‘একটু স্নেহের আশায় সৎবাবাকে টাকা দিয়েছি’
Back to Top

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল ২০২০ | ২৬ চৈত্র ১৪২৬

‘একটু স্নেহের আশায় সৎবাবাকে টাকা দিয়েছি’

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ৭:১৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৫, ২০২০

‘একটু স্নেহের আশায় সৎবাবাকে টাকা দিয়েছি’

চলন্ত বাসে ঘুমন্ত অবস্থায় মেয়েকে রেখে টাকা-পয়সা নিয়ে চম্পট দিয়েছে এক সৎবাবা। অচেতন অবস্থায় টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার বাশতৈল পশ্চিমপাড়া ধানখেত থেকে তাকে উদ্ধার করে পুলিশ।

পরে তাকে অচেতন অবস্থায় কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভুক্তভোগী ওই মেয়ের নাম রিফা আক্তার (২৫)। সৎবাবার নাম আলমগীর হোসেন। বাড়ি গাইবান্ধা সদর উপজেলার শহরতলীতে।

জানা যায়, পাঁচ বছর বয়সে রিফার মা মারা যান। মায়ের মৃত্যুর পর বাবা দুলাল দ্বিতীয় বিয়ে করেন। কিছুদিন না যেতেই রিফার বাবাও মারা যান। পরে তার সৎ মায়ের অন্যত্র বিয়ে হয়। সৎবাবা ও মায়ের অনাদর-অবহেলায় একদিন রিফা বাড়ি ছেড়ে গাজীপুরের টঙ্গি জামাইবাজার এলাকায় লতা ওয়াশিং ফ্যাক্টরিতে কাজ নেয়। কাজের পর সৎবাবা তার সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলে।

রিফা তার সৎবাবা-মায়ের আদর স্নেহের আশায় প্রতিমাসে বেতনের একটা অংশ সৎবাবার হাতে তুলে দেয়। এমনিভাবে চলে প্রায় ১০ বছর। এরই মধ্যে সৎবাবা আলমগীরের দৃষ্টি পড়ে রিফার নামে থাকা তিন বিঘা জমির ওপর। ছলেবলে এই জমি আত্মসাতে ব্যর্থ হয়ে অবশেষে ভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে ওই সৎবাবা।

ঘটনার দিন গত সোমবার রাতে সৎবাবা আলমগীর রিফাকে নিয়ে গাইবান্ধার উদ্দেশে রওনা দেন। কিন্তু চন্দ্রা থেকে লোকাল বাসে উঠলে রিফা এর কারণ জানতে চায়। হাঁটুভাঙ্গা এলাকায় তার এক বন্ধুর বাসায় রান্না করা হয়েছে। সেখানে খাওয়া-দাওয়া করে তারপর বাড়ি যাবে বলে তাকে জানানো হয়।

এরই মধ্যে চলন্ত বাসে সৎবাবা তাকে শশা এবং আমড়ার সাথে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাওয়ান। একসময় সে বাসেই অচেতন হয়ে পড়ে। পরে তাকে অচেতন অবস্থায় গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

জ্ঞান ফিরে বুধবার দুপুরে রিফা দেখতে পায় সে কুমুদিনী হাসপাতালের বিছানায়। এখন সে কিছু কথা বলতে পারছে বলে মহিলা মেডিসিন ওয়ার্ডের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সীমান্ত জানিয়েছেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রিফা বলে, একটু আদর-স্নেহের আশায় বাবাকে টাকা দিয়েছি। তবু তা মেলেনি।

মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সায়েদুর রহমান বলেন, রিফার নামে থাকা তিন বিঘা জমি আত্মসাৎ করার জন্যই যেকোনো উপায়ে রিফাকে সরিয়ে দেয়ার উদ্দেশ্যে সৎবাবা এই পন্থা অবলম্বন করেছে।

রিফা সুস্থ হলেই ওই সৎ বাবার বিরুদ্ধে মামলা করা হবে বলে তিনি জানান।

এইচআর

 

সমগ্রবাংলা: আরও পড়ুন

আরও