বিক্ষোভ ঠেকাতে এবার পশ্চিমবঙ্গে ইন্টারনেট বন্ধ

ঢাকা, সোমবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২০ | ১৪ মাঘ ১৪২৬

বিক্ষোভ ঠেকাতে এবার পশ্চিমবঙ্গে ইন্টারনেট বন্ধ

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৪৬ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯

বিক্ষোভ ঠেকাতে এবার পশ্চিমবঙ্গে ইন্টারনেট বন্ধ

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কড়া হুঁশিয়ারির পরেও নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন বিরোধী বিক্ষোভ পশ্চিমবঙ্গে কমার কোনও লক্ষণ নেই। বরং আন্দোলন আরও নতুন নতুন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ছে।

আজ রোববার টানা তৃতীয় দিন রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভকারীরা জাতীয় সড়ক অবরোধ করে আগুন জ্বালিয়ে রেলপথ অবরোধ করেছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তাই এবার ইন্টারনেট পরিষেবা নিয়ন্ত্রণের সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য।

দেশটির আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, পরিস্থিতি রোববারও নিয়ন্ত্রণে না আসায় ইন্টারনেট নিয়ন্ত্রণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে, মালদহ, মুর্শিদাবাদের বেশ কিছু এলাকা, দক্ষিণ ২৪ পরগণার ক্যানিং ও বারুইপুরের কিছু অংশ এবং বসিরহাট ও বারাসত মহকুমারও কিছু জায়গায় ইন্টারনেট নিয়ন্ত্রণের নির্দেশনা জারি করা হচ্ছে।

পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে সেই নিয়ন্ত্রণের পরিধি আরও বাড়ানো হতে পারে বলে জানা গিয়েছে নবান্ন সূত্রে। হাওড়া এবং উত্তর দিনাজপুরেও এই নিয়ন্ত্রণ কার্যকর করা হবে বলে জানা গিয়েছে।

নবান্ন সূত্রে খবর, এদিন সকাল থেকে দেখা যায় রাজ্যের নতুন নতুন জায়গায় আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ছে এবং সেই আন্দোলনকে কেন্দ্র করে অশান্তি ছড়াচ্ছে। রোববার থেকে মালদহ জেলার বিভিন্ন অংশে রেলপথ এবং জাতীয় সড়ক অবরোধের খবর এসেছে। একই রকম ভাবে বীরভূম জেলার মুরারইয়ের দুটি ব্লকেই বিক্ষোভ বাড়ছে বলে খবর এসেছে নবান্নে। পর পর রেল এবং সড়ক পথ অবরোধ, বিক্ষোভ চলছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার মল্লিকপুর, বারুইপুর, মহেশতলা, হটুগঞ্জে।

অন্যদিকে এদিন সকাল থেকে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করে রাখা হয়েছে উত্তর ২৪ পরগণায় আমাডাঙার সোনাডাঙা, ধানকল, কামদেবপুরে।

মালদহের ভালুকা এবং কুমেদপুর স্টেশনে একটি বিশাল জমায়েত ট্রেন লাইন অবরোধ করে রয়েছে। ফলে উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলওয়ের একের পর এক ট্রেন আটকে পড়েছে বিভিন্ন স্টেশনে। বাতিল করা হচ্ছে বহু ট্রেন।

এসবি

 

দক্ষিণ এশিয়া: আরও পড়ুন

আরও