ঘুম থেকে তুলে নিয়ে বাবা-চাচা মিলে হত্যা করে তুহিনকে
Back to Top

ঢাকা, শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০ | ১৯ চৈত্র ১৪২৬

ঘুম থেকে তুলে নিয়ে বাবা-চাচা মিলে হত্যা করে তুহিনকে

সুনামগঞ্জ  প্রতিনিধি ২:৫৭ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৯

ঘুম থেকে তুলে নিয়ে বাবা-চাচা মিলে হত্যা করে তুহিনকে

সুনামগঞ্জে চাঞ্চল্যকর শিশু তুহিন হত্যা মামলায় বাবা আব্দুল বাছির, তিন চাচা ও এক চাচাতো ভাইকে আসামি করে আদালতে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ।

সোমবার দুপুর ১২ টার দিকে পুলিশ সুনামগঞ্জ চীফ জুডিসিয়াল আদালত দিরাই জোনে এ চার্জশীট দাখিল করে পুলিশ।

অন্যান্য আসামিরা হলো— নিহত তুহিনের চাচা মাওলানা আব্দুল মোছাব্বির, জমসেদ আলী, নাছির উদ্দিন ও চাচাতো ভাই শাহরিয়ার ওরফে শাহারুল।

সোমবার দুপুর একটায় সংবাদ সম্মেলনে সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান বিপিএম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পূর্ব) মো. মিজানুর রহমমান পিপিএম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পশ্চিম) মো. আবু তারেক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ইনসার্ভিস) মো. হায়াতুন নবী, সুনামগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জয়নাল আবেদীন, ট্রাফিক ইন্সপেক্টর শামসুল আলম, কোর্ট ইন্সপেক্টর আশেক সুজা মামুন, জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি কাজী মোক্তাদির হোসেন, জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার ইন্সপেক্টর (ডিআইও-২) আব্দুল লতিফ তরপদারসহ পুলিশের অন্যান্য কর্মকর্তা ও স্থানীয় গণমাধ্যম প্রতিনিধি কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

পুলিশ সুপার জানান, গত ১৩ অক্টোবর দিবাগত রাতে তুহিনকে ঘুম থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে তারা বাবা ও চাচারা জবাই করে মৃত্যু নিশ্চিত হত্যা করে। এর পর মৃত্য তুহিনের লিঙ্গ ও কান কেটে দেয় ঘাতকরা। তার পরে পেটে দুটি ছুরি ডুকিয়ে বাড়ির অদূরে গ্রামের মসজিদের সামনে একটি গাছের সঙ্গে রশি দিয়ে ঝুলিয়ে রাখে তুহিনের মৃত্য দেহ। পর দিন ১৪ অক্টোবর সকালে পুলিশ নিহত শিশু তুহিনের লাশ উদ্ধার করে।

এসময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তুহিনের বাবা আব্দুল বাছির, চাচা আব্দুল মোছাব্বির, জমসেদ আল, নাছির ও চাচাতো ভাই শাহরিয়ার ওরফের শাহারুলকে আটক করে দিরাই থানায় নিয়ে আসে।

এ ঘটনায় ওই দিনই তুহিনের মা মনিরা বেগম অজ্ঞাত নামা আসামি করে দিরাই থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ১৫ অক্টোবর পুলিশ সুনামগঞ্জ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত দিরাই জোনের বিচারক মোহাম্মদ খালেদ মিয়ার আদালতে তুহিনের চাচা নাছির ও চাচাতো ভাই শাহরিয়ার ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়।

একই দিন বিকেলে একই সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শ্যাম কান্ত সিনহার আদালতে তুহিন হত্যা মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা এসআই মো. আবু তাহের মোল্লা তুহিনের বাবা আব্দুল বাছির, চাচা আব্দুল মোছাব্বির ও জমসেদ আলীকে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড প্রার্থনা করেন। আদালত তুহিনের বাবা আব্দুল বাছিরকে ৫ দিনে এবং চাচা আব্দুলর মোছাব্বির ও জমসেদ আলীর ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এসজেসি/জেডএস

 

সমগ্রবাংলা: আরও পড়ুন

আরও