ঐশীও হামলাকারী, সিসিটিভি ফুটেজ নেই: পুলিশ

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১২ ফাল্গুন ১৪২৬

ঐশীও হামলাকারী, সিসিটিভি ফুটেজ নেই: পুলিশ

পরিবর্তন ডেস্ক ৬:২২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১০, ২০২০

ঐশীও হামলাকারী, সিসিটিভি ফুটেজ নেই: পুলিশ

দিল্লির জওহরলাল বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলার ঘটনা নয়া মোড় নিয়েছে। জেএনইউয়ের হোস্টেলে হামলার ঘটনায় ঐশী ঘোষের দিকেও আঙুল তুলল দিল্লি পুলিশ। তবে, সন্ধ্যার হামলার ঘটনায় কোনো সিসিটিভি ফুটেজ পাওয়া যায়নি বলে দাবি করেছে পুলিশ।

দেশটির এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, গত সপ্তাহে দিল্লির ওই নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলা হয়, মুখোশ পরে জেএনইউয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উপর হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। ওই ঘটনায় শুক্রবার ৯ জন সন্দেহভাজনকে চিহ্নিত করে কয়েকজনের ছবি প্রকাশ করেছে দিল্লি পুলিশ।

জানা গেছে, অভিযুক্তদের মধ্যে বেশিরভাগই হলেন বাম ছাত্রনেতা। গত রোববার সন্ধ্যায় ওই নক্কারজনক হামলার ঘটনার পর দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীরা এর নিন্দায় সরব হন।

ওইদিনই জেএনইউয়ের হোস্টেল বা ছাত্রাবাসের ফি বাড়ানোর বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে আন্দোলন চলছিল। সেই আন্দোলনকে ঘিরে রোববার সেখানে একটি সংঘর্ষও বাঁধে। ওই ঘটনাকে ইঙ্গিত করেই দিল্লি পুলিশের কর্মকর্তারা ছাত্রনেতা চুনচুন কুমার, পঙ্কজ মিশ্র, ঐশী ঘোষ, ওয়াসকার বিজয়, সুচেতা তালুকদার, প্রিয়া রঞ্জন, দোলন সাওয়ান্ত, যোগেন্দ্র ভরদ্বাজ এবং বিকাশ প্যাটেলের নাম অভিযুক্ত হিসাবে উল্লেখ করেছেন।

ঐশী ঘোষ বাম-নিয়ন্ত্রিত জেএনইউ ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি এবং যোগেন্দ্র ভরদ্বাজ এবং বিকাশ প্যাটেল বিজেপির ছাত্র সংগঠন অখিল ভারতীয় ছাত্র পরিষদ বা এবিভিপির সদস্য বলে জানা গেছে।

ঘটনার প্রাথমিক তদন্তের পর দিল্লি পুলিশ জানিয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের হোস্টেল বা ছাত্রাবাসের বর্ধিত ফিসহ অন্যান্য ব্যয়বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন একদল ছাত্র। সেই সময়েই অনলাইন রেজিস্ট্রেশন বন্ধ করতে এবং তাদের বিক্ষোভ তথা ধর্মঘটকে কার্যকর করতে জেএনইউয়ের সার্ভার রুমে ঢুকে হামলা চালান ঐশী ঘোষ এবং অন্য বাম ছাত্রনেতারা।

যদিও পুলিশ স্বীকার করেছে যে রোববারের বহু সিসিটিভি ফুটেজ, ভিডিও রেকর্ডিং এবং প্রত্যক্ষদর্শীর অভাবে এই হামলার পিছনে থাকা মুখগুলোকে চিহ্নিত করতে বেশ অসুবিধাই হচ্ছিল তাঁদের।

রোববার সন্ধ্যায় জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে মুখোশধারী দুষ্কৃতীর দল হাম‌লা চালায় শিক্ষার্থী ও অধ্যাপকদের উপর। লোহার রড, লাঠি ইত্যাদি নিয়ে তারা চড়াও হয় সকলের উপরে। প্রায় তিন ঘণ্টা তারা তাণ্ডব চালায়। ঘটনায় আহত হন ৩৪ জন। ঘটনার পরপরই জানা যায় যে ঐশী ঘোষ ও আরও ১৯ জনের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছে দিল্লি পুলিশ।

এসবি

 

আন্তর্জাতিক: আরও পড়ুন

আরও