প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পর পুঁজিবাজারে সূচকের উল্লম্ফন

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পর পুঁজিবাজারে সূচকের উল্লম্ফন

পরিবর্তন প্রতিবেদক ১২:৫৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০২০

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পর পুঁজিবাজারে সূচকের উল্লম্ফন

স্থিতিশীল পুঁজিবাজার গঠনে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণের পর সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে ব্যাপক উল্লম্ফন দেখা দিয়েছে পুঁজিবাজারে। এসময় বিনিয়োগকারীদের ক্রয় প্রবণতায় বাজারের সিংহভাগ কোম্পানি ও ফান্ডের দর ছিল ঊর্ধ্বমুখী।

লেনদেন শুরুর প্রথম ঘণ্টায় দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক বেড়েছিল ২০০ পয়েন্ট পর্যন্ত। অপরদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ মূল্যসূচক সিএএসপিআই প্রায় ৫০০ পয়েন্ট বেড়েছে। ডিএসই ও সিএসই’র বাজার পর্যালোচনায় এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, অব্যাহত দরপতনে বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা ও সংশ্লিষ্টদের সাথে বৈঠক করে। বৈঠকে স্থিতিশীল পুঁজিবাজার গঠনে প্রধানমন্ত্রী বেশ কিছু উদ্যোগ নেওয়ার নির্দেশনা দেন।

উদ্যোগগুলো হচ্ছে-পুঁজিবাজারে ব্যাংক ও ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণ বৃদ্ধি করা, মার্চেন্ট ব্যাংকার ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের জন্য কতিপয় সহজ শর্তে ঋণ সুবিধার ব্যবস্থা করা, আইসিবির বিনিয়োগ সক্ষমতা বৃদ্ধিকরণ, বিদেশিদের বিনিয়োগে আকৃষ্ট করা ও দেশীয় বাজারে আস্থা সৃষ্টি করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে উদ্যোগ গ্রহণ করা এবং বাজারে মানসম্পন্ন আইপিও বৃদ্ধির লক্ষ্যে বহুজাতিক ও সরকারি মালিকানাধীন লাভজনক কোম্পানিগুলোকে তালিকাভুক্তকরণের উদ্যোগ গ্রহণ করা।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগের পর অর্থ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ অনুসারে রাষ্ট্রায়ত্ত চার ব্যাংক সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংকগুলো নতুন করে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এমডি ও চেয়ারম্যানরা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশনাও দিয়েছেন। এছাড়াও বাংলাদেশ ব্যাংক ও তফসিলি ব্যাংকগুলোকে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য নির্দেশনা দিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি পুঁজিবাজারের জন্য বিশেষ ফান্ড দেয়ারও আশ্বাস দিয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে ইতিবাচক প্রবণতায় রয়েছে পুঁজিবাজার।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, দুপুর সাড়ে ১২টায় ডিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানি ও ফান্ডগুলোর মধ্যে দর বেড়েছে ৩৪৫টির, দর কমেছে ৬টির ও দর অপরিবর্তিত ছিল ৪টি প্রতিষ্ঠানের। এসময় ডিএসইতে ৮ কোটি ২২ লাখ ৯০ হাজার ১০২টি শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

এসময় ডিএসই’র সাধারণ মূল্যসূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ১৭৮.৪৬ পয়েন্ট। এছাড়া শরীয়াহ্ ভিত্তিক কোম্পানিগুলোর মূল্যসূচক ডিএসইএস বেড়েছে ৪৫.৮৮ পয়েন্ট ও ডিএস-৩০ সূচক বেড়েছে ৬৬.২০ পয়েন্ট। প্রথম দুই ঘন্টার লেনদেন শেষে ডিএসইতে ২০৯ কোটি ৩১ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

এসময় ডিএসইতে টার্নওভার তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে স্কয়ার ফার্মা। কোম্পানিটির ১৩ কোটি ৯৪ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। টার্নওভার তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশ। প্রথম দুই ঘণ্টার লেনদেন শেষে কোম্পানিটির ৯ কোটি ১৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এছাড়া টার্নওভার তালিকায় রয়েছে গ্রামীণফোন। কোম্পানিটির ৫ কোটি ২৯ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

এছাড়া টার্নওভার তালিকায় থাকা অন্যান্য কোম্পানিগুলো হলো- খুলনা পাওয়ার, এডিএন টেলিকম, রিং সাইন টেক্সটাইল, সিটি ব্যাংক, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্রাকো,  নর্দান জুট ও প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল।

এদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) লেনদেন হওয়া কোম্পানি ও ফান্ডগুলোর মধ্যে দর বেড়েছে ১৭৪টির, দর কমেছে ১০টির ও দর অপরিবর্তিত ছিল ০৫টির। এসময় সিএসইতে ৫ কোটি ৯৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

বিনিয়োগকারীদের ক্রয় চাপে সিএসইর প্রধান মূল্যসূচক সিএএসপিআই ৪৬৬.৮২ পয়েন্ট বেড়ে ১৩০৬৭ পয়েন্টে স্থিতি পেয়েছে।

জেডএস/

 

অর্থনীতি : আরও পড়ুন

আরও