টানা তিন দিন পিঠে চড়িয়ে বৃদ্ধা দাদীকে নিয়ে আসল রোহিঙ্গা কিশোর

ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর ২০১৭ | ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

টানা তিন দিন পিঠে চড়িয়ে বৃদ্ধা দাদীকে নিয়ে আসল রোহিঙ্গা কিশোর

পরিবর্তন ডেস্ক ৫:৪৩ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭

print
টানা তিন দিন পিঠে চড়িয়ে বৃদ্ধা দাদীকে নিয়ে আসল রোহিঙ্গা কিশোর

আশি বছরেরও বেশি বয়সী বৃদ্ধা দাদীকে পিঠে চড়িয়ে বাংলাদেশে নিয়ে এসেছে বারো বছরের রোহিঙ্গা কিশোর। নাতী মোহাম্মদ জোহার টানা তিন দিন দুর্গম পাহাড়ি পথে পিঠে চড়িয়ে নিয়ে আসে বৃদ্ধা দাদী রশিদা বেগমকে। মঙ্গলবার সকালে তারা কক্সবাজারের উখিয়ার বালুখালির অস্থায়ী রোহিঙ্গা শিবিরে আশ্রয় নেন।  

.

কিশোর মোহাম্মদ জোহার জানায়,  মিয়ানমার সেনাদের অত্যাচার থেকে প্রাণ বাঁচাতে দাদী রশিদাকে পিঠে চড়িয়ে তিনদিন হেঁটেছে সে। অবশেষে দুর্গম পথ অতিক্রম করে সীমান্ত পাড়িয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে তারা।  

সে আরও জানায়, ৫ দিন আগে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী তাদের ঘরে আগুন দেয় এবং দাদির সামনেই তার দুই পুত্রকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ধর্ষণ করা হয়েছে পুত্রবধুদেরকেও। পরবর্তীতে কোন মতে তারা দুইজন পালিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছেন।   

১৯৭৮ সালের সেনাবাহিনীর অভিযানে বৃদ্ধা রশিদা হারান স্বামীকে। সে সময় আত্মীয় স্বজন ও প্রতিবেশীদের অনেকেই সীমান্ত পাড়ি দিলেও নিজ ভিটেতে ছয় পুত্র, পুত্রবধু ও নাতি নাতনীদের নিয়ে পড়েছিলেন। এবারের অভিযানেও তাও রক্ষা করতে পারলেন না তিনি।

কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে রশিদা জানান, স্বামীকে হত্যা করার পরও ভাবিনি নিজের জন্মস্থান আরাকান ছাড়তে হবে। শেষপর্যন্ত তাও হারাতে হল।  সূত্র: ইন্ডিয়ান টাইমস

আরজি/

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad