‘ভারত হিন্দুরাষ্ট্র’, মুখ ফসকে বললেন বিজেপি নেতা

ঢাকা, রবিবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২০ | ১৩ মাঘ ১৪২৬

‘ভারত হিন্দুরাষ্ট্র’, মুখ ফসকে বললেন বিজেপি নেতা

পরিবর্তন ডেস্ক ২:২৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৯

‘ভারত হিন্দুরাষ্ট্র’, মুখ ফসকে বললেন বিজেপি নেতা

ছবি: পিটিআই

এনআরসির নেপথ্যে ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির আসল লক্ষ্য পার্লামেন্টে জানিয়ে দিলেন যোগী আদিত্যনাথের কেন্দ্র গোরক্ষপুর থেকে এমপি হওয়া অভিনেতা রবি কিষাণ।

মুখ ফসকে তিনি বলেই ফেললেন, “এ দেশে ১০০ কোটি হিন্দু। ভারত হিন্দু রাষ্ট্র। বিশ্বে অনেক ইসলামি ও খ্রিস্টান দেশ আছে। ফলে ভারতেরও নিজস্ব পরিচয় দরকার।”

এর আগে, গত অক্টোবর মাসের শুরুতে আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত বলেছিলেন, “ভারত হিন্দুরাষ্ট্র। যতক্ষণ একজনও ভারতকে মাতৃভূমি এবং নিজেকে হিন্দু বলে মনে করবেন, এই দেশ হিন্দুরাষ্ট্র থাকবে।”

আর আজ সকালে নরেন্দ্র মোদীর মন্ত্রিসভা যখন সবে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল অনুমোদন করেছে, সংসদ চত্বরে বিজেপি সাংসদদের উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো।

একের পর এক বিজেপি এমপিরা ব্যাখ্যা দিচ্ছেন, “বাংলাদেশ-পাকিস্তান-আফগানিস্তান ইসলামি দেশ। ভারতেরও নিজস্ব ঐতিহ্য, সংস্কৃতির পরিচয় থাকা উচিত।”

সে কারণেই কি শুধুমাত্র ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্বের বিল আসছে? এর জবাবে “না, না, তা কেন? ভারত তো ধর্মনিরপেক্ষ দেশ”—এমনই যুক্তি দিচ্ছিলেন নেতারা। কিন্তু মনের কথা বলে ফেললেন গোরক্ষপুরের সাংসদ।

কংগ্রেসের শশী তারুরেরা তখন বলছেন, বিজেপি ধর্মের ভিত্তিতে বিভাজন করতে চাইছে। আর বিজেপির সাংসদ রমেশ বিধুরি জবাব দিচ্ছেন, “যাঁরা এই বিলের বিরোধিতা করবেন, তাঁদের মুখোশ খুলে যাবে। অনুপ্রবেশকারীদের দেশে রেখে কারা উন্নয়ন রুখতে চায়, স্পষ্ট হবে।”

তাই বলে ধর্মের ভিত্তিতে বিভাজন? বিজেপি সাংসদের মত, “গাঁধীর আদর্শে শরণার্থীদের আশ্রয় দেওয়া হচ্ছে। ধর্মনিরপেক্ষতা বজায় রেখে।”

ভারতের কট্টর হিন্দুত্ববাদি সংগঠন আরএসএসের ‘হিন্দুরাষ্ট্র’ তৈরির পথেই যে হাঁটছেন মোদী-অমিত শাহ, তা নিয়ে কোন সংশয় নেই বিরোধীদের।

এমআইএম-এর নেতা আসাদুদ্দিন ওয়াইসি বলেন, “এই আইন আনার অর্থ ভারতকে ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্র করা এবং দ্বিজাতি তত্ত্বকে ফিরিয়ে আনা। ভারতীয় মুসলিম হিসেবে জিন্নার এই তত্ত্ব আমি খারিজ করি।”

বিজেপি সাংসদদের গতকালই শেখানো হয়েছে, নাগরিকত্ব বিল কী লক্ষ্যে আনা হচ্ছে? সেখানে দলের নেতা বা অধিকাংশ সাংসদ এই বার্তা পেয়েছেন, সঙ্ঘের ‘হিন্দুরাষ্ট্র’ পথেই হাঁটছে বিজেপি।

এ দেশের সব নাগরিককেই ‘হিন্দু’ বলে মনে করে সঙ্ঘ। কেউ যদি নিজেকে ‘হিন্দু নন’ বলে মনে করেন, তাঁদেরও ‘হিন্দু’ বলেই মনে করে সঙ্ঘ।

বিজেপির এক নেতার মতে, “নাগরিকত্ব বিল পাশের পর অ-মুসলিমরা নাগরিক হবেন। জাতীয় নাগরিক পঞ্জিতে চিহ্নিত করা হবে অনুপ্রবেশকারীদের। এর পরেই ষোল কলা পূর্ণ।”

এমএফ/

 

দক্ষিণ এশিয়া: আরও পড়ুন

আরও