মাছের আচার রেসিপি

ঢাকা, বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৭ | ৩ কার্তিক ১৪২৪

মাছের আচার রেসিপি

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:২০ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১০, ২০১৭

print
মাছের আচার রেসিপি

আমরা মাছে-ভাতে বাঙালি। কারণ মাছের ঝোল আর ভাত না হলে বাঙালির খাওয়া অসম্পূর্ণ থেকে যায়। কিন্তু মাছ দিয়ে শুধু ভাজা, ভুনা, পাতুরি বা ঝোলই কেন? মাছ দিয়ে নানা কায়দার নানা পদ বানিয়ে ফেলা যায়। স্ন্যাক্স থেকে শুরু করে আচার, সব কিছুই চেখে দেখা দরকার। আসুন আজ আমরা মাছের একটু ভিন্নস্বাদ চেখে দেখি। সেটি হচ্ছে আচারের স্বাদে মাছ।

উপকরণ :
মাছ এক কেজি
আদা থেঁতো করা ১/৪ কাপ
রসুন থেঁতো করা ১/৪ কাপ
কাঁচামরিচ ১০টা, ফালি করে কাটা (ইচ্ছা)
কারিপাতা ১০ আঁটি
লাল মরিচ গুঁড়ো : চার-পাঁচ টেবিল-চামচ
হলুদ গুঁড়ো দু’চা-চামচ
সর্ষেদানা এক চা-চামচ
মেথি এক চা-চামচ
জিরা গুঁড়ো এক চা-চামচ
ভিনিগার আধ কাপ
লবণ প্রযোজন মতো
ভাজার জন্য তেল

প্রণালি :
টুনা মাছ হলে দারুণ আচার হয়। না হলে অন্য মাছও নিতে পারেন। মাছ ভালো করে পরিষ্কার করে কিউব শেপে কেটে নিন। কাঁটা ছাড়িয়ে নিতে পারলে ভালো (চেষ্টা করবেন কাটা ছাড়া মাছ নেয়ার জন্য)। পেপার টাওয়েলে রেখে পানি শুকিয়ে ফেলুন। লবণ, হলুদ আর মরিচগুঁড়ো দিয়ে ম্যারিনেট করুন মাছের টুকরোগুলো। আধঘণ্টা পরে মাঝারি আঁচে ডুবো তেলে ভেজে নিন। সোনালি-বাদামি রং ধরলে নামিয়ে নিন। তেলটা ফেলবেন না কাজে লাগবে। সর্ষে, জিরা আর মৌরি ছেঁচে করে তেলে মিশিয়ে দিন। খুব মিহি করে ছেঁচার দরকার নাই। আদা, রসুন, কারিপাতা আর কাঁচা মরিচ দিন এবার। না পুড়িয়ে শ্যালো ফ্রাই করে নিন। কাঁচাভাবটা চলে গেলে ভিনিগার মিশিয়ে দিন। আরো বেশি গ্রেভি চাইলে একটু পানিও দিতে পারেন। আঁচ বন্ধ করে মাছের টুকরোগুলো মিশিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। তবে খেয়াল রাখবেন যেনো মাছ ভেঙে না যায়। তারপর কাচের জারে ভরে অন্তত দু’দিন রেখে দিন খাওয়ার আগে। না হলে ফ্লেভারগুলো ঠিকমতো মিশবে না।

তথ্য ও ছবি : ইন্টারনেট

ইসি/

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad