জলপ্রপাত থেকেই এসেছে।

বেশ কায়দা করে একটা ভাসমান রেস্তরাঁও বানানো হয়েছে; নাম- জলপরী।

এ উপত্যকা ছোট বড় বিভিন্ন সাইজের পাথর দিয়ে ভরা। বেশ কিছু পাথর বেশ পিচ্ছল তাই একটু সাবধানেই হাঁটতে হয়। দূরে দেখা যায় দুই পাহাড়ের একটি সংযোগ সেতু। অনেকটা জাফলং এর মতো।

সিলেট থেকে বিছানাকান্দি রিজার্ভ বাহনে অথবা আম্বারখানা সিএনজি স্টেশন/হোটেল পলাশের সামনে থেকে লাইনের সিএনজিতে করে যাওয়া যায়। যে ভাবেই যাননা কেন হাদারপাড় বাজার পর্যন্ত যেতে হবে।

হাদারপাড় বাজার থেকে খেয়া ঘাট চার-পাঁচশো মিটারের হাঁটা দূরত্ব; কিন্তু ভূ-সৌন্দর্যের ব্যাবধান আকাশ-পাতাল। হাদারপাড় বাজার পার না হওয়া পর্যন্ত বুঝাই যায় না যে, সামনে হঠাৎ করেই সুন্দর এক দৃশ্যপট উন্মুক্ত হবে।

হাদারপাড় থেকে সাত পাহাড়ের মুখে ৪ ভাবে যাওয়া যায়। নৌকায় (যেতে ৩০ মিনিট লাগবে), ট্রাক্টরে (২০ মিনিট লাগবে), গ্রামের রাস্তা দিয়ে হেঁটে (৪০ মিনিট লাগবে) অথবা ঝর্ণার পাশ দিয়ে হেঁটে (১ ঘণ্টা ২০ মিনিট লাগবে)।

নৌকায় গেলে সামান্য খরচ বেশী হয়, কিন্তু এটিই সবচে সুন্দর পথ।

ঝর্ণার পানি কমে গেছে তাই গোদা বেঁধে নৌকা চলাচল উপযোগী পানি বাড়ানো হয়েছে (পাহাড়ি ঝর্ণাতে বাঁধ দিয়ে লেক/পানি বাড়ানোর প্রক্রিয়াকে গোদা বলে)।

একটু ফাউ অ্যাডভ্যাঞ্চার করার ইচ্ছা থকলে ট্রাক্টরে যাওয়া যায়। এ এক অদ্ভুত বাহন- রাস্তা নেই তো কি হয়েছে- একদিকে সামনের ২ চাকা, একদিকে মাঝের ২ চাকা, আর একদিকে পেছনের ২ চাকা দিয়ে সাপের মতো চলে। খানা-খন্দ, উঁচু-নিচু কোন কিছুতেই বাঁধা মানে না। শুধু আরোহীদের ছিটকে পরার ভয় ছাড়া কোন সমস্যা নেই।

বিছানাকান্দি সিলেট শহর থেকে বেশী দূরে নয়। মাত্র ৪০ কিলোমিটার। এটি সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার মধ্যে পড়েছে। প্রায় পুরো রাস্তাটি আরসিসি ঢালাই করা। রাস্তার অবস্থাও বেশ ভালো। রাস্তার ২ পাশে গাছের ছায়া পুরো রাস্তাটাকে ছায়া ঘেরা করেছে। রাস্তার ২ পাশে পাটিপাতা ও জালি বেত বেশ চোখে পড়ে।

তথ্য ও ছবি : বুরহানুর রহমান

ইসি/

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad