পোষা বিড়ালকে গোসল করানোর কৌশল

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৬ ফাল্গুন ১৪২৬

পোষা বিড়ালকে গোসল করানোর কৌশল

পরিবর্তন ডেস্ক ২:৫৭ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২০

পোষা বিড়ালকে গোসল করানোর কৌশল

যারা বাড়িতে বিড়াল পালেন তারা জানেন যে বিড়াল সাবান পানিতে নামাকে রীতিমত ঘৃণা করে। তাই বিড়ালকে গোসল করানো ব্যাপারটা জটিল মনে হলেও কিছু উপায় আছে যা অনুসরণ করলে আপনি আর আপনার বিড়াল উভয়ই স্বস্তি বোধ করবে। এই ধুলাবালির দেশে বেড়ালদের নিয়মিত গোসলের প্রয়োজন। বিড়াল ভিজতে পছন্দ করেনা যদিও, কিন্তু কিছু কৌশল নিলে তাদের একটা আরামদায়ক গোসল উপহার দিতে পারবেন।

সবার আগে দরকার বিড়ালের জন্য উপযোগী শ্যাম্পু। এ ধরণের শ্যাম্পু যেকোনো সুপারসপে, কাঁটাবনের পশুপাখির দোকান কিংবা যেকোনো পশু চিকিৎসকের ক্লিনিকে পাবেন। দাম পড়বে ৩০০ থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে। এ ধরণের শ্যম্পুতে কোনো রাসায়নিক ও উগ্র গন্ধ থাকেনা। তাই তারা বিরক্ত হবেনা। ভুলেও কখনো মানুষের ব্যবহার্য কোনো শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না। কারণ মানুষ আর বেড়ালের ত্বক ও চুলের পিএইচ বা জলীয় মাত্রা আলাদা হয়।

বড় গামলা বা বাথ টাব ব্যবহার করুন। যদি বাথরুমে না করান তাহলে টাবের নিচে কোনো প্লাস্টিকের ম্যাট বা পাপস রেখে নিন যাতে পানি ছিটে ঘর না ভেজে। টাবে ততটুকুই হালকা গরম পানি নিন যতটুকু বিড়ালকে গোসল করাতে লাগে।

আপনার বিড়াল যদি গোসল ব্যাপারটাকে ভয় পায় তাহলে সে হিস হিস শব্দ করবে কিংবা আপনাকে কামড়েও দিতে পারে। সতর্ক থাকুন। বদ্ধ জায়গায় নয়, বরং খোলা স্পেসে বিড়ালকে গোসল করান।

আপনার বিড়ালকে প্রচুর পরিমাণ প্রশংসাবাক্য আর ভরসা দিন। বিশেষত খাবারের লোভ দিলে বিড়াল খুব দ্রুত পানিতে ভেজার কথা ভুলে যাবে।

অল্প পরিমাণ শ্যাম্পু নিন আর ফেনা তৈরি করুন। মাথা থেকে শুরু করে ধীরে ধীরে লেজের দিক যান। এরপর পেট আর গলা ভুললেও চলবেনা কিন্তু। প্রথমে পিঠের দিক আর পরে পেটের দিক পরিষ্কার করলে বেড়ালকে পানি থেকে তুলে সাথে সাথে তোয়ালের মধ্যে নিতে সাহায্য করবে এই টেকনিক।

তবে সাবধান, আপনার বেড়ালের চোখ এবং কানে যেন ভুলেও শ্যাম্পু বা ফ্যানা না যায়। এরপর হালকা গরম পানি দিয়ে কান আর চোখ বাঁচিয়ে ভালো করে তার গা থেকে সমস্ত শ্যাম্পু ধুয়ে ফেলুন।

সাবান আর পানি দিয়ে দু’বার গোসলের পরে আপনার বিড়াল গা ঝাড়া দিয়ে অতিরিক্ত পানি ঝেড়ে ফেলবে। এরপর একটা নরম তোয়ালে নিয়ে আপনার বিড়ালকে মাথা থেকে পা পর্যন্ত মুছে দিন।

আপনার যদি একের অধিক বিড়াল থাকে তাহলে এদের মাঝে ঝগড়া লাগার সমূহ সম্ভাবনা আছে। তাই তারা শান্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত আলাদা আলাদা রাখুন। তারপর সব বিড়ালকে একই তোয়ালে দিয়ে মুছুন যাতে তারা একে অন্যের ঘ্রাণ শেয়ার করতে পারে।

আপনার বিড়ালকে একটা উষ্ণ ঘরে নিয়ে শুকিয়ে নিন আর গা পুরোপুরি শুকানোর আগে তাকে বাইরে যেতে দেবেন না।

ইসি/

 

জীবনযাত্রা: আরও পড়ুন

আরও