যেন সাগর থেকে উঠে আসা শহর, স্যান্টোরিনি,

ঢাকা, শুক্রবার, ২৫ মে ২০১৮ | ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫

যেন সাগর থেকে উঠে আসা শহর, স্যান্টোরিনি,

পরিবর্তন ডেস্ক ২:৩৫ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ০৯, ২০১৮

print
যেন সাগর থেকে উঠে আসা শহর, স্যান্টোরিনি,

আগ্নেয়গিরি থেকে উৎপত্তি হয়েছে গ্রীসের এই দ্বীপটির। এর আনুষ্ঠানিক নাম আসলে ‘থেরা’ অথবা ‘থিরা’ কিন্তু সাধারণত একে স্যান্টোরিনি বলেই ডাকা হয়। এর পূর্বে এই দ্বীপটির নাম ছিল ক্যালিস্টে এবং স্ট্রঙ্গাইলে। সাদা রঙের বাড়ি দিয়ে ভরে আছে পুরো শহর। বাড়িগুলোর ছাদ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই নীল। এই দুই রঙের মিশেলে মনে হয় সাগর থেকে উঠে এসেছে এই দ্বীপের বাড়িগুলো। শুধু এই শহরই নয়। পুরো স্যান্টোরিনিতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে পর্যটকদের আকর্ষণ করার মতো অনেক কিছুই।

পৃথিবী বিখ্যাত পুরাকাহিনীর দেশ গ্রীস, প্রাচীন কল্পনার স্বপ্নভুমি গ্রীস। স্বতন্ত্র সংস্কৃতিতে সমৃদ্ধ ইউরোপের এই দ্বীপ দেশটি মানুষকে মোহিত করেছে যুগে যুগে। গ্রীসের মূল ভূখণ্ড থেকে প্রায় ২০০ কিলোমিটার দক্ষিণপূর্বে অবস্থিত ছোট্ট এই দ্বীপে রয়েছে নতুন-পুরনো ধাঁচের বেশ কিছু গ্রাম। এখানে গিয়ে আপনি যেমন পুরনো আমলের গ্রীসের স্বাদ অনুভব করতে পারবেন, তেমনই আধুনিক সব সুযোগ সুবিধার মাঝে থেকে আপনার ভ্রমণ উপভোগ করতে পারবেন।

স্যান্টোরিনিতে গেলে প্রথমে আপনার বেড়াতে যেতে হবে থেরা নগরীর প্রাচীন অংশটিতে। কামারি অঞ্চল থেকে পেরিসা অঞ্চলকে আলাদা করে রেখেছে এই থেরা। খ্রিস্টপূর্ব ৯ম শতাব্দিতে ডোরিয়ান জাতির মানুষের দ্বারা স্থাপিত হয় এই নগরী। প্রাচীন গ্রীসিয়, রোমান এবং বাইজান্টাইন সাম্রাজ্যের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনে ভরপুর এই অঞ্চলটি।

এর রাস্তা দিয়ে হাঁটতে হাঁটতেই আপনি দেখতে পাবেন প্রাচীন রোমান ধাঁচের স্নানঘর, মোজাইকের বাড়ি এমনকি একটি দর্শনীয় ‘অ্যাগোরা’ বা বাজার।

আর এখানে যখন গ্রীক দেবতা অ্যাপোলোর সম্মানে উৎসব পালন করা হয় তখন এই শহরের সৌন্দর্য আপনার চোখ ধাঁধিয়ে দেবে! সাধারণত মঙ্গলবার থেকে রবিবার সকাল সাড়ে আটটা থেকে দুপুর তিনটা পর্যন্ত এই এলাকাটি উন্মুক্ত থাকে দর্শনার্থীদের জন্য।

আপনি আপনার মধুচন্দ্রিমায় কোথায় যাবেন কোনো প্ল্যান করেছেন? এখনো না করে থাকলে চটজলদি তালিকার প্রথমেই রাখতে পারেন গ্রীসের স্যান্টোরিনির নাম। কারণ স্যান্টোরিনি আইল্যান্ডের অসাধারণ সুন্দর পরিবেশকে বিশ্বের সব চাইতে রোমান্টিক স্থান ধরা হয়। সমুদ্রে সূর্যের খেলা, সূর্যাস্ত এবং সূর্যোদয় দেখার জন্য সব চাইতে ভালো জায়গা এটি। প্রতিবছর হাজারো দম্পতি হানিমুন করার জন্য এই স্থানে আসেন। প্রাচীন সভ্যতার সেই স্বর্ণযুগ এখন আর না থাকলেও তার রত্নরাজি ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে দেশটি জুড়ে। আর আপনি তা সবচাইতে বেশি উপভোগ করতে পারবেন সান্তোরিনি দ্বীপে গিয়ে।

ইসি/

 
.

Best Electronics Products



আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad