ভারতে নির্ভয়ার ৪ ধর্ষকের ফাঁসি কার্যকর
Back to Top

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল ২০২০ | ২৬ চৈত্র ১৪২৬

ভারতে নির্ভয়ার ৪ ধর্ষকের ফাঁসি কার্যকর

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:৩৭ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ২০, ২০২০

ভারতে নির্ভয়ার ৪ ধর্ষকের ফাঁসি কার্যকর

ভারতের দিল্লিতে আট বছর আগে চলন্ত বাসে এক প্যারামেডিকেল ছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যার দায়ে দেশটির সুপ্রিম কোর্টে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত চার আসামির ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে।

শুক্রবার আজ সকাল হতেই দিল্লির তিহাড় জেলে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দেয়া হলো নির্ভয়া কাণ্ডের চার প্রাপ্তবয়স্ক অপরাধীকে।

মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হলো মুকেশ সিংহ, বিনয় শর্মা, পবন গুপ্ত ও অক্ষয় কুমার সিংহের। খবর: আনন্দবাজার পত্রিকা

এই মামলায় মোট অপরাধী ৬ জন। বিচার চলাকালীন তিহাড় জেলেই আত্মহত্যা করে অপরাধী রাম সিংহ। নাবালক হওয়ায়, তিন বছর হোমে থেকেই সাজার মেয়াদ শেষ করে, ২০১৫ সালে মুক্তি মেলে আর এক অভিযুক্তের। যদিও পুলিশি তদন্তে উঠে এসেছিল, নির্ভয়ায় ওপর সেই রাতে সবচেয়ে নির্মমভাবে অত্যাচার চালিয়েছিল এই নাবালকই।

২০১২ সালের ১৬ ডিসেম্বর রাতে দিল্লির রাস্তায় চলন্ত বাসের মধ্যে গণধর্ষণ এবং ভয়াবহ নির্যাতনের শিকার হন প্যারামেডিক্যালের ওই ছাত্রী (২৩)। বাধা দিতে গিয়ে প্রচণ্ড মারধর খেতে হয় তার পুরুষ সঙ্গীকেও। ঘটনার পৈশাচিকতায় শিউরে উঠেছিল গোটা ভারত। তরুণীর আসল নাম পরে প্রকাশ্যে এলেও, নির্ভয়া নামেই তিনি পরিচিত হয়ে গিয়েছিলেন ততদিনে। শেষ পর্যন্ত বাঁচানো যায়নি নির্ভয়াকে। নির্মম অত্যাচারের ১৩ দিন পর ২৯ ডিসেম্বর মারাত্মক আহত ওই ছাত্রী সিঙ্গাপুরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

ঘটনার কয়েক দিনের মধ্যেই দিল্লি পুলিশের হাতে একে একে ধরা পড়ে বাসচালক রাম সিংহ, মুকেশ সিংহ (রাম সিংহের ভাই), বিনয় শর্মা, পবন গুপ্ত, অক্ষয় সিংহ এবং এক নাবালক। শুরু হয় জিজ্ঞাসাবাদ। পুলিশ দাবি করেছিল, হেফাজতে থাকার সময় অপরাধের কথা কবুল করেছিল ৬ জনই।

ভারতের একটি দ্রুত বিচার আদালত ২০১৩ সালে চার আসামির ফাঁসির রায় দেয়। পরের বছর হাইকোর্ট এবং গত বছর আপিল ওই সাজাই বহাল রাখে।

তাদের মধ্যে আসামি মুকেশ, পবন ও বিনয়ের রিভিউ আবেদন ২০১৮ সালের জুলাই মাসে খারিজ হয়ে যায়। আর অক্ষয়ের আবেদন খারিজ হয় গত বছর ১০ ডিসেম্বরে।

ওএস/এইচআর

 

আন্তর্জাতিক: আরও পড়ুন

আরও