বাস থেকে নামিয়ে বিএনপিকর্মীকে কুপিয়ে হত্যা
Back to Top

ঢাকা, শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০ | ২৬ চৈত্র ১৪২৬

বাস থেকে নামিয়ে বিএনপিকর্মীকে কুপিয়ে হত্যা

বগুড়া প্রতিনিধি ৫:২৫ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০

বাস থেকে নামিয়ে বিএনপিকর্মীকে কুপিয়ে হত্যা

বগুড়ায় প্রকাশ্যে বাস থেকে নামিয়ে নিয়ে আপেল নামে এক বিএনপিকর্মীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় তার বড় ভাই বিএনপি নেতা আল মামুনকে কুপিয়ে জখম করা হয়।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে বগুড়া-রংপুর মহাসড়কে সদর উপজেলার পাকুড়তলা নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আপেল (৩৫) বগুড়া সদরের গোকুল ইউনিয়নের পলাশবাড়ি গ্রামের আবদুল মান্নানের ছেলে। তিনি ইউনিয়ন বিএনপির সক্রিয় কর্মী ছিলেন।

তার বড় ভাই আল মামুন গোকুল ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড বিএনপির সদস্য।

জানা গেছে, এদিন সকালে আপেল ও তার বড় ভাই মামুন গরু কেনার জন্য বাসে করে গোবিন্দগঞ্জ যাচ্ছিলেন। পথে চন্ডিহারা বন্দরের আগে পাকুড়তলা নামকস্থানে গোকুল ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক সভাপতি ও জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মিজানুর রহমান ও তার সহযোগীরা বাসটি থামায়। এরপর শতশত মানুষের সামনে বাসের ভেতর থেকে দুই ভাইকে টেনে-হেঁচড়ে নামিয়ে নেয়।

তাদেরকে মহাসড়কের পাশে একটি লিচু বাগানে নিয়ে গিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ফেলে রেখে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই আপেল মারা যান এবং মামুনের শরীরে বিভিন্নস্থানে জখম করা হয়। পরে স্থানীয় লোকজন মামুনকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

গোকুল ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সুমন আহম্মেদ বিপুল বলেন, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ নিজ দলের মধ্যে গ্রুপিং সৃষ্টি হয়। এর জের ধরে ২০১৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি গোকুল হল বন্দরে মিজানের সহযোগী সনি খুন হন। সনি হত্যা মামলার আসামি মামুন। এরপর থেকে মিজান গ্রুপের সঙ্গে তাদের দ্বন্দ্ব বেড়ে যায়। গত ২১ অক্টোবর মামুন আদালতে হাজিরা দিয়ে ফেরার পথে শহরের আটাপড়া এলাকায় তাকে অটোরিকশা থেকে নামিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে মিজান ও তার সহযোগীরা।

বগুড়া সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রেজাউল করিম রেজা বলেন, দুর্বৃত্তরা পূর্ব বিরোধের জের ধরে ছাগল বিক্রির নামে ডেকে এনে আপেলকে কুপিয়ে হত্যা ও তার ভাই মামুনের আঙুলগুলো প্রায় বিচ্ছিন্ন করে ফেলেছে।

আপেলের মরদেহ উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। হামলাকারীদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

ওএস/এসবি

 

সমগ্রবাংলা: আরও পড়ুন

আরও