দিনাজপুরে বজ্রপাতে ৮ জনের মৃত্যু

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

দিনাজপুরে বজ্রপাতে ৮ জনের মৃত্যু

একরাম তালুকদার, দিনাজপুর ৭:২১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৭

print
দিনাজপুরে বজ্রপাতে ৮ জনের মৃত্যু

দিনাজপুরে পৃথক বজ্রপাতে ৩ নারীসহ ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে বিরল উপজেলার রাজারামপুর গ্রামে একসাথে ৪ কৃষকের মৃত্যু হয়। শনিবার এ ঘটনায় আহত হয়েছে ৭ জন।

.

মৃতরা হলেন— বিরল উপজেলার পূর্ব রাজারামপুর গ্রামের মৃত হরিপদ রায়ের ছেলে কুশো চন্দ্র রায় (১৭), একই গ্রামের প্রদীপ চন্দ্র রায়ের স্ত্রী বণিতা রানী রায় (৩০), সদর উপজেলার মহাদেবপুর গ্রামের আব্দুল লতিফের ছেলে মেসের আলী (৩৬), একই গ্রামের মৃত মোস্তাক আলীর ছেলে শুকুর উদ্দীন (৪০), চিরিরবন্দর উপজেলার চকরামপুর গ্রামের শহীদুল ইসলামের স্ত্রী গৃহবধূ হালিমা খাতুন (২৩), খানসামা উপজেলার দুয়ানী কাশিমনগর গ্রামের সত্যেন্দ্রনাথ রায়ের ছেলে দীনবন্ধু রায় (৪০), বোচাগঞ্জ উপজেলার মালতগাঁও গ্রামের নারায়ন চন্দ্র রায়ের স্ত্রী গীতা রানী রায় (৫০) ও বিরল উপজেলার মুকলিশপুর জয়হার গ্রামের হেলাল উদ্দীনের ছেলে সাকিবুল হাসান সোহাগ (১২)।

বিরল থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল মজিদ জানান, শনিবার দুপুরে ১২ জন কৃষক উপজেলার পূর্ব রাজারামপুর গ্রামের ধান ক্ষেতে কাজ করছিলেন। এ সময় বৃষ্টি হলে তারা দৌঁড়ে ছাইতন তলা নামক স্থানে একটি মেশিন ঘরে আশ্রয় নেন। সেখানে বজ্রপাতে ঘটনাস্থলে মেসের আলী ও শুকুর উদ্দীন মারা যান। আহত অবস্থায় ৯ জনকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে কুশো চন্দ্র রায় ও বণিতা রানী মারা যান। অন্য ৭ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এর আগে শনিবার সকালে চিরিরবন্দরের চকরামপুর গ্রামে বজ্রপাতে মারা যান শহীদুল ইসলামের স্ত্রী গৃহবধূ হালিমা খাতুন (২৩)। বৃষ্টির সময় বাড়ির আঙ্গিনায় থাকা রান্নার চুলা ঢাকা দিতে ঘর থেকে বের হলে বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই হালিমার মৃত্যু হয়।

চিরিরবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারেসুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায় বজ্রপাতে দীনবন্ধু রায় (৪০) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। তিনি খানসামা উপজেলার দুয়ানী কাশিমনগর গ্রামের সত্যেন্দ্রনাথ রায় ছেলে। 

শনিবার সকাল ৭ টার দিকে খানসামা উপজেলার জয়গঞ্জ এলাকার দুয়ানী কাশিমনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। দিনবন্ধু রায় সকাল বেলা গরু নিয়ে বাড়ির বাইরে গেলে পথিমথ্যে বজ্রপাতে মৃত্যু হয় তার।

দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলায় বজ্রপাতে মারা গেছে গীতা রানী রায় (৫০) নামে আরও এক নারী। গীতা রানী বোচাগঞ্জ উপজেলার মালতগাঁও গ্রামের নারায়ন চন্দ্র রায়ের স্ত্রী।

বোচাগঞ্জ থানার অফিসার্স ইনচার্জ আরজু মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন জানান, শনিবার দুপুরে বাড়ির পাশে মাছ ধরার সময় বজ্রপাতে গীতা রানী মারা যান।

দিনাজপুরের বিরল উপজেলায় বজ্রপাতে সাকিবুল হাসান সোহাগ (১২) নামে আরও একজনের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া গেছে। সাকিবুল হাসান সোহাগ বিরল উপজেলার মুকলিশপুর জয়হার গ্রামের হেলাল উদ্দীনের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, শনিবার দুপুরে বাড়ির পাশে খালে মাছ ধরার সময় বজ্রপাতে সে গুরুতর আহত হয়। এরপর স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিরল থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল মজিদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এটি/এসবি

দিনাজপুরে বজ্রপাতে ৪ কৃষকের মৃত্যু

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad