মুনাফা বাড়লেও গ্রামীণফোনের ডিভিডেন্ডে ধস

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৯ ফাল্গুন ১৪২৬

মুনাফা বাড়লেও গ্রামীণফোনের ডিভিডেন্ডে ধস

পরিবর্তন প্রতিবেদক ১১:১৭ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২৮, ২০২০

মুনাফা বাড়লেও গ্রামীণফোনের ডিভিডেন্ডে ধস

সমপ্ত অর্থবছরে মুনাফা বাড়লেও পুঁজিবাজারের টেলিকমিউনিকেশন খাতের বহুজাতিক কোম্পানি গ্রামীণফোনের ডিভিডেন্ড ধস নেমেছে। ২০১৯ সালের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের চূড়ান্ত হিসাবে ৪০ শতাংশ ডিভিডেন্ড প্রদানের সুপারিশ করেছে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

এর আগে ৩০ জুন ২০১৯ শেষ অর্ধবর্ষের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে কোম্পানিটি অন্তবর্তীকালীন ৯০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল। অর্থাৎ বছরান্তে কোম্পানিটির চূড়ান্ত ডিভিডেন্ড দাঁড়ালো ১৩০ শতাংশ। কিন্তু ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ সালে কোম্পানিটি অন্তবর্তীকালীন ১২৫ শতাংশ ডিভিডেন্ডসহ ২৮০ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিল।

কোম্পানির প্রকাশিত আর্থিক উপাত্ত পর্যালোচনায় দেখা যায়, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২৫.৫৬ টাকা। আগের বছরে অর্থাৎ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছিল ২৪.৭১ টাকা। অর্থাৎ আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় কোম্পানিটির মুনাফা বেড়েছেস ০.৮৫ টাকা।

৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ শেষে মোবাইল অপারেটরটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ২৮.৪০ টাকা। আগের বছরের একই সময় কোম্পানিটির এনএভি ছিল ২৭.২৮ টাকা।

আগামী ২১ এপ্রিল কোম্পানিটির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হবে। এর জন্য রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি।

জানা যায়, টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকা নিরীক্ষা দাবি আদায়ে দীর্ঘদিন থেকে টানাহেচড়ার কারণে শেয়ারটির দর ক্রমাগত কমছে। গত দু’বছরে গ্রামীণফোনের শেয়ারদর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) পাঁচশ’ টাকা থেকে অর্ধেকের বেশি কমে ২৩০ টাকায় নেমেছিল।

সোমবার (২৭ জানুয়ারি) শেয়ারটির সর্বশেষ দর ছিল ২৭১.৪০ টাকা।

জেডএস

 

অর্থনীতি : আরও পড়ুন

আরও