কুরআনের সত্যতার ৬ অভ্রান্ত প্রমাণ

ঢাকা, শনিবার, ২০ জানুয়ারি ২০১৮ | ৭ মাঘ ১৪২৪

কুরআনের সত্যতার ৬ অভ্রান্ত প্রমাণ

মাহফুয আহমদ ৮:২৭ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৭

print
কুরআনের সত্যতার ৬ অভ্রান্ত প্রমাণ

পবিত্র কুরআন যে আল্লাহর বাণী- এতে মুসলমানের বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই। এমনকি নীতিবান অনেক অমুসলিমও তা স্বীকার করেন। অবশ্য নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কুরআন রচনা করেছেন- এমন ধারণাও পশ্চিমাবিশ্বের অনেকে পোষণ করে! এমনকি পশ্চিমাবিশ্বের যেসব লেখক ইসলামের প্রতি সহমর্মী বলে মনে করা হয়- সেই তারাও মানতে রাজি নন যে, কুরআন আল্লাহর পক্ষ থেকে নাজিলকৃত ঐশীবাণী! এখানে সুপ্রমাণিত ঐতিহাসিক তথ্য এবং বুদ্ধি ও বিবেকের আলোকে এবিষয়ে কিছুটা আলোকপাত করা জরুরি মনে করছি-

এক. মক্কাবাসী সকলের একথা জানা ছিল যে, নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিরক্ষর; তিনি লিখতে ও পড়তে জানেন না। স্বয়ং কুরআন এ সম্বন্ধে বলছে, ‘সুতরাং তোমরা সবাই বিশ্বাস স্থাপন করো আল্লাহর ওপর, তাঁর প্রেরিত নিরক্ষর নবীর ওপর, যিনি বিশ্বাস রাখেন আল্লাহ এবং তাঁর সমস্ত কালামের ওপর। তাঁর অনুসরণ করো যাতে সরল পথপ্রাপ্ত হতে পার।’ (সূরা আ’রাফ, আয়াত : ১৫৮)

নির্ভরযোগ্য সূত্রে বর্ণিত আছে, নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বয়স যখন ৪০ বছর এবং ফেরেশতা জিবরাঈল প্রথম ঐশীবাণী নিয়ে আসলেন, ‘ইকরা’ (পড়)- তখন তাঁর সোজা উত্তর ছিল, ‘আমি তো পড়তে পারি না।’ (সহিহ বুখারি : ৪) এটা তো একেবারে শুরুর দিকের কথা, তখন তো পুরো কুরআন নাজিলই হয় নি! সুতরাং নিশ্চয় যেভাবে কুরআন বলছে যে, নবী নিরক্ষর হওয়াটাই এই মহাগ্রন্থ ঐশীবাণী হওয়ার এক জাজ্বল্য প্রমাণ। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘আপনি তো এর পূর্বে কোনো কিতাব পাঠ করেননি এবং স্বীয় দক্ষিণ হস্ত দ্বারা কোনো কিতাব লিখেননি। এরূপ হলে মিথ্যাবাদীরা অবশ্যই সন্দেহ পোষণ করত।’ (সূরা আনকাবুত, আয়াত : ৪৮) 

দুই. নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনচরিত অধ্যয়ন করলে আমরা দেখতে পাই, কখনও কখনও তাঁর সামনে কোনো প্রশ্ন বা সমস্যা পেশ করা হয়েছে, কিন্তু ঐশীবাণী ব্যতিরেকে তিনি সেটা সমাধান করতে সক্ষম ছিলেন না। বরং কখনও ঐশীবাণীর অপেক্ষায় সপ্তাহ বা মাস অতিবাহিত করতে হয়েছে আর এজন্য মুশরিকদের গালি ও অপবাদ শুনতে হয়েছে। যদি কুরআন তাঁর নিজেরই রচনা হয়ে থাকে, তবে এই অপেক্ষার কী হেতু ছিল? উদাহরণস্বরূপ দেখুন! মদিনায় মুসলমানগণ প্রথমে বায়তুল মাকদিসের দিকে ফিরে নামাজ পড়তেন। নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আশা ছিল বায়তুল্লাহর দিকে ফিরে নামাজ পড়বেন। কিন্তু তিনি নিজে থেকে কিবলা পরিবর্তন করেননি। বরং আল্লাহ তায়ালার হুকুমের অপেক্ষায় বহুদিন যাপন করেছেন। কুরআন বলছে, ‘নিশ্চয়ই আমি আপনাকে বারবার আকাশের দিকে তাকাতে দেখি। অতএব, অবশ্যই আমি আপনাকে সে কেবলার দিকেই ঘুরিয়ে দেব যাকে আপনি পছন্দ করেন। এখন আপনি মসজিদুল-হারামের দিকে মুখ করুন।’ (সূরা বাকারা, আয়াত : ১৪৪) এখানেই শেষ নয়। যখন কিবলা পরিবর্তনের এই ঐশীবাণী মুসলমানদের নিকট পৌঁছে, তখন তারা জামাতে নামাজরত ছিলেন। আদেশ শোনামাত্রই তারা বায়তুল্লাহর দিকে মুখ ফিরিয়ে নেন। সেই মসজিদটি আজও মদিনায় ‘মসজিদে যুল কিবলাতাইন’ নামে সুরক্ষিত আছে।

এজাতীয় আরও অনেক দৃষ্টান্ত থেকে প্রতিভাত হয়, কুরআন আল্লাহর পক্ষ থেকে নাজিলকৃত ঐশীবাণী। নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিজের রচনা হলে এমন অপেক্ষা আর সময় ক্ষেপণের কোনো প্রয়োজনই ছিল না। 

তিন. ইসলামের দ্বিতীয় মৌলিক উৎস হচ্ছে হাদিস। নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কথা, কাজ ও সমর্থনকে পরিভাষায় হাদিস বলে। বলাবাহুল্য, নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মাতৃভাষাই ছিল আরবি। কিন্তু কুরআনের আরবি এবং হাদিসের আরবির মধ্যে আমরা বিরাট তফাৎ লক্ষ করি। কেননা কুরআনের শব্দচয়ন, বাক্যের গাঁথুনি এবং বর্ণনাশৈলী নবীজির দৈনন্দিন জীবনে স্বাভাবিকভাবে কথাবার্তায় ব্যবহৃত আরবির চেয়ে উচ্চাঙ্গের এবং অতুলনীয়। তাছাড়া কুরআনের বাণী নাজিল হওয়ার সময় নবীজির মাঝে বিশেষ অবস্থা পরিলক্ষিত হত। যেমন- চেহারা লালবর্ণ ধারণ করা, তীব্র শীতকালেও শরীর থেকে ঘাম ঝরা এবং কিছুক্ষণের জন্য নীরব হয়ে যাওয়া- এসব তাঁর হাদিস বলার অবস্থার সম্পূর্ণ বিপরীত। সুতরাং এসকল ব্যতিক্রম থেকে অনায়াসে বোঝা যাচ্ছে যে, কুরআন আল্লাহর পক্ষ থেকে নাজিলকৃত ঐশীবাণী। 

চার. কুরআনের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ হলো পূর্ববর্তী জাতিগুলোর ইতিহাস, ঐতিহ্য ও কাহিনী সম্বলিত। এসব জাতি ও কাহিনীর সঙ্গে নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কোনো পূর্বপরিচিতি ছিল না। একমাত্র ঐশীবাণীর সুবাদে তিনি এসব জানতে সক্ষম হন। যেমন কুরআন বলছে, ‘মূসাকে যখন আমি নির্দেশনামা দিয়েছিলাম, তখন আপনি পশ্চিম প্রান্তে ছিলেন না এবং আপনি প্রত্যক্ষদর্শীও ছিলেন না। কিন্তু আমি অনেক সম্প্রদায় সৃষ্টি করেছিলাম, অতপর তাদের অনেক যুগ অতিবাহিত হয়েছে। আর আপনি মাদইয়ানবাসীদের মধ্যে ছিলেন না যে, তাদের কাছে আমার আয়াতসমূহ পাঠ করতেন। কিন্তু আমিই ছিলাম রসূল প্রেরণকারী ‘ (সূরা কাসাস, আয়াত : ৪৪-৪৫) তো নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যদি এজাতীয় ঘটনাগুলো কোনো ইহুদি অথবা খ্রিস্টান শিক্ষক থেকে শিখে থাকতেন, তাহলে আল্লাহর পক্ষ থেকে নাজিলকৃত কুরআনের উদ্ধৃতি দেয়ার পর ওইসব শিক্ষক কিংবা সমাজের অপরাপর লোকেরা বলে উঠত যে, মুহাম্মদ! তুমি তো এসব আমাদের থেকে শুনেছ, শিখেছ? অথচা কেউ কখনও এমন দাবি উত্থাপন করেনি। 

পাঁচ. কুরআন পাঠ করলে আমরা দেখতে পাই, কখনও কুরআন নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কোনো কাজকে সংশোধন করে দিয়েছে এবং দিকনির্দেশনা প্রদান করেছে। যেমন- একদিন তিনি কোরাইশের সম্ভ্রান্ত ব্যক্তিদের মজলিশে বসা ছিলেন; দাওয়াতের উদ্দেশ্যে, ইত্যবসরে অন্ধ সাহাবি আবদুল্লাহ ইবনে উম্মে মাকতুম আসলে তার প্রতি তিনি মনোযোগ দিতে পারেননি। কুরআন এসম্পর্কে বলছে, ‘তিনি ভ্রূকুঞ্চিত করলেন এবং মুখ ফিরিয়ে নিলেন। কারণ, তাঁর কাছে এক অন্ধ আগমন করল। আপনি কি জানেন, সে হয়তো পরিশুদ্ধ হত।’ (সূরা আবাসা, আয়াত : ১-৩) এরকম আরও কিছু দৃষ্টান্ত কুরআনে পাওয়া যায়। যদি কুরআন নবীজির নিজেরই রচনা হয়ে থাকত, তবে নিজেকে অনুসারীদের সামনে এভাবে উপস্থাপনের কী প্রয়োজন ছিল? 

ছয়. কুরআন যে আল্লাহর পক্ষ থেকে নাজিলকৃত ঐশীবাণী- এর স্বপক্ষে প্রকৃষ্ট একটি দলিল এই, নবীজি নিজে থেকে কুরআনে কোনো কিছু সংযোজন-বিয়োজন কিংবা পরিবর্তন-পরিবর্ধনের ক্ষমতা রাখেন না। কুরআন কত স্পষ্টভাষায় বলছে, ‘আর যখন তাদের কাছে আমার প্রকৃষ্ট আয়াতসমূহ পাঠ করা হয়, তখন সে সমস্ত লোক বলে, যাদের আশা নেই আমার সাক্ষাতের, নিয়ে এসো কোনো কেুরআন এটি ছাড়া, অথবা একে পরিবর্তিত করে দাও। তাহলে বলে দাও, একে নিজের পক্ষ থেকে পরিবর্তিত করা আমার কাজ নয়। আমি সে নির্দেশেরই আনুগত্য করি, যা আমার কাছে আসে। আমি যদি স্বীয় প্রতিপালকের নাফরমানি করি, তবে কঠিন দিবসের আজাবের ভয় করি। বলে দাও, যদি আল্লাহ চাইতেন তবে আমি এটি তোমাদের সামনে পড়তাম না, আর নাইবা তিনি তোমাদেরেকে অবহিত করতেন এ সম্পর্কে। কারণ আমি তোমাদের মাঝে ইতিপূর্বেও একটা বয়স অতিবাহিত করেছি। তারপরেও কি তোমরা চিন্তা করবে না?’ (সূরা ইউনুস, আয়াত : ১৫-১৬) 

/এএসটি

print
 
.

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad