আবাসস্থল হওয়া উচিত ত্রুটিহীন

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৭ | ৯ কার্তিক ১৪২৪

আবাসস্থল হওয়া উচিত ত্রুটিহীন

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৫০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৭

print
আবাসস্থল হওয়া উচিত ত্রুটিহীন

আপনার বাড়ির দেয়ালের যদি পলেস্তারা খসে যায় অথবা ফাটল ধরে মেঝেতে, তাহলে নিশ্চয়ই বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যাবেন না, তাই না? বরং ঠিকঠাক করার চেষ্টার করবেন ত্রুটিগুলো। এটাই তো স্বাভাবিক! আবার ঘরের কিছু আসবাব হয়তো বহুব্যবহারে পুরোনো হয়ে গেছে, যা আবার কেনা সাধ্যের বাইরে। অথচ পুরোনোটা ফেলে দেয়াও যাবে না, কী করবেন তখন? এমন ধরনের সমস্যার মুখোমুখী আমরা প্রায়ই হই। বিশেষ করে মধ্যবিত্ত পরিবারে এসব ব্যাপার যেন নিত্যসঙ্গী!

বাড়ির সৌন্দর্য বাড়াতে আসলে খুব বেশি অর্থের প্রয়োজন হয় না। প্রয়োজন হয় সামান্য বুদ্ধি, কিছু কৌশল এবং গৃহিণীর রুচিবোধ!

স্বল্প ব্যয়ে এবং কিছু কৌশল খাটিয়ে ঘরের এসব ত্রুটি সারিয়ে তোলা যায় খুব সহজেই। ঠিক সারানো নয়, লুকোনো! আসুন জেনে নেই তারই নানা দিক।

১. ঘরে যদি কোনা ভেঙ্গে যাওয়া বা ডাঁট ছুটে যাওয়া মগ থাকে, কাজে লাগিয়ে ফেলতে পারেন সেগুলোকেও! ভাঙা মগে গ্লাস পেইন্ট দিয়ে খানিক কারুকাজ করে এতে ফুল সাজিয়ে বা গাছ লাগিয়ে রাখে দিন বাথরুমে বা বারান্দায়।

২. রঙচটা পুরোনো ফার্নিচারে আবার রং করতে পারেন। রং করতে না চাইলে বার্নিশও করতে পারেন।

৩. ড্রেসিং টেবিল বা ওয়ারড্রোবের ওপরে বিছিয়ে দিতে পারেন হাতের কাজ করা অথবা ব্লকের তৈরি কভার। তাতে ত্রুটি ঢাকার পাশাপাশি সৌন্দর্যও বাড়বে।

৪. মেঝের ত্রুটি ঢাকতে কার্পেট বা শতরঞ্জির তুলনা নেই। নকশাদার শীতলপাটিও এ ক্ষেত্রে সাহায্য করবে। অথবা মেঝেজুড়ে আঁকতে পারেন রঙিন আলপনা, এতেও মেঝের ত্রুটি ঢাকা পড়ে যাবে।

৫. দরজা-জানালার চৌকাঠের ফাটল বা যেকোনো ধরনের ত্রুটি ঢাকতে তাতে তুলে দিন লতানো কোনো গাছ। আকর্ষণীয় পর্দাও ব্যবহার করতে পারেন।

৬. অনেক পুরোনো বাড়িতে দেখা যায় ঘরের ভেতর দিয়ে পানির লাইন গিয়েছে। ঘরের ভেতর পাইপগুলোর উপস্থিতি ঘরের সৌন্দর্যতে বাধ সাধে। পাইপগুলো রং করে এর গায়ে বসিয়ে দিন ছোট ছোট পুতুল বা কাগজ কেটে তৈরি করা ফুল। প্লাস্টিকের লতানো গাছ কিনে সেটা দিয়েও ঢেকে দিতে পারেন পাইপ।

৭. দেয়ালের ফাটল ধরলে বা পলেস্তারা উঠে গেলে সিমেন্ট এবং রং ব্যবহার করে তা ঠিকঠাক করে ফেলুন। সেটা যদি সম্ভব না হয় তাহলে তৈরি করে ফেলুন একটি ওয়ালম্যাট এবং টাঙিয়ে দিন দেয়ালে, ঢেকে গেল ত্রুটি! আপনার বাচ্চার আঁকা ছবি বা স্মৃতিবিজড়িত কোনো ফটোগ্রাফ বড় করে বাঁধিয়েও টাঙাতে পারেন।

তথ্য সূত্র : বিএস

ইসি/

print
 

আলোচিত সংবাদ

nilsagor ad