জয়পুরহাটে কাপড় ব্যবসায়ীর স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা

ঢাকা, রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১১ ফাল্গুন ১৪২৬

জয়পুরহাটে কাপড় ব্যবসায়ীর স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা

জয়পুরহাট প্রতিনিধি ৮:৪৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০২০

জয়পুরহাটে কাপড় ব্যবসায়ীর স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা

জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে রায়কালী বাজারের বিশিষ্ট কাপড় ব্যবসায়ী বিশ্বনাথ বসাকের স্ত্রী শ্রীমতি সপ্তমী রানী বসাক (৫১)কে তার নিজ বাড়িতে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

রোববার দুপুরে উপজেলার রায়কালী গ্রামে নিজ বাড়িতে এ হত্যাকাণ্ড হয়, যা তার পরিবারের সদস্যরা জানতে পরেছেন দুপুর আড়াইটার দিকে।

নৃশংস এ হত্যার ‘মোটিভ’ (হত্যা রহস্য) সর্ম্পকে জানাতে না পারলেও ‘পূর্ব শত্রুতার জের’ অথবা ‘ব্যবসা সংক্রান্ত আর্থিক লেনদেন’কে কেন্দ্র করে এ হত্যাকাণ্ডটি সংঘটিত হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা পুলিশের।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, রোববার সকালে উপজেলার রায়কালী বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী বিশ্বনাথ বসাক তার স্ত্রী শ্রীমতি সপ্তমী রানী বসাককে বাড়িতে রেখে প্রতিদিনের ন্যায় রায়কালী বাজারে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে যান। ওই সময় একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে মাকে রেখে তার ছেলে ও ছেলের বৌ (পুত্রবধূ) দুজন একসাথে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান। তখন বাড়িটি প্রায় ফাঁকা হয়ে যায়। আর ওই সময়টিই বেছে নেয় হত্যাকারিরা।

দুপুরের খাবার খেতে আনুমানিক দুপুর আড়াইটার দিকে ব্যবসায়ী বিশ্বনাথ বসাক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে নিজ বাড়িতে ফিরে গিয়ে দেখেন তার স্ত্রী রক্তাক্ত ও গলা কাটা অবস্থায় শয়ন ঘরের মধ্যে পড়ে আছেন। এ সময় তার চিৎকারে প্রতিবেশী ও এলাকার লোকজন ওই বাড়িতে ছুটে যান। খবর পেয়ে পুলিশ সদস্যসহ আক্কেলপুর থানার ওসি মো. আবু ওবায়েদ ঘটনাস্থলে যান।

বিকাল ৫টায় এ রিপোর্ট লেখার সময় এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সন্দেহ ভাজন কেউ আটক হয়নি বা হত্যা রহস্য উদঘাটিত হয় নি।

আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবু ওবায়েদ জানান, লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি শেষে ময়নাতদন্তের জন্য সপ্তমী রানী বসাকের মরদেহ জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। মরদেহের হাতে সোনার বালা, কানে সোনার দুল এবং গলায় সোনার চেন ছিল। যা থেকে সহজেই অনুমান করা যায় যে, টাকা-পয়সা বা স্বর্ণালঙ্কার লুটপাট করাই হত্যাকারিদের উদ্দেশ্য ছিল না।

ওসি জানান, প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, হত্যাকাণ্ডের পর ওই বাড়ি থেকে কোনো টাকা পয়সা বা স্বর্ণালঙ্কার লুটপাট হয়নি। তাই পূর্ব শত্রুতার জের বা ব্যবসা সংক্রান্ত আর্থিক লেনদেনকে কেন্দ্র করে এ হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হতে পারে । তবে পূর্ণ তদন্ত ও ময়নাতদন্তের রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত এ হত্যার কারণ বলা যাবে না।

সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখার সময় নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে এ হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিল বলে জানান ওসি মো. আবু ওবায়েদ।

এইচআর

 

সমগ্রবাংলা: আরও পড়ুন

আরও