মূল্যসূচক ৪ হাজার পয়েন্ট ছুঁইছুঁই
Back to Top

ঢাকা, রবিবার, ২৯ মার্চ ২০২০ | ১৫ চৈত্র ১৪২৬

মূল্যসূচক ৪ হাজার পয়েন্ট ছুঁইছুঁই

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৩:৪৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৪, ২০২০

মূল্যসূচক ৪ হাজার পয়েন্ট ছুঁইছুঁই

ইতিবাচক প্রবণতায় নতুন বছরের শুরু হলেও বিগত ৮ কার্যদিবসে ৭ কার্যদিবসেই বড় দর পতনে ভুগেছে পুঁজিবাজার। অব্যাহত দর পতনে বিগত ৮ কার্যদিবসে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সার্বিক মূল্যসূচক ৪ হাজার পয়েন্ট ছুঁইছুঁই।

মঙ্গলবার বিনিয়োগকারীদের বিক্রয় চাপে ডিএসই’র প্রধান মূল্যসূচক সর্বনিম্ন ১১৩ পয়েন্ট কমে ৪ হাজার ১০ পয়েন্টে স্থিতি পেয়েছিল। যদিও লেনদেনের শেষ মুহুর্তে সাপের্টে সামান্য ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাজার। কিন্তু দিনশেষে ডিএসইএক্স সূচক কমেছে ৮৭.২৪ পয়েন্ট। যা ২০১৫ সালের ৫ মে’র পর সর্বনিম্ন।

অপরদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) প্রধান মূল্যসূচক সিএএসপিআই কমেছে ২৭৪.৭৪ পয়েন্ট। এসময় সিএসইতে মাত্র ৯ কোটি ৬৮ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। ডিএসই ও সিএসই’র বাজার পর্যালোচনায় এ তথ্য জানা গেছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, ডিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানি ও ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৩২টি, দর কমেছে ২৯৩টির ও দর অপরিবর্তিত ছিল ৩০টি প্রতিষ্ঠানের। দিনশেষে ডিএসইতে ১১ কোটি ৫০ লাখ ৮৮ হাজার ৬৪৬টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

এদিন ডিএসইতে টাকার অংকে লেনদেন হয়েছে ২৬২ কোটি ৮১ টাকা। এর আগের কার্যদিবসে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ২৮৬ কোটি ৭৭ টাকা। অর্থাৎ ডিএসই’র সার্বিক লেনদেন কমেছে ২৩ কোটি ৯৬ লাখ টাকা।

দিনশেষে ডিএসই’র সার্বিক মূল্য সূচক কমেছে ৮৭.২৪ পয়েন্ট। এসময় ডিএসইএক্স সূচক ৪০৩৬.২৩ পয়েন্টে স্থিতি পেয়েছে। এর আগে ২০১৫ সালেল ৫ মে ডিএসইএক্স সূচক ৪০১৪.৩৭ পয়েন্টে ছিল।

অপরদিকে, ডিএসইএস সূচক প্রতিষ্ঠার পর সর্বনিম্ন অবস্থানে স্থিতি পেয়েছে আজ। সোমবার ডিএসইএস সূচক ৯২৯.৯৬ পয়েন্টে স্থিতি পেয়েছিল। মঙ্গলবার তা আরো ২২.৯৩ পয়েন্ট কমে ৯০৭.০৩ পয়েন্টে স্থিতি পেয়েছে। সূচকটি চালুর দিন অর্থাৎ ২০১৪ সালের ২০ জানুয়ারি  তা ৯৪১.২৭ পয়েন্টে ছিল। এছাড়া ডিএস-৩০ সূচক ২৬.১৪ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৩৬১ পয়েন্টে স্থিতি পেয়েছে।

দিনশেষে ডিএসইতে টার্নওভার তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশ। দিনশেষে কোম্পানিটির ১৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। টার্নওভার তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল বিকন ফার্মা, কোম্পানিটির ১০ কোটি ৮৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ১০ কোটি ১৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মধ্যে দিয়ে টার্নওভার তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে উঠে এসেছে এডিএন টেলিকম।

টার্নওভার তালিকায় থাকা অন্যান্য কোম্পানিগুলো হলো- খুলনা পাওয়ার, স্কয়ার ফার্মা, রিং সাইন টেক্সটাইল, ব্র্যাক ব্যাংক, নর্দান জুট, ডেফোডিল কম্পিউটার ও গ্রামীণফোন।

অপরদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) লেনদেন হওয়া ২৪৪টি কোম্পানি ও ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ২৭টির, দর কমেছে ১৯৬টির ও দর অপরিবর্তিত ছিল ২১টি প্রতিষ্ঠানের।

জেডএস/

 

অর্থনীতি : আরও পড়ুন

আরও