আমারে সৌদি থেকে লইয়া যাও: মরিয়মের আর্তনাদ

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২০ | ১৪ মাঘ ১৪২৬

আমারে সৌদি থেকে লইয়া যাও: মরিয়মের আর্তনাদ

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি ৯:৫৬ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৪, ২০১৯

আমারে সৌদি থেকে লইয়া যাও: মরিয়মের আর্তনাদ

‘পুরা দেশবাসির কাছে আমি জীবন ভিক্ষা চাই। আমার লেখাপড়া নাই। আমি নির্যাতনের ভিডিও ছাড়তে পারি না। আমারে ওয়ার দিয়া খুব মারে, আমার শরীরের লজ্জাস্থানগুলোতে ওয়ার দিয়া মারে। আমাকে যৌন নির্যাতন থেকে বাঁচান।

পুরা দেশ বাসির কাছে আমি ভিক্ষা চাই, আমারে বাঁচাও আমারে সৌদি থেকে লইয়া যাও। আমারে বাংলাদেশে লইয়া যাও। তোমনা কাছে আমি জীবন ভিক্ষা চাই ।’

‘আমি বাঁচতাম না, আমারে বাইচ্চা (বেঁচে) থাকতে কেউ নিল না দেশও। আমি বাইচা দেশ আইতাম না। ওইটা (উঠে) খারইতে (দাঁড়াতে) পারি না। কিতা (কি) কাম (কাজ) করতাম। আমি বাঁচতাম না। আমি মইরা যামু এই দেশও। আমার শরীরের অবস্থা খুব খারাপ। আমার গ্রাম এমন মানুষ নাই আমারে দেশও নেওয়ার কেউ নাই। আমি মইরা যাইমু আমি বাঁচতাম না।’

সে আরও বলে, ‘আমার আত্মীয় স্বজন যারা আছেন আমি আইছিলাম আমার দুইটা বাচ্চার লাগিয়া আমার দুইটা বাচ্চার কেউ নাই। তোমরা আত্মীয় স্বজন আমার লাইগা দোয়া করিও। আমারে তোমরা বাঁচাও । আমারে বেতন দেয় না, খানা (খাবার) দেয় না।

‘আমি খুব অসুস্থ আমারে মাইরা মাইরা কাম করায়। আমার গ্রামের আত্মীয় স্বজন সবার কাছে আমার অনুরোধ আমারে তোমরা বাঁচাও। আমার বাপেরা আমার ভাইয়েরা তোমরার কাছে আমি আমার জীবন ভিক্ষা চাই আমার। আমার দুই বাচ্চার কেউ নাই। দুই বাচ্চার লাইগা আইয়া আমি বিপদে পড়ছি। আতিকুল দালালে আমারে সৌদির অফিসও ৪ লাখ টাকায় বিক্রি করে দিয়েছে।’

ভিডিও ও অডিও বার্তায় এমন তথ্য জানিয়েছে সৌদি আরবে গৃহকর্মী হিসাবে কর্মরত মরিয়ম আক্তার। মরিয়ম আক্তার মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলা ২নং ভুনবীর ইউনিয়নের আঐ গ্রামের তৈয়ব আলীর মেয়ে।

জানা যায়, গ্রামের আতিকুল দালালের মাধ্যমে চলতি বছরের ফ্রেবুয়ারিতে জীবিকার তাগিদে দুই ছেলেকে দেশে রেখে সৌদি আরব যান মরিয়ম আক্তার। সেখানে মরিয়ম একটি বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করতেন।

সাম্প্রতিক তার নির্যাতন ও যৌন হয়রানির কথা জানিয়ে একটি ভিডিও কান্নাজড়িত কন্ঠে পরিবারে সদস্যদের পাঠালেও পরিবারের সদস্যরা দালাল, গ্রামের মেম্বার, মুরুব্বিদের জানিয়েও মরিয়মকে দেশে ফেরাতে পারছেন না।

এদিকে, তৈয়ব আলীর মেয়ে মরিয়র আক্তারের সাথে যোগাযোগের পর তিনি জানান, যে সৌদিতে তার উপর অমানুষিক, শারীরিক ও যৌন নির্যাতন চালানো হচ্ছে।

নির্যাতিত মরিয়ম আক্তারের মা জামিলা বেগম মরিয়মকে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, রিয়াদ বাংলাদেশ দূতাবাসের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

মরিয়মের মা বলেন, আমার মেয়েরে বিদেশে নিয়ে বেচে দিয়েছে আতিকুল দালাল। তার কাছে গেলে সে ২ লাখ টাকা চায়। আমার মেয়েরে তারা খানা দেয় না, ডাক্তার দেখায় না, কামের লাইগা মারে। আমার মাইয়া মুইরা যাইব।

নির্যাতনের বিষয়ে দালাল আতিকুলে সঙ্গে যোগাযোগ করলে সে জানায়, তারা (মরিয়মের পরিবার) আমারে নির্যাতনের ভিডিও রেকর্ড দেখাইছে। তারা বলছে মরিয়মকে দেশে ফিরাই আইনা দিতে বলেছে। আমার পক্ষে দেশে আনা সম্ভব না। আমি ঘর পাল্টাই দিতে পারবো। আমি খোঁজ নিয়েছি, এগুলো মিথ্যা কথা বলছে।

এমআইআই/জেডএস

 

সিলেট: আরও পড়ুন

আরও